সেবাগ্রহীতাদেরও সোচ্চার হইতে হইবে

0
266

এমন কথা প্রায়শ শোনা যায় যে, ঘুষ-দুর্নীতি-অনিয়ম নিয়ন্ত্রণ করিতে পারিলে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি স্বল্প সময়ের মধ্যেই ‘ডাবল ডিজিটে’ উন্নীত করা সম্ভব হইবে। পাশাপাশি বহুকাল হইতেই এমন একটি ধারণাও প্রচলিত আছে যে, আমাদের দেশে ঘুষ-দুর্নীতি ব্যতিরেকে সরকারি বা বেসরকারি খাতে কোনো সেবা পাওয়া যায় না। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক সেমিনারেও দেশে বিদ্যমান দুর্নীতি সম্পর্কিত কিছু তথ্য-উপাত্ত তুলিয়া ধরা হয়। সম্প্রতি পরিচালিত একটি জরিপের বরাত দিয়া টিআইবি (ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ) বলিয়াছে যে, সরকারি বা বেসরকারি খাতের সেবা পাইতে দেশের ৬৭ শতাংশ সেবাগ্রহীতাই কোনো না কোনোভাবে ঘুষ প্রদানে বাধ্য হইয়াছেন। তাহা ছাড়া ঘুষ প্রদানকারী ৭০ শতাংশ ব্যক্তিই মনে করেন যে, ঘুষ প্রদান ব্যতীত তাহাদের প্রত্যাশিত সেবা পাওয়া অসম্ভব ছিল।

অস্বীকার করিবার উপায় নাই যে, অনেক ক্ষেত্রে ঘুষ-দুর্নীতি দেশের সমাজব্যবস্থার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হইয়া পড়িয়াছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় নানাবিধ হয়রানির মাধ্যমে কিংবা ফাইল আটকাইয়া উেকাচ গ্রহণ করিবার লোকের যেমন কমতি নাই, তেমনি অবৈধ সুবিধা গ্রহণ করিবার লক্ষ্যে উেকাচ প্রদান করিবার লোকের সংখ্যাও ভূরি ভূরি। সুতরাং শুধু রাজনীতি বা একক কোনো পক্ষকে দায়ী করিয়া ঘুষ-দুর্নীতি বন্ধে প্রচার-প্রচারণা চালাইলেই কেবল দেশ রাতারাতি দুর্নীতিমুক্ত হইয়া যাইবে না। উন্নয়নশীল বিশ্বের অন্যান্য দেশের অভিজ্ঞতাও খুব একটা ভিন্ন নহে। সরকার আসে, সরকার যায়। কিন্তু ঘুষ-দুর্নীতির অবসান হয় না।

ঘুষ-দুর্নীতি প্রতিরোধে অনেকেই কঠিন রাজনৈতিক সংকল্পের প্রয়োজনীয়তার কথা বলিয়া থাকেন। কিন্তু ইহার উত্স যেখানে সেই আমলাতন্ত্রের জটিল মারপ্যাঁচের বিষয়টি প্রায়শ বিবেচনার বাহিরেই থাকিয়া যায়। মাঝেমধ্যে ঢাকঢোল পিটাইয়া ইহার বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হইলেও মূল কুশিলবরা ধরা-ছোঁয়ার বাহিরেই থাকিয়া যায়। এমনকি সুনির্দিষ্ট অভিযোগে কোনো কর্মকর্তাকে বদলি করা হইলেও দেখা যায় নানা কৌশলে তিনি ঠিকই স্বপদে বহাল থাকিয়া যান। অতএব, এই ধরনের প্রবণতা বন্ধের কথা বলা যত সহজ, কাজটি মোটেও তত সহজ নহে। ভুক্তভোগীরা রুখিয়া না দাঁড়াইলে পরিস্থিতির পরিবর্তন সুদূরপরাহতই বলা চলে। পাশাপাশি সর্বক্ষেত্রে ডিজিটালাইজড করিবার প্রক্রিয়াও একটি ভালো বিকল্প বলিয়া প্রতীয়মান হয়। প্রযুক্তির উত্কর্ষের এই যুগে এই পদ্ধতিটি ইতোমধ্যে কার্যকর প্রমাণিত হইয়াছে বেশকিছু ক্ষেত্রে। ঘুষ-দুর্নীতির যে ফাঁকফোকরগুলি রহিয়াছে সফলভাবে সেইগুলি বন্ধ করিতে পারাটাও কম গুরুত্বপূর্ণ নহে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here