সৌখিন ক্রীড়া চক্রকে প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগে সেচ্ছাচারি ও ষড়যন্ত্র মূলকভাবে অংশগ্রহন করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0
429

ক্রীড়া প্রতিবেদক : যশোরের ঐতিহ্যবাহী ক্লাব সৌখিন ক্রীড়া চক্রকে প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগে সেচ্ছাচারি ও ষড়যন্ত্র মূলকভাবে অংশগ্রহন করতে না দেওয়া , অবৈধ্যভাবে বহিস্কার, বহিস্কারের সময়কাল পার হলেও তা প্রত্যাহার না করার প্রতিবাদে শনিবার সংবাদ সম্মেলন করেন ক্লাব কর্মকর্তারা। প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে বিকেলে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সৌখিন ক্রীড়া চক্রের সাধারণ সম্পাদক এবিএম আখতারুজ্জমান। লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ক্লাবটি ১৯৮৬ সালে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে পূর্বে যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থা এবং পরবর্তীতে ডিএফএ যশোরের আয়োজনে প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগে অংশগ্রহণ করে আসছে। কখনও ক্লাবটির বিরুদ্ধে জেলা ক্রীড়া সংস্থা এবং ডিএফএর পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ উত্থাপন হয়নি। কিন্তু ২০১৩ সালের ২৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড প্রথম বিভাগ ফুটবল লীগের খেলায় অংশ নেয় টাউন ক্লাব ও সৌখিন ক্রীড়া চক্র। লীগের বাইলজের ধারা-৭ এর ‘ক’ অনুযায়ী বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত শামিম তার ক্যাম্প ইনচার্জ এবং প্রশিক্ষকের কাছ থেকে ছাড় পত্র গ্রহণপূর্বক তা জমা দিয়ে আমাদের ক্লাবের পক্ষে অংশগ্রহণ করেন। সে খেলায় সৌখিন ক্রীড়া চক্র জয়ী হয়। খেলা শেষ হওয়ার চার দিন পর নির্ধারিত ফিস এবং লেটার হেড প্যাড ছাড়াই একটা সাদা কাগজে ডিএফএর সভাপতির আসাদুজামান মিঠুর নির্দেশে টাউন ক্লাবকে দিয়ে একটি আপত্তি শামিমের বিরুদ্ধে জমা দেয়। তবে বাইলজের ধারা-১৭ অনুযায়ী কোন আপত্তি থাকলে খেলা শেষ হওয়ার এক ঘন্টার মধ্যে নির্ধারিত ফিস পরিশোধ পূর্বক লেটারহেড প্যাডে আবেদন করার কথা। কিন্তু সে আইন না মেনে অবৈধ এবং জোরপূর্বক আপত্তি দাখিল করে যা সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য। সেই আপত্তিটি নিয়ে ডিএফএর সভাপতি নিজেই খেলাকে প্রাধান্য না দিয়ে কি করে যশোরের ঐতিহ্যবাহী সৌখিন ক্রীড়া চক্রকে হেনস্থ এবং কিভাবে লিগ থেকে বাদ দেওয়া যায় সেই প্রক্রিয়ায় লিপ্ত হন। সভাপতি নিজ প্রভাব খাটিয়ে ১২ জানুয়ারি কংগ্রেসে সকলের উপস্থিতিতে যে সিদ্ধান্ত হয়েছে সৌখিন ক্রীড়া চক্রের কর্মকর্তা তখন উপস্থিত ছিল। সেটাকে পাশ কাটিয়ে কংগ্রেসের দুদিন পর ১৪ জানুযারি ইচ্ছামত রেজুলেশন করে তা সকলের নিকট প্রেরণ করেন যেটা সম্পূর্ণ অবৈধ । যাতে বলা হয় এ ক্লাবটিকে এক বছরের জন্য বহিস্কার করা হলো। তবে দু’বছরের বেশী অতিবাহিত হলেও বহিস্কারাদেশ তুলে নেওয়া হয়নি। এমনকি ডিএফএর কাছ থেকে কোন নির্দেশনা পায়নি। এর বিরুদ্ধে ও সমাধান চেয়ে বারংবার বাফুফেতে গিয়েছি। লিখিতভাবে চলতি বছরের ১১ মার্চ ও ১১ সেপ্টেম্বর বাফুফের সভাপতিকে জানিয়েছি। কিন্তু ফলাফল পায়নি।
মোহাম্মদ শফিকউজ্জামান যখন ডিএফএর সভাপতি ছিলেন তখন যশোর আবাহনী ক্রীড়া চক্র দ্বিতীয় বিভাগে অংশ নিয়েছিল। তখনকার বাইলজে ছিল কোন বহিরাগত খেলোয়াড় দ্বিতীয় বিভাগে অংশ নিতে পারবে না। কিন্তু তখন যশোর আবাহনী ক্রীড়া চক্রের সভাপতি আসাদুজামান মিঠু তার দলের প্রশিক্ষক হালিম রেজাকে দিয়ে ২ জন সাতক্ষীরা জেলার খেলোয়াড়কে তার দলে হয়ে খেলান। বিপরীত দলের আপত্তি যাচাই বাছাই করে দু’জন খেলোয়াড় সাতক্ষীরা জেলার বাসিন্দা বলে প্রমানীত হয়। সেকারণে আবাহনী ক্রীড়া চক্র জয়ী হলেও সভার সিদ্ধান্ত ও বাইলজ অনুযায়ী ২ পয়েন্ট কেটে নেওয়া হয়। তবে যশোরের ফুটবলের উন্নয়নের সার্থে আবাহনী ক্রীড়া চক্রকে অন্য কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। কিন্তু বর্তমান ডিএফএর সভাপতি প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে কোন ক্লাবকে শাস্তি দেওয়া যায়, কি করে একটি ক্লাবের সুনাম নষ্ট করা যায় এবং কি করে একটি ক্লাবকে ধ্বংস করা যায়, সেটি নিয়েই তিনি ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। বাইলজকে উপেক্ষা করে তিনি নিজের মতো বেআইনীভাবে সকল কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। এই অবৈধ কার্যক্রমের বিরুদ্ধে আমরা বাফুফের সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ এমপির কাছে অনেকবার গিয়েছি,আবেদনও করেছি কয়েকদফা। কিন্তু আজও কোন ফলাফল পায়নি। ২০১২-১৩ এবং ২০১৫ সালের প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগের বাইলজে কোথাও লেখা নেই বহিস্কার হলে তাকে দ্বিতীয় বিভাগে নেমে যেতে হবে। তাছাড়া এ সংক্রান্ত কোন চিঠি সৌখিন ক্রীড়া চক্রকে দেওয়া হয়নি। শুধু বহিস্কার করে ক্ষ্যান্ত হননি, পরবর্তীতে পত্রিকা মাধ্যমে জানতে পারলাম দ্বিতীয় বিভাগে ফুটবল লিগে সব দল এন্ট্রি করেছে শুধুমাত্র সৌখিন ক্রীড়া চক্র করেনি। বাফুফে ইতিপূর্বে ঢাকার ফরাশগঞ্জ ক্লাবকে এক বছরের জন্য বহিস্কার করলেও পরবর্তীতে তারা আবারও লীগে অংশগ্রহণ করে। তাছাড়া ঢাকার আরামবাগ ক্লাবকে সাসপেন্ড করলেও সাত দিন পর তারা আবারও খেলায় অংশগ্রহণ করে । কারণ ফুটবলের স্বার্থে বাফুফে এটাকে ছাড় দিয়েছে। এখানে উক্ত ক্লাবদ্বয়কে তো দ্বিতীয় বিভাগে নামিয়ে দেয়নি। এসকল ঘটনার অবতারণা হলে আমরা পুনরায় বাফুফের সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ এমপির কাছে গিয়েছিলাম। তার পরামর্শ এবং সুপারিশে ঢাকাতে বাফুফে ভবনে আবেদন দিয়ে যায়। তিনি বলেছিলেন, অচিরেই সৌখিন ক্রীড়া চক্র চিঠি পেয়ে যাবে প্রথম বিভাগ ফুটবল লীগে খেলার জন্য। বেশ কয়েক মাস পার হলেও সমাধান পায়নি। সম্প্রতি স্থানীয পত্রিকার মাধ্যমে জানতে পারি প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগের জন্য এন্ট্রি আহবান করা হয়েছে। তবে এ সংক্রান্ত চিঠি সৌখিন ক্রীড়া চক্রকে দেওয়া হয়নি। যে কারনে ন্যায় বিচারের আশায় আমরা মহামান্য আদালতে গত ৫ অক্টবর মামলা দায়ের করেছি। মামলা নম্বর-১৬৬/১৭। ন্যায় বিচার পাওয়া আশায় মামলা করেছি আমরা। আমরা ফুটবলকে ভালবাসি। খেলা বন্ধ করার জন্য আমরা মামলা করিনি। খেলোয়াড়েরা অর্থ পাক এটাও আমরা চাই। আমরা চাই অনিয়মতান্ত্রিক ভাবে ডিএফএ যে কাজটি করেছে তার একটা সমাধান হোক। খেলোয়াড়দের উদ্দেশ্যে বলতে চাই বহু খেলোয়াড় এ পর্যন্ত এই ক্লাবের হয়ে অংশগ্রহণ করেছে। যশোরের ফুটবল অঙ্গন পূর্বের ন্যায় উজ্জ্বল হোক এটাও আমরা চাই। তবে প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে একটি মহল সৌখিন ক্রীড়া চক্রকে বাদ দেওয়ার যে প্রক্রিয়া করছে এটা হতে দেওয়া যায় না। যখনই সৌখিন ক্রীড়া চক্র প্রথম বিভাগ ফুটবল লীগে অন্তভুক্ত হতে পারবে তখনই আমরা ফুটবলের স্বার্থে স্বেচ্ছায় মামলা তুলে নেবো। আমরা কখনই ফুটবলের বিরুদ্ধে না। আমরা সবসময় খেলা মাঠে থাকুক এটা চাই। নিয়মানুযায়ী চললে আমরা আছি কিন্তু অনিয়মতান্ত্রিকভাবে চলার চেষ্টা করলে তাতে আমরা নেই। যদিও আমরা আদালতের আশ্রয় নিয়েছি, তবুও খেলাধুলার বৃহত্তর স্বার্থে বিষয়টি আশু সমাধানের জন্য জেলা প্রশাসক ও ডিএফএ যশোরের প্রধান উপদেষ্টা আশরাফ উদ্দিন , সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যন শাহীন চাকলাদার এবং পৌর মেয়র ও শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের সভাপতি জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টুর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সভাপতি এএসএম ওবায়দুল কাদের, সহসভাপতি তোফাজ্জেল হোসেন ও হালিম রেজা, সহসাধারন সম্পাদক সোহেল আল মামুন নিশাদ, সাংগাঠনিক সম্পাদক এনাম মাহমুদ বাবু প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here