“স্বাস্থ্যখাতে সুশাসন: বর্তমান অবস্থা, সুযোগ, চ্যালেঞ্জসমূহ ও উত্তরণ – স্বাস্থ্য বিষয়ক সাংবাদিকদের ভূমিকা” শীর্ষক গোলটেবিল সংলাপ

0
20

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : স্বাস্থ্যখাতের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ এনজিও’স নেটওয়ার্ক ফর রেডিও এন্ড কমিউনিকেশন (বিএনএনআরসি) এর উদ্যোগে ও দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহায়তায় অনুষ্ঠিত হলো “স্বাস্থ্যখাতে সুশাসন: বর্তমান অবস্থা, সুযোগ, চ্যালেঞ্জসমূহ ও উত্তরণে স্বাস্থ্য বিষয়ক সাংবাদিকদের ভূমিকা” শীর্ষক গোলটেবিল সংলাপ। সংলাপটি

ঢাকার কারওয়ান বাজারে অবস্থিত দ্য ডেইলি স্টার ভবনের আজিমুর রহমান সভাকক্ষে আয়োজিত উক্ত সংলাপে নাগরিক সমাজ সংস্থার প্রতিনিধি, সরকারী কর্মকর্তা, চিকিৎসক, ঢাকার বাইরের ৬টি জেলার সংবাদ প্রতিনিধি, প্রতিষ্ঠিত ও স্বনামধন্য গণমাধ্যমের সাংবাদিক সহ মোট ৪৫ জন উপস্থিত ছিলেন। গণমাধ্যম গুলোতে স্বাস্থ্য-সংক্রান্ত বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রচার ও সুষ্ঠু প্রতিবেদন প্রকাশে একটি ইতিবাচক পরিবেশ নিশ্চিত করার মাধ্যমে স্বাস্থ্য ব্যাবস্থাপনায় সুশাসনকে শক্তিশালী করাই ছিলো উক্ত সংলাপের উদ্দেশ্য।

সংলাপের শুরুতে সঞ্চালক জনাব মনজুরুল আহসান বুলবুল (টিভি টুডে’র প্রধান সম্পাদক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা) সংলাপের বিষয়বস্তু সম্পর্কে ধারণা দিয়ে তাঁর স্বাগত বক্তব্য পেশ করেন ও পরিচয়পর্ব পরিচালনা করেন। সভার মূল উপস্থাপনা পরিবেশন করেন বিএনএনআরসি’র পরামর্শক ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ জনাব রেহান উদ্দিন আহমেদ রাজু। এরপর মুক্ত আলোচনা পরিচালনা করেন জনাব মনজুরুল আহসান বুলবুল। সম্মানিত আলোচকগণ মুক্ত আলোচনায় স¦তঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে স্বাস্থ্য-সেবা বিষয়ে তাঁদের মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ তুলে ধরেন। বহুমাত্রিক অংশীজনদের নিয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত সেমিনার এর অর্জন, ফলাফল ও সার-সংক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করেন রংপুর, নোয়াখালি, সিলেট, যশোর, বরিশাল ও পাবনা জেলার বিএনএনআরসি এর ফোকালবৃন্দ সাংবাদিক প্রতিনিধিবৃন্দ।

দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহায়তায় ও বিএনএনআরসি’র উদ্যোগে বাস্তবায়িত “প্রমোটিং হেলথ গভর্নেন্স থ্রু ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অব জার্নালিস্ট এ্যান্ড ইনভলভিং মাল্টিলেভেল স্টেইকহোল্ডারস” প্রকল্পের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা করেন বিএনএনআরসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব এএইচএম বজলুর রহমান। তিনি বলেন, “আমরা ২৫ জন স্বাস্থ্য সাংবাদিকদের প্রশিক্ষক প্রশিক্ষণ করিয়েছি এবং ৪ টি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণে ৮৫ জন সাংবাদিকদের স্বাস্থ্য প্রতিবেদন তৈরিতে সত্যতা যাচাই ও নিরূপণ কৌশল সম্পর্কে আরো সমৃদ্ধ প্রতিবেদন তৈরির ধারণা প্রদান করা হয়েছে। জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে ৬টি সেমিনার শেষ হয়েছে। তাছাড়াও এই উদ্যোগের আওতায় ঢাকায় এবং ঢাকার বাইরের ৫০ জন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার স্বাস্থ্য সাংবাদিক অথবা স্বাস্থ্য বিষয়ে ইনডেপথ প্রতিবেদন তৈরিতে সক্ষম করার জন্য এই ফেলোশীপ প্রদান করা হয়েছে। ফেলোশীপের আওতায় ২০০ টি প্রতিবেদন তৈরি করা হচ্ছে। এর মধ্যে স্বাস্থ্যসেবার বর্তমান অবস্থা, সুযোগ, চ্যালেঞ্জসমূহ ও উত্তরণের বিষয়টি আলোকপাত করা হয়েছে। আবার সংক্রামক ও অসংক্রামক রোগ নিয়ে প্রতিবেদন করা হয়েছে যেখানে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার বিদ্যমান সুযোগসমূহ কিভাবে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া যায় সে বিষয়গুলো উঠে এসেছে।”

আলোচনায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন ও সংক্ষিপ্ত বক্তব্য উপস্থাপন করেন দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর জনাব কাজী ফয়সাল বিন সিরাজ; প্রেস ইন্সটিটিউট বাংলাদেশ এর মহাপরিচালক জনাব জাফর ওয়াজেদ; নিনমাস এর পরিচালক ডা. কামীম মমতাজ ফেরদৌসি বেগম; প্রথম আলো’র যুগ্ম সম্পাদক জনাব সোহরাব হাসান; ইত্তেফাকের কূটনৈতিক সম্পাদক, জনাব, মাঈনুল আলম দৈনিক ইনকিলাব এর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জনাব মাইনুল হাসান সোহেল; নাগরিক টিভি’র প্রধান প্রতিবেদক জনাব শাহনাজ শারমীন; দৈনিক বাংলা’র প্রধান প্রতিবেদক জনাব মোর্শেদ নোমান; চ্যানেল আই এর বিশেষ প্রতিবেদক জনাব জান্নাতুল বাকেয়া কেকা; নিউজ ২৪ এর প্রধান বার্তা সম্পাদক জনাব শাহনাজ মুন্নী এবং দৈনিক আমাদের সময়- এর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক এবং বাংলাদেশ হেল্থ রিপোর্টার্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট জনাব এম এম রাশেদ রাব্বি সহ আরো অনেকে।
এছাড়াও মাছরাঙা টেলিভিশন, বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাভিশন, এনটিভি, দৈনিক ইত্তেফাক সহ অন্যান্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত দায়িত্বশীল সাংবাদিকগণ তাঁদের মূল্যবান মতামত তুলে ধরেন।
আশা করা হচ্ছে, উক্ত গোলটেবিল সংলাপের আলোচনার ফলে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিষয়গুলোর ওপর গঠনমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ বা সম্প্রচারে সংবাদ সম্পাদক ও সাংবাদিকদের উৎসাহিত করতে সহায়ক হবে এবং কার্যকরী ভূমিকা রাখার মাধ্যমে সবার জন্য গুণগত ও মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য নীতিনির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে। পাশাপাশি, উত্থাপিত বিষয় সমূহস্বাস্থ্যসেবার সমস্যাগুলোর ওপর আরও কার্যকর প্রকল্প বাস্তবায়নের ব্যাপারে অন্যান্য সুশীল সমাজ সংস্থা এবং উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে উৎসাহিত করবে।
উল্লেখ্য, বিএনএনআরসি একটি গণমাধ্যম উন্নয়ন বিষয়ক সংস্থা যা ২০০০ সালে আত্মপ্রকাশ করে এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীন এনজিও বিষয়ক ব্যুরো থেকে নিবন্ধিত হয়। বিএনএনআরসির কর্মপ্রচেষ্টা হলো বাংলাদেশে গণমাধ্যমের দ্রুত পরিবর্তনশীল বাস্তবতার চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগ-সুবিধাসমূহ বিবেচনায় রেখে গণমাধ্যমের জ্ঞানভিত্তিক ও চলমান ইস্যু উভয় বিষয় নিয়ে গণমাধ্যমের উন্নয়ন ।
বিএনএনআরসি নলেজ-ড্রাইভেন মিডিয়া ডেভেলপমেন্ট এর ভূমিকায় আঞ্চলিক, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে কাজ করে থাকে। এটি জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি (ডব্লিউএসআইএস) ও জাতিসংঘের ইকোনোমিক এন্ড সোশ্যাল কাউন্সিল এর বিশেষ পরামর্শক মর্যাদাপ্রাপ্ত সংস্থা এবং জাতিসংঘের ডব্লিউএসআইএস পুরস্কার- ২০১৬, ২০১৭, ২০১৯, ২০২০ এবং ২০২১ এর বিজয়ী এবং চ্যাম্পিয়ন।