স্বামীকে ভুয়া তালাকনামা পাঠিয়ে অন্যত্র বিয়ে করার দায়ে মামলার জালে যুবতি

0
129

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বামীকে ভুয়া তালাকনামা পাঠিয়ে অন্যত্র বিয়ে করার অভিযোগে হালিমা খাতুন (২২) নামে এক নারীর বিরুদ্ধে বুধবার যশোরের আদালতে মামলা হয়েছে। মামলায় ওই নারী ছাড়াও তার পিতামাতাসহ আরও ৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. সাইফুদ্দীন হোসেন অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য কোতয়ালি থানা পুলিশের ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন।অভিযুক্ত হালিমা খাতুন সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার দুরমুজখালী গ্রামের আবু মুছার মেয়ে। অপর আসামিরা হলেন, হালিমা খাতুনের পিতা আবু মুছা (৬৬), মা সায়েরা বেগম (৬০), ভাই আল-আমিন (৩৫), ভাবি নাজিরা বেগম (৩০) ও আজাদ আলী গাজীর ছেলে মিকাইল গাজী (৪০)।মামলার বাদী যশোর শহরের চাঁচড়া রায়পাড়ার মোহাম্মদ হোসেন ধাবকের ছেলে হুমায়ুন কবিরের অভিযোগ, ৮ বছর আগে হালিমা খাতুনের সাথে তার বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবনের তাদের দুটি সন্তান রয়েছে। ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট মামলার অপর আসামিরা অর্থাৎ আবু মুছা, সায়েরা বেগম, আল-আমিন, নাজিরা বেগম ও মিকাইল গাজী যশোরে তার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। এ সময় আবু মুছা ও সায়েরা বেগম তাকে জানান যে, কিছুদিনের জন্য তারা তাদের মেয়ে হালিমা খাতুনকে নিজেদের বাড়িতে বেড়ানোর জন্য নিয়ে যেতে চান। হুমায়ুন কবির এতে সম্মতি দিলে তারা সকলে তাকে (হালিমা খাতুন) সাথে করে নিয়ে যান। সেখানে গিয়ে অন্য আসামিরা হালিমা খাতুনকে মিকাইল গাজীর সাথে বিয়ে করার জন্য প্রলুব্ধ করেন। এরপর একই বছরের ১ সেপ্টেম্বর স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে দেয়া একটি তালাকনামা হুমায়ুন কবিরের কাছে পাঠানো হয়। ওই তালাকনামা পাবার পর হুমায়ুন কবির সাতক্ষীরা পৌরসভার ৭ ও ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ম্যারেজ রেজিস্ট্রার শেখ সাইদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করেন। সেখান থেকে তিনি জানতে পারেন, তার কাছে পাঠানো তালাকনামাটি ভুয়া এবং এ সংক্রান্ত একটি প্রত্যায়নপত্র শেখ সাইদুজ্জামান তাকে প্রদান করেন। এরপর গত ৩ জানুয়ারি বিকেলে সাতক্ষীরা শ্যামনগর উপজেলার দুরমুজখালী গ্রামে আসামিদের বাড়িতে যান হুমায়ুন কবির। তখন তিনি জানতে পারেন, তাকে (হুমায়ন কবির) তালাক প্রদান করিয়ে অন্য আসামিরা হালিমা খাতুনকে আসামি মিকাইল গাজীর সাথে বিয়ে দিয়েছেন। এ সময় তিনি ম্যারেজ রেজিস্ট্রার কর্তৃক দেয়া ভুয়া তালাকনামা সংক্রান্ত প্রত্যায়নপত্র আসামিদের দেখালে তারা তাকে পাত্তা দেননি। এ কারণে হুমায়ুন কবির আদালতের আশ্রয় নিয়েছেন। #