‘স্ত্রীকে অপহরণের কথা বলতে নিষেধ করেছিলেন ফরহাদ মজহার’

0
236

নিজস্ব প্রতিবেদক: কথিত অপহরণের দিন ফরহাদ মজহার তার স্ত্রী ফরিদা আক্তারকে ফোন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এই কথা বন্ধ করার অনুরোধ করেছিলেন বলে দাবি করেছেন পুলিশ প্রধান এ কে এম শহীদুল হক। তিনি জানান, ওই দিন স্ত্রী ছাড়াও এক নারীর সঙ্গে ফরহাদ ফোনে ছয় বার কথা বলেছিলেন।

ফরহাদ মজহার ‘অপহরণ’ মামলার তদন্তের বিষয়ে জানাতে বৃহস্পতিবার রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলন ডাকেন পুলিশ প্রধান। এ সময় তিনি এসব কথা বলেন।

গত ৩ জুলাই ভোরে রাজধানীর শ্যামলীর বাসা থেকে বের হওয়ার পর ফরহাদ মজহারকে অপহরণ করা হয় বলে অভিযোগ করা হয়েছে মামলায়। এতে জানানো হয়, অপহরণের পর ফরহাদ মজহার তার স্ত্রীকে ফোন করে মুক্তিপণ হিসেবে ৩৫ লাখ টাকা জোগাড় করতে বলেন।

পরদিন আদালতে ফরহাদ জানান, তাকে মাইক্রোবাসে করে তুলে নেয়ার পর সন্ধ্যা সাতটার দিকে খুলনায় ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু খুলনা নিউমার্কেটের ভেতরে ধারণ করা সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, তিনি শান্তভাবে ভেতরে ঢুকছেন বিকাল ৪.৩১ মিনিটে।

আইজিপি বলেন, ‘আমরা তদন্ত করে গিয়ে দেখলাম ৫.২৯ থেকে ৭টা পর্যন্ত তিনি তার স্ত্রীর সঙ্গে দশবার টেলিফোনে কথা বলেছেন। টেলিফোনে কী কী বলেছেন আমাদের কাছে কিছু আছে। আর একটি নম্বরে ওনি ছয়বার কথা বলেছেন। ওই নম্বর থেকে একটি এসএমএস আছে। অপহরণকারীদের কাছে থাকা অবস্থায় স্ত্রীর সঙ্গে বলছেন মুক্তিপণের জন্য টাকা আনতে হবে।’

ওই রাতেই খুলনা থেকে ঢাকায় আসার পথে যশোরের অভয়নগরে ফরহাদ মজহারকে উদ্ধার করা হয়। পরদিন ঢাকায় নিয়ে আসার পর আদালতে জবানবন্দি নেয়ার পর তাকে মুক্তি দেয়া হয়। আর এই মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পশ্চিম বিভাগকে।

তদন্তের এক পর্যায়ে অন্য নারীর বিষয়টি জানা যায় বলেও জানান পুলিশ প্রধান। তিনি বলেন, ‘কিন্তু অন্য একটি ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন, তখন তদন্ত অফিসারের স্বভাবতই মনে সন্দেহ জাগে, এই ব্যক্তি হয়ত অপহরণকারীর পক্ষের কোন লোক, অথবা তার কোন পক্ষের লোক। এই ব্যক্তিই স্বাভাবতই প্রাসঙ্গিক হয়ে যায়। আমরা প্রাসঙ্গিক ব্যক্তিকে খুঁজে বের করা তদন্তকারী অফিসারের দায়িত্ব ছিল। আমরা তদন্ত করতে গিয়ে দেখতে পেলাম, ঢাকার নতুন বাজার এলাকায় থাকে, সেখান ত্যাগ করে চলে গেছেন চট্টগ্রাম। সেখান থেকে আমরা খুজে দেখলাম ব্যক্তিটা একজন নারী এবং যেহেতু সে এই ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত হয়ে গেছে সেহেতু তার স্টেটমেন্ট নেওয়ার আইনগত বাধ্যবাধকতা রয়েছে।’

আইজিপি বলেন, ‘ওই মহিলা তার বক্তব্যে বলেছেন ফরহাদ মজহারের সঙ্গে তার ২০০৭ সালে উবিনীতে কাজ করার সময় পরিচয় হয়। টা্ঙ্গাইলে কাজ করার সময় তাকে বাদ দেয়া হয়, তার পরও তার সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখা হয়। তার বক্তব্য অনুযায়ী সেই সম্পর্কের কারণে তার একটি সমস্যা সৃষ্টি হয় এবং ডাক্তারের কাছে যায়। শারীরিকভাবে অনেক সমস্যা সৃষ্টি হয়। গত কয়েক দিন ধরে আবার একই ধরনের সমস্যার দেখা দিচ্ছে, এই কারণে আগের দিন ২ তারিখে তিনি উদ্বেগ উৎকণ্ঠার মধ্যে ছিলেন, কী করা যায় কী হবে টাকা লাগবে পয়সা লাগবে। এই কথা শুনে ফরহাদ মজহার নিজেই উদ্বিগ্ন হয়ে গেছেন।’

আইজিপি বলেন, ‘১৬৪ ধারা তার জবানবন্দি আদালতে রেকর্ড করা হয়। তদন্ত করতে গিয়ে তার (ফরহাদ মজহার) কথার সঙ্গে গড়মিল পাই। ‍ওনি একবার টেলিফোনে বলছেন যে অপহরণকারীরা টাকা দিলেই ছেড়ে দেবে। আবার আর একবার ওনার স্ত্রীকে বলছেন যে টাকা তোমার কাছে রেখে দাও। ওরা জিজ্ঞাস করলে বলবে যে, টাকা ডেলিভারি হয়ে গেছে।’

এসব কথোপকথনের সব রেকর্ড পুলিশের কাছে আছে বলেও জানান বাহিনীটির প্রধান। তিনি বলেন, কথোপকথনের এক পর্যায়ে স্ত্রীকে অপহরণের কথা ছড়িয়ে পড়া বন্ধ করার তাগাদাও দেন ফরহাদ মজহার। আইজিপি বলেন, ‘ওনি (ফরহাদ মজহার) আবার তার স্ত্রীর সঙ্গে বলে, এগুলি তো ভাইরাল হয়ে গেছে এগুলি বন্ধ করো, ওরা আমাকে ছেড়ে দেবে।’

‘সকল তথ্য আমাদের কাছে আছে। এই অবস্থায় এখন আপনারাই বলেন এটাকি অপহরণ হয়েছে’- বলে প্রশ্ন ছুড়ে দেন আইজিপি।

আইজিপি জানান, যে নারীর সঙ্গে ফরহাদ মজহারের কথা হয়েছিল ওই নারীও তার কাছে জানতে চেয়েছিলেন তিনি সত্যি সত্যি অপহৃত হয়েছিলেন কি না। জবাব ফরহাদ মজহার তাকে বলে, ‘না না, আমি ভালো আছি। আমার কোন সমস্যা হয় নাই।’ ৩ জুলাই সন্ধ্যার পরে এক বার তের হাজার এবং পরের বার দুই হাজার টাকা ওই নারীর কাছে ফরহাদ মজহার পাঠান বলেও দাবি করেন পুলিশ প্রধান।

কিছু বলতে চান না ফরহাদ মজহারের স্ত্রী

নিখোঁজের দিন ফোন করে স্ত্রীকে ‘অপহরণ’ এর কথা বলতে নিষেধ করার বিষয়ে ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আক্তারের বক্তব্য চেয়েও পাওয়া যায়নি। পুলিশের দাবির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি এসব নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। যারা এসব কথা ছড়িয়েছে তাদেরকেই জিজ্ঞেস করুন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here