স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করলেন ধর্ষিতা ও তার পিতা-মাতা

0
281

যশোর মণিরামপুরে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় এবার ধর্ষকের পিতা-মাতাসহ ৪ জন আটক
বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর মণিরামপুর উপজেলায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় ৩ ধর্ষকের পিতা-মাতাসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ২টায় পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে।
এ ঘটনায় ধর্ষকদের গ্রেফতার,থানা পুলিশ ধর্ষণের মামলা না নেয়ায় ভিকটিম এবং তার পিতা-মাতা মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সাথে দেখা করেছেন বলে জানিয়েছেন ভিকটিমের পিতা। এসময় ভিকটিম ও তার পিতা-মাতার কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গুরুত্ব দিয়ে শুনে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন পুলিশ কর্মকর্তাকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে আসামী গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন। এরপর ওইরাতেই আসামী গ্রেফতারে মনিরামপুর থানা পুলিশ ধর্ষকদের বাড়িতে সাড়াশি অভিযান চালায়। এসময় আসামীদের না পেয়ে ধর্ষণ পরবর্তী ঘটনায় সন্তানদের সহযোগীতার অভিযোগে ধর্ষকদের পিতা-মাতাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলো, মূল আসামী হানুয়ার গ্রামের রুমানের মা পুলিশ সদস্য হাবিবুর রহমানের স্ত্রী মাহিনুর বেগম (৩৫), রয়েলের পিতা মনোহরপুর গ্রামের আজিজুর রহমান (৪৮) মা শাহানারা বেগম (৪০) এবং একই গ্রামের রুবেলের মা ঝর্ণা খাতুন (৪৫)।
গত ২৯ জানুয়ারি রুমান, রুবেল ও রয়েল এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে উপজেলার নলতা গ্রামের কথিত সাখাওয়াত কবিরাজের বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে মোবাইলে ভিডিও ধারন করে। সেখানে স্কুলছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয় এক ইউপি সদস্য রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আয়েন উদ্দিনকে খবর দিলে পুলিশ ওই কবিরাজের বাড়ি থেকে অসুস্থ্য স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে বাড়িতে পৌছে দেয়।
অভিযোগ রয়েছে, পুলিশের অভিযানের সময় ধর্ষকরা কবিরাজের বাড়িতে অবস্থান করলেও পুলিশ মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদেরকে আটক না করে পালিয়ে যেতে সহযোগীতা করে। এরপর এসআই আয়েন উদ্দিন গোপনে শালিস-দরবারের মাধ্যমে বিষয়টি ধামাচাপা দেবার চেষ্টা করে। ঘটনার পর ভূক্তভোগী পরিবার থানায় মামলা করতে গেলে ভিকটিমের মাকে ভুল বুঝিয়ে নেয়া হয় অপহরণের মামলা। বিষয়টি ভিকটিম আদালতে দায়েরকৃত মামলায় উল্লেখ করেছেন। এ ঘটনা মানবাধিকার কর্মীরা জানতে পেরে ভিকটিমের পাশে এসে দাড়ায়। এরপর মানবাধিকার কর্মীরা ভিকটিমসহ ভিডিও নিয়ে থানায় ধর্ষণের মামলা করতে গেলে উল্টো তাদেরকে ওসি ধর্ষণের ভিডিও রাখার দায়ে মামলার হুমকি দেয় বলে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা বাস্তবায়ন সংস্থার জেলা সাধারন সম্পাদক আব্দুর রশিদ লাল্টু অভিযোগ করেন। এরপর ১৩ ফেব্র“য়ারি বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা থানায় ধর্ষণ মামলা রেকর্ড, আসামী আটক ও ভিকটিম পরিবারকে নিরাপত্তাসহ ৭ দফা দাবিতে প্রেসক্লাব যশোর-এর সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। পরে মানববন্ধনকারিরা জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের নিকট স্মারকলিপি প্রদান করে। ১৫ ফেব্র“য়ারি ভিকটিম বাদি হয়ে যশোর সিনয়ির জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতে ধর্ষণসহ পর্নোগ্রাফি ধারায় মামলা দায়ের করে। মামলা নং-৮৩/১৭। মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআইকে (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) নির্দেশ দেন আদালত। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশিত হলে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনসহ সর্বমহলে তোড়পাড়ের সৃষ্টি হয়। এরই অংশ হিসেবে গত ১৫ ফেব্র“য়ারি গভীররাতে কথিত সাখাওয়াত কবিরাজকে আটক করে। এসময় পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর কবিরাজ সাখাওয়াতকে আদালতে চালান দেয়া হয়।
এদিকে থানা পুলিশের কাছ থেকে সহযোগীতা না পেয়ে আসামী গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের বাসভবনে ভিকটিম ও তার পিতা-মাতা দেখা করেন। এসময় তাদের কাছ থেকে সব শুনে আসামী গ্রেফতারে ২৪ ঘ্টা সময় বেঁধে দেন মন্ত্রি বলে একটি সূত্র জানায়। পরে ওই রাতেই পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেয়ে মণিরামপুর থানা পুলিশ আসামীদের বাড়িতে সাড়াশি অভিযান চালায়। কিন্তু ঘটনার পরপরই ধর্ষক রুমান, রুবেল ও রয়েল গা ঢাকা দেয়। ভিকটিমের পিতার দাবি পুলিশ প্রথম দিকে তৎপর হলে আসামীদের সহজেই গ্রেফতার করতে পারতো।
এ ব্যাপারে রাজগঞ্জ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আয়েন উদ্দিন আসামীদের পিতা-মাতাদের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ধর্ষকদের অভিভাবকরা তৎপর হলে মোবাইলে ধারনকৃত পাশবিক নির্যাতনের ভিডিও ফুটেজ ছড়িয়ে পড়তো না। যে কারনে ছেলেদের অপকর্মের সহযোগীতার অভিযোগে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। জানতে চাইলে মনিরামপুর থানার ওসি বিপ্লব কুমার নাথ বলেন, ইতোমধ্যে অপহরণের মামলার সাথে ধর্ষণ, পর্নোগ্রাফি আইনের ধারা সংযোজন করা হয়েছে।
মামলার অগ্রগতির ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, অতি দ্রুত মূল আসামীরা গ্রেফতার হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here