স্বনির্ভর নারী

0
272

আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন জোটের আওতাধীন সখী প্রকল্পের আওতায় চেঞ্জমেকার হিসেবে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়ে লক্ষাধিক নারী একদিকে যেমন স্বনির্ভর হচ্ছে, অন্যদিকে সুবিধাবঞ্চিত ও নির্যাতনের শিকার নারীদের পাশে দাঁড়াচ্ছে। দি কিংডম অব দ্য নেদারল্যান্ডসের আর্থিক সহায়তায় সংগঠনটি কাজ করে যাচ্ছে রাজধানীর ১৫টি বস্তিতে। এর সঙ্গে যুক্ত নারীরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে ৬ মাসের কারিগরি প্রশিক্ষণ নিয়ে পরিবারের আর্থিক উপার্জনের মাধ্যমে দাঁড়িয়েছেন নিজের পায়ে। এতে স্বভাবতই তাদের সংসারে আত্মবিশ্বাস অর্জনের পাশাপাশি এসেছে সচ্ছলতা ও সুখ। এর ফলে চেঞ্জমেকার হিসেবে তারা ভাগ্য বিড়ম্বিত বহু নারীকে অনুপ্রাণিত ও উদ্বুদ্ধ করছেন। অন্যদিকে বস্তিতে বসবাসরত সুবিধাবঞ্চিত নারীদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। তাদেরও টেনে আনছেন অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নসহ আয়বর্ধনমূলক কাজকর্মে কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নারীদের অধিকাংশই ইলেক্ট্রনিকস, কাঠের কাজ, ড্রাইভিং, সেলাই মেশিনসহ বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণ নিয়ে বর্তমানে উপার্জন করছেন। এরকম আরও অনেক সংগঠন ও এনজিও রয়েছে যারা নারীর অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা অর্জনে কাজ করছে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো দেশের জনসংখ্যা সম্পর্কিত একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। দেশের আর্থসামাজিক পরিস্থিতি মূল্যায়নের জন্য এই ধরনের তথ্য-পরিসংখ্যানকে মূল্যায়নসহ গুরুত্ব প্রদান করা হয়। এতে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৯৭ লাখ ৫০ হাজার। এর মধ্যে পুরুষের সংখ্যা ৮ কোটি ১০ লাখ এবং নারী ৮ কোটি ৭ লাখ ৫০ হাজার। সেক্ষেত্রে পুরুষ ও নারীর অনুপাতে ভারসাম্য বিরাজ করছে। তবে যা দুঃখজনক তা হলো নারীরা এখনও বহুক্ষেত্রে পুরুষ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। শতকরা ৮৭ দশমিক ২ ভাগ পরিবারের খানা প্রধান হচ্ছে পুরুষ। তবে গত ৫ বছরে নারী-পুরুষ লিঙ্গানুপাত কমেছে, উন্নত সমাজব্যবস্থার জন্য যা গুরুত্বপূর্ণ।

তবে মোট জনসংখ্যার ৬৬ শতাংশই কর্মক্ষম শীর্ষক বিষয়টি নিঃসন্দেহে ইতিবাচক। আরও যা আশার কথা তা হলো, দিনে দিনে বাড়ছে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা। ২০৩০ সাল নাগাদ এই সংখ্যা পৌঁছাবে ৭০ শতাংশে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার এহেন অগ্রগতির খবর প্রকাশিত হয়েছে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচীর (ইউএনডিপি) প্রতিবেদনে। এতে জনসংখ্যার সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জের কথা তুলে ধরে বলা হয়েছে, কর্মক্ষম জনশক্তিকে কাজে লাগানোর মতো উন্নত শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ভিন্নধর্মী কাজ, কারিগরি দক্ষতা, সৃজনশীল জ্ঞান ও প্রশিক্ষণ বাংলাদেশে গড়ে তুলতে হবে।

গার্মেন্টস শিল্পে দেশের সুখ্যাতি বিশ্বজোড়া। আয়ও অসামান্য। এ খাতে কয়েক লাখ নারীর কর্মসৃজন হয়েছে। নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ ঈর্ষণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছে বিশ্বে। প্রাথমিক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য কর্মসূচীসহ নারী ও শিশু মৃত্যুর হার প্রতিরোধেও বাংলাদেশের সাফল্য প্রশংসনীয়। জিডিপি প্রবৃদ্ধি ইতোমধ্যে ৭ শতাংশ অর্জিত হয়েছে। বেড়েছে মাথাপিছু আয়। নিম্ন মধ্য আয়ের দেশ থেকে ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে ধাবমান বাংলাদেশ। প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ৮ শতাংশ অতিক্রম করা। এক্ষেত্রে নারীর অবদান অসামান্য।

সেটা অতিক্রম করতে হলে ইউএনডিপি উল্লিখিত ৬৬ শতাংশ কর্মক্ষম জনশক্তিকে কাজে লাগাতে হবে। অদক্ষ জনশক্তিকে রূপান্তরিত করতে হবে দক্ষ জনশক্তিতে। জোর দিতে হবে কারিগরি শিক্ষা সম্প্রসারণের ওপর। বাড়াতে হবে শিক্ষার মান। জ্ঞান-বিজ্ঞানভিত্তিক শিক্ষার ওপর সবিশেষ গুরুত্বারোপ করতে হবে। নারী-পুরুষের সমতা অর্জনের দিকে নজর দিতে হবে। সর্বোপরি কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য জোর দিতে হবে দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ ও শিল্পায়নের ওপর। বর্তমানে কৃষি ও শিল্পক্ষেত্রে যে অবস্থা বিরাজ করছে তাতে বৈচিত্র্য ও বহুমুখিতা কম। সেক্ষেত্রে ধান-চালের পাশাপাশি কৃষির বহুমুখীকরণ তথা অর্থকরী ফসল উৎপাদনে মনোযোগী হতে হবে। ভারি ও বহুমুখী শিল্পায়ন করতে হবে। তথ্যপ্রযুক্তি, ব্যাংক-বীমাসহ কারিগরি উৎকর্ষ অর্জনের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্র, মহাকাশ গবেষণা পরিচালনার জন্য দক্ষ জনবল তৈরি করতে হবে দেশেই। একটি আধুনিক ও বিজ্ঞানমনস্ক কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী তৈরি বর্তমান সময়ের দাবি। পরিহার করতে হবে কূপম-ূকতা। অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অগ্রগতি অর্জন এবং তা অব্যাহত রাখতে হলে সুশাসনসহ রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা অপরিহার্য। সেক্ষেত্রে এই দিকটির দিকেও নজর দিতে হবে সরকারকে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সিডও সনদে স্বাক্ষরকারী দেশ। নারী-পুরুষ সমানাধিকার ও ক্ষমতায়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সে অবস্থায় অঙ্গীকার পূরণে আরও অনেকদূর এগিয়ে যেতে হবে আমাদের।
– See more at: http://www.dailyjanakantha.com/details/article/308877/%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AD%E0%A6%B0-%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%80#sthash.NEl4Nrvr.dpuf

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here