সেশনজট ও কিছু আর্তনাদ

0
220

ইহসান আজিজ : বাংলাদেশের অধিকাংশ মা-বাবাই অনেক কষ্টে তার সন্তানকে উচ্চশিক্ষার জন্য পাঠান। অটো কিংবা ভ্যান চালিয়ে, খেত-খামারে কাজ করে বাবা টাকা পাঠান তার সন্তানকে। স্বপ্ন একটাই, সন্তান একদিন মানুষের মতো মানুষ হবে, চাকরি পাবে। বাবা-মায়ের মুখ উজ্জ্বল করবে। সংসারের ধরবে হাল, ফিরবে সচ্ছলতা। মানেন কিংবা না মানেন এটাই বাস্তবতা! প্রতিবার যখন বাড়ি যাই তখন বারংবার মুখোমুখি হয় চিরচেনা সেই প্রশ্নের ‘বাবা! আর কতদিন লাগবে?’ উত্তর দিতে গিয়ে থমকে যাই। কারণ গতবার যেটা বলে গিয়েছিলাম সেটা এখনো বলতে হবে যে। তাই ভণিতা করে বলি ‘এইত বাবা, আর বেশি দিন না।’ বাবা-মায়ের মলিন মুখে প্রতিধ্বনিত হয় আরো কিছু বাণী ‘হ বাবা, তাড়াতাড়ি শেষ কর। আমরা যে আর পারি না। মেয়েটার বিয়ে দিতে হবে। তোর বাপের কোমরের ব্যথা আমার ডায়াবেটিসও যে ছাড়ে না…।’

শুধু নিজেদের কথাই বলি, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৪-১৫ সেশনের যারা আছে তারা ক্লাস শুরু করেছিল ২০১৪ সালে। সে হিসেবে তাদের ২০১৭ এর এই সময়ে চতুর্থ বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারে থাকার কথা। কিন্তু তারা এখনো তৃতীয় বর্ষ প্রথম সেমিস্টারে ধুঁকছে (এক বছরে দুই সেমিস্টার)। সে হিসেবে প্রায় দেড় বছরের মতো সময় পিছিয়ে তারা। ২০১৫-১৬ সেশনের যারা আছে তারা আছে প্রায় এক বছর মতো পিছিয়ে। চারবছরে অনার্স কোর্স শেষ করতে লাগতে পারে ছয় বছর পর্যন্ত!

সেশনজটকে ঝেড়ে বিদায় করা কি আসলে খুব কঠিন? বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী, ছয় মাসের এক সেমিস্টারে একজন শিক্ষককে তার কোর্সের ওপর ৪০টি ক্লাস অর্থাত্ ৪০ ঘণ্টা লেকচার দিতে হবে। একজন শিক্ষক সাধারণত ২৫ থেকে ৩৫ এর মধ্যে ক্লাস নিয়ে থাকেন। ধরে নিলাম, বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ গণ্ডগোল বা অন্য কোনো কারণে অনাকাঙ্ক্ষিত ভাবে ক্যাম্পাস এক-দেড় মাস মতো বন্ধ হয়ে গেল (সাধারণত এর বেশি হয় না)। অর্থাত্ ছয় মাস থেকে চলে যাচ্ছে এক মাস মতো। সেমিস্টার ফাইনালের জন্য লাগে একমাস। তো একজন শিক্ষক কি এই চার মাসের মধ্যে মাত্র ৩৫/৪০ ঘণ্টা ক্লাস নিতে পারবে না? নিশ্চয় এটা শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের জন্য কোনো কঠিন বিষয় হবে না। এ হিসেবে কোনো সমস্যা যদিও হয় সেটা কাটিয়ে নেওয়া সম্ভব। ছয় মাসের সেমিস্টার চার কিংবা পাঁচ মাসে শেষ করা কোনো ব্যাপারই না। সেশনজটের কবলে পড়ে হাহাকার করবে না কোনো শিক্ষার্থী। কিন্তু এরকম কিছু দেখা যায় না, উল্টো বছরের পর বছর পিছিয়ে যাই আমরা। কারণ একটাই সদিচ্ছার অভাব। কোটি কোটি জনসংখ্যা তার মধ্যে কয়েক হাজার একটু পিছিয়ে গেলে সমস্যা কি? কর্তৃপক্ষ নিশ্চয় এটাই ভাবেন, না হলে একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি নিয়োগে মাসের পর মাস লাগার কারণ কি? ভিসি ছাড়া পুরো বিশ্ববিদ্যালয় প্রায় অচল বলা চলে। আমাদের ভিসি স্যারের মেয়াদ শেষ হয় মে মাসের ৩ তারিখে। এখন আড়াই মাস হতে চলল কিন্তু এখনো কোনো ভিসি নিয়োগ দেওয়া হয়নি। উনার জন্য আটকে আছে গত সেমিস্টারে রেজাল্ট প্রকাশ থেকে সবকিছু। গত জুনে সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ভিসি না আসায় কেউ জানে না সেটা কবে হবে। চাকরিতে প্রবেশের আমাদের জন্য আলাদাভাবে সময় বাড়ানো হবে না নিশ্চয়। তাহলে এই সময়গুলো আমাদের কে ফিরিয়ে দেবে?

লেখক : শিক্ষার্থী, অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ, বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইনিজনিয়ারিং বিভাগ, মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, টাঙ্গাইল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here