সেই হাজী খান রওশন আলী হাসপাতাল বন্ধের নির্দেশ

0
47

নড়াইলে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু

নড়াইল প্রতিনিধি : ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনাসহ নানা অভিযোগে নড়াইলের কালিয়ায় বড়দিয়া বাজারে হাজী খান রওশন আলী হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামের অনুমোদনহীন বেসরকারি হাসপাতালের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সোমবার (৯ মে) এই নির্দেশ দিয়েছেন কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ও গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান ডা. কাজল মল্লিক। তিনি গণমাধ্যম কর্মীদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
এর আগে শুক্রবার (৬ মে) দুপুরে ভূয়া ডাক্তার দিয়ে অপারেশন করানোয় অনুমোদনহীন ওই বেসরকারি হাসপাতালে উপজেলার নড়াগাতি থানার পেচিডুমুরিয়া গ্রামের চৌকিদার আকবর হোসেন মোল্যার মেয়ে শিউলী বেগম (২৫) নামের এক প্রসূতির ভূল চিকিৎসায় গর্ভের সন্তানসহ মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ ওঠে।
সেই ঘটনায় একাধিক গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। এরপর নড়াইলের সিভিল সার্জন ডা. নাছিমা আকতার কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কাজল মল্লিককে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। গঠিত কমিটিকে চার কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ প্রদান করেছেন।
এরই প্রেক্ষিতে রোববার (৮ মে) সারাদিন তদন্ত কমিটির প্রধান টিএইচও ডা. কাজল মল্লিকের নেতৃত্বে ডা. আব্দুল গনি (জনি) ও ডা. সুজয় রায়সহ তিন সদস্যের একটি দল হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। তদন্ত দলটি পরিদর্শনে গিয়ে দেখতে পায় কোনো রকম অনুমোদন ছাড়াই হাসপাতালটির কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। পরিদর্শন শেষে এবং ক্ষতিগ্রস্ত জিন্নাত আলীর (নিহতের স্বামী) বাড়িতে গিয়ে তার জবানবন্দি গ্রহণসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জনস্বার্থে হাসপাতালটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে সূত্র জানায়।

তদন্ত কমিটির প্রধান কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বলেন ডা. কাজল মল্লিক বলেন, ‘হাজী খান রওশন আলী হাসপাতালের বিরুদ্ধে কতিথ ডাক্তার দিয়ে অপারেশন করানোয় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর বিষয়ে সিভিল সার্জনের নির্দেশে একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। তদন্তে জানতে পারি, অনুমোদনহীন ওই হাসপাতালে নিয়মিত কোন চিকিৎসক বা সেবিকা থাকার প্রমাণ মেলেনি। একটি ক্লিনিক বা বেসরকারী হাসপাতাল পরিচালনার জন্য যে সকল শর্তাবলী বা যোগ্যতা থাকার প্রয়োজন সেখানে তার কোনটিই পাওয়া যায়নি। ক্লিনিক বা হাসপাতালটিতে মালিক পক্ষের কোন লোকজন পলাতক থাকায় কথিত চিকিৎসকের পরিচয় জানা যায়নি। সেখানে রক্ষিত চিকিৎসকদের বিলবোর্ডে যাদের নাম রয়েছে তারা কোন ধরনের চিকিৎসক তা জানা যায়নি। অধিক মুনাফার লোভে হাতুড়ে ডাক্তার দিয়ে একটি প্রাইভেট হাসপাতালে সিজারিয়ানের মত গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন মোটেই আইনসিদ্ধ নয়। তাই স্বাস্থ্য সেবার অনুপযোগী ওই অনুমোদনহীন হাসপাতালটির সকল ধরণের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে।
বিষয়টি কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওসি নড়াগাতী থানাকেও চিঠির মাধ্যমে অবহিত করা হয়েছে। কথিত চিকিৎসকের ভুলে একজন প্রসূতি মায়ের ও তাঁর গর্ভের অনাগত সন্তানের মৃত্যুতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।’
প্রসঙ্গত, সিজারিয়ানের জন্য পূর্ব নির্ধারিত দিনে ১৫ হাজার টাকার চুক্তিতে শুক্রবার সকাল নয়টার দিকে ওই হাসপাতালে ভর্তি হন শিউলী বেগম। গোপালগঞ্জ থেকে আসা কতিথ সার্জন শরিফুল ইসলাম শিউলী বেগমের সিজারিয়ান অস্ত্রপচার করার জন্য অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) নিয়ে যায়। অস্ত্রপচারের পূর্বে চিকিৎসক প্রসূতিকে অচেতন করার জন্য একটি ইনজেকশন পুশ করার সঙ্গে সঙ্গে অপারেশন থিয়েটারেই রোগীর মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ ওঠে। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আইনি ঝামেলা এড়াতে সাড়ে তিন লাখ টাকায় নিহতের পরিবারের সঙ্গে সমঝোতা করার পর ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। #