স্বাগত ১৪২৪

0
326

আজ পহেলা বৈশাখ। কৃষিভিত্তিক বাংলাদেশের মানুষের আনন্দোত্সবের সহিত নিবিড় সংযোগ রহিয়াছে ফসলের। আর নববর্ষের সহিত জড়াইয়া রহিয়াছে ফসল বোনার আনন্দ। এই সময় প্রকৃতিকেও দেখা যায় নূতন সাজে। মুকুলে ভরিয়া ওঠে ফলদ বৃক্ষরাজি। চৈত্রের পাতাঝরার বিরহকাহিনি শেষ হইয়া বনভূমি সুশোভিত হইয়া ওঠে নূতন পত্রপুষেপ। দোয়েল, কোয়েল, কোকিল আর বউ-কথা-কও পাখির কূজনের মধ্য দিয়া নববর্ষ যেন নবধারার আনন্দের বান ডাকিয়া আনে। মানুষের মনে সঞ্চারিত করে নূতন আবেগ। নূতন প্রেরণায় জাগাইয়া তোলে স্তিমিত প্রাণশক্তি। চৈতালির লু-হাওয়া যেন রূপান্তরিত হয় দুরন্ত কালবৈশাখে। দহনবেলাকে জুড়াইয়া দেয় সেই গ্রীষ্মবারিধারা, ঝড়ঝঞ্ঝা। বাংলা নববর্ষ এমনই নবসৃজন আনন্দের, আবেগের।

আসলে বাংলা সনের উত্পত্তি হইয়াছে এই দেশের মানুষের জীবনধারা এবং প্রকৃতির বিচিত্রতার নিরিখে। প্রধানত ফসলের মৌসুম চিহ্নিতকরণ ও খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে মুঘল শাসনামলে বাংলা পঞ্জিকার প্রবর্তন করা হয়। সম্রাট আকবর ১৫৮৪ খ্রিষ্টাব্দের ১০ বা ১১ মার্চ প্রবর্তন করেন বাংলা সন এবং তাহা কার্যকর হয় তাহার সিংহাসন-আরোহণের সময় হইতে (৫ নভেম্বর ১৫৫৬)। হিজরি চান্দ্রসন ও সৌরবর্ষকে ভিত্তি করিয়া বাংলা সন প্রবর্তিত হয়। ফসল বোনা এবং খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে প্রবর্তিত হয় এই নূতন অব্দ। নূতন সনটি প্রথমে ‘ফসলি সন’ নামে পরিচিত হইলেও পরে তাহা ‘বঙ্গাব্দ’ নামে স্বীকৃত হয়। এই হিসাবে বাংলা সনের ঐতিহ্য চার শতাধিক বত্সরের। এত বত্সরে এই অব্দ এখন মিশিয়া গিয়াছে সমগ্র জাতির অস্থিমজ্জায়। চৈত্রে রবিশস্য, বৈশাখে বোরো ধান, জ্যৈষ্ঠে পাকা আম-কাঁঠাল, আষাঢ়-শ্রাবণে ঘনঘোর বরিষা ও নদী জল ছল ছল, শরতে কাশবনে বাতাসের দোলা, অঘ্রাণে নবান্নের উত্সব, পৌষে পিঠাপুলির ধুম, মাঘে কনকনে শীত—এসবই আমাদের লোকায়ত জীবনধারার অতি পরিচিত অনুষঙ্গ। এইসবের শুরু হয় নববর্ষের ভিতর দিয়াই। নববর্ষের চিরাচরিত উত্সবের মধ্যে রহিয়াছে হালখাতা, চাষাবাদ, বীজ বপন, বৈশাখী মেলা, মধু মাসের মেলা ও আঞ্চলিক উত্সব। যদিও বাংলাদেশে নাগরিক জীবন এবং সরকারি কর্মকাণ্ডের সবকিছুই পরিচালিত হয় গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী। তবুও বাঙালির মন ও মননে বাংলা নববর্ষ অনন্য এক স্থান দখল করিয়া আছে। বাংলার কৃষক ও প্রান্তজন এখনো বাংলা মাসের হিসাব ধরিয়াই জীবন ও জীবিকা পরিচালিত করেন। বৈশাখের প্রথম দিবসে চার শত বত্সর ধরিয়া গ্রাম-গ্রামান্তরে, নদীপাড়ে, বটের তলায় বসিয়া আসিতেছে মেলা। এই বৈশাখী মেলা বাঙালির প্রাণের মেলা। ইহার শিকড় ছড়াইয়া রহিয়াছে বাংলার মাটির বিন্দুকণিকায়।

গর্ব করিবার মতো একক সর্বজনীন উত্সব হিসাবে বাংলা নববর্ষ একমেবাদ্বিতীয়ম। পহেলা বৈশাখ পরমতসহিষ্ণুতা, সদ্ভাব, ভ্রাতৃত্ববোধ এবং বিবেক ও মনুষ্যত্বের দীক্ষা দিয়া যায়। বাংলা নববর্ষ আমাদের অন্তরকে বিকশিত করে, নিজের মাটিকে চেনায়, শেকড়ের সন্ধান দেয়। নববর্ষ ১৪২৪ উপলক্ষে সকলকে জানাই প্রীতি ও শুভেচ্ছা। শুভ নববর্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here