স্বপ্নচারী স্ট্যাডি গ্রুপের উদ্যোগে যশোরে দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মত বিনিময় ও কুইজ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত

0
616

বিশেষ প্রতিনিধি : বৃহস্পতিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী স্বপ্নচারী স্টাডি গ্রুপের উদ্দ্যোগে চৌগাছা সরকারি কলেজে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষার্থীদের জীবনের স্বপ্ন, লক্ষ্য ও উদ্দ্যেশ্য নিয়ে আলোচনা করা হয় এবং কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এ কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রায় ৩শ’ শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে এবং বিজয়ী প্রার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে মোঃ কামরুল ইসলাম রনি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), বাগেরহাট। অনুষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র কলেজের অধ্যক্ষ জনাব মোঃ রফিকুল ইসলাম ও স্বপ্নচারীর সেক্রেটারি মোঃ ইমরান হোসেন সহ কলেজের শিক্ষকমন্ডলী ও সাংবাদিকবৃন্দ। অনুষ্ঠানে কামরুল ইসলাম বলেন যে, মেধা এ শিক্ষা ব্যবস্থা বহুমুখী ধারায় প্রবাহিত করে দেশকে উন্নয়নশীল দেশে পরিনত করতে হবে। সকলের একটা নির্দিষ্ট স্বপ্ন থাকবে এবং সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্য দরকার কঠোর চেষ্টা ও সঠিক দিকনির্দেশনা। অধ্যক্ষ মহোদয় স্বপ্নচারীর এ উদ্দ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে বরেন যে, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে এমন ব্যতিক্রমধর্মী শিক্ষা-কার্যক্রম একান্ত প্রযোজন। ফলে শিক্ষার্থীদের মেধাশক্তি ও কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। সবশেষে ইমরান হোসেন সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সমাপনী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠাস শেষ করেন। অপরদিকে এর আগের দিন ২৬ ফেব্রুয়ারী স্বপ্নচারী স্টাডি গ্রুপের উদ্দ্যোগে সরকারি এম এম কলেজ প্রাঙ্গনে ভ্রাম্যমান কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এ কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রায় ১শ’ শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে এবং বিজয়ী প্রার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃ কামরুল ইসলাম রনি, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), বাগেরহাট। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মোঃ হায়াতুজ জামান মুকুল ও স্বপ্নচারীর সেক্রেটারি মোঃ ইমরান হোসেন সহ সাংবাদিকবৃন্দ। অনুষ্ঠানে কামরুল ইসলাম বলেন যে, মেধা এ শিক্ষা ব্যবস্থা বহুমুখী ধারায় প্রবাহিত করে দেশকে উন্নয়নশীল দেশে পরিনত করতে হবে। সকলের একটা নির্দিষ্ট স্বপ্ন থাকবে এবং সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্য দরকার কঠোর চেষ্টা ও সঠিক দিকনির্দেশনা। হায়াতুজ জামান মুকুল স্বপ্নচারীর এ উদ্দ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে বরেন যে, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে এমন ব্যতিক্রমধর্মী শিক্ষা-কার্যক্রম একান্ত প্রযোজন। ফলে শিক্ষার্থীদের মেধাশক্তি ও কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। সবশেষে ইমরান হোসেন সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সমাপনী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্টান শেষ করেন। ২৬ ফেব্রুয়ারী বুধবার কুইজ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়।