স্বস্তির বৃষ্টি, আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

0
290

নিজেস্ব প্রতিনিধিঃ আবারও বৃষ্টি, স্বস্তির পরশ। স্বস্তিটা বাংলাদেশের। শ্রীলঙ্কার জন্য অস্বস্তির। জয়ের প্রত্যাশায় থাকা দলটির বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে বেরসিক বৃষ্টি!
গতকালের মত আজও শেষ সেশনের খেলা বৃষ্টিতে পণ্ড। গতকাল পুরোটা পণ্ড হলেও আজ খেলা হয়নি ১১.৫ ওভার। এতেই মন খারাপ দলটির ওপেনার উপল থারাঙ্গার। সংবাদ সম্মেলনে বলে বসলেন,‘বৃষ্টি জয়ের বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে।’ বৃষ্টি বাঁধা হয়ে দাঁড়ালেও ৪৫৭ রানের জবাবে দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছে দূর্দান্ত। বিনা উইকেটে ৬৭ রান তুলেছেন সৌম্য সরকার ও তামিম ইকবাল। নেতৃত্বে ছিলেন সৌম্য। দিন শেষে তার নামের পাশে ৪৭ বলে ৫৩ রান। ৬ চার ও ১ ছক্কায় ১১২.৭৬ স্ট্রাইক রেটে রান তুলেছেন হার্ডহিটার। অন্যদিকে তামিম ঠাণ্ডা মেজাজে করেছেন ৪৪ বলে ১৩। বাউন্ডারিও মাত্র ১টি।আলো কমে যাওয়ায় খেলা বন্ধ রাখা হয় কিছুক্ষণ। সে সময়ে বাংলাদেশের জন্য আর্শীবাদ হয়ে আসে স্বস্তির বৃষ্টি। পঞ্চম দিনে লঙ্কানদের লক্ষ্য টাইগারদের ১০ উইকেট। বাংলাদেশের ড্র! ম্যাচ শেষে সাকিব অবশ্য বললেন,‘ড্র’ই বেস্ট পসিবল রেজাল্ট।’ সাকিবের কথায় স্পষ্ট কোনো উইকেট না হারিয়ে দিন শেষ করা বাংলাদেশ ড্রয়ের স্বপ্ন দেখছে। শুক্রবার ১৮২ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসের খেলা শুরু করে শ্রীলঙ্কা। দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেটে ২৭৪ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে স্বাগতিক দল। রঙ্গনা হেরাথের দল লিড পায় ৪৫৬ রানের। ৪৫৭ রানের টার্গেট তাড়া করে জয় পেলে বাংলাদেশকে রেকর্ড গড়তে হবে। ক্রিকেট ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৮ রান করে জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেটাও আজ থেকে ১৭ বছর আগের কথা। তবে রেকর্ডে পথে ছুঁটে যাওয়া হবে বোকামি! অতীত রেকর্ড সে কথাই বলছে। ২০০৮ সালে ঢাকায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৩ রান করেছিল বাংলাদেশ। সেবার ৫২১ রান টার্গেট তাড়া করতে গিয়েছিল বাংলাদেশ। ফলাফল পঞ্চম দিনের শেষ সেশনে ১০৭ রানে ম্যাচটি হেরে বসে বাংলাদেশ! আজও ওই ম্যাচের আফসোস আছে বাংলাদেশ শিবিরে। একটু ধরে খেললে, একটু ঠাণ্ডা মেজাজে ব্যাটিং করলে ম্যাচটি বাঁচাতে পারত বাংলাদেশ। এবার সেই ভুল করবে না এতটুকু নিশ্চিত থাকা যায়! তামিম, সাকিব সৌম্যদের এ টেস্ট খেলতে হবে ম্যাচ ড্র করার জন্যই।চতুর্থ ইনিংসে লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দুবার জিতেছে বাংলাদেশ। সর্বোচ্চ ২১৫ টার্গেটে ব্যাটিং করে ২১৭ রান করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। এছাড়া ঢাকায় ১০১ রান করে জিতেছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। শুক্রবার ১৮২ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসের খেলা শুরু করে শ্রীলঙ্কা। ব্যাট হাতে ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন উপল থারাঙ্গা। ১১৫ রান তুলে মিরাজের আর্ম ডেলিভারিতে বোল্ড আউট হন বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান। এর আগে কুশল মেন্ডিসকে (১৯) সাকিব ও করুণারত্মকে (৩২) আউট করেন তাসকিন। ৭ রানে সাকিবের অলসেমিতে জীবন পান করুণারত্মে। ৫০ রান করা দিনেশ চান্দিমালেরও ক্যাচ ছাড়ে বাংলাদেশ। মিরাজের বল স্লিপে ক্যাচ মিস করেন সৌম্য সরকার। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে দিলরুয়ান পেরেরা (৩৩) মুস্তাফিজের বলে আউট হওয়ার পর ইনিংস ঘোষণা করে শ্রীলঙ্কা।
এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশ স্বাগতিক বোলারদের চাপে রাখার পরিবর্তে আক্রমণাত্মক পথ বেছে নেয়। সৌম্য দুটি ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলেছিলেন। একটি গালিতে, একটি শর্ট কভারে। দুটি বলই ফিল্ডারের কাছে গিয়ে পৌঁছায়। বেঁচে যান সৌম্য। চতুর্থ দিন যেভাবে শেষ করতে চেয়েছিল সেভাবেই পেরেছে বাংলাদেশ। আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিং ও বৃষ্টির সুবাদে হাসিমুখে গল ছেড়েছে বাংলাদেশ। আগামীকাল শেষ বিকেলটাও এরকম হয় নাকি সেটা দেখা অপেক্ষায় বাংলাদেশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here