স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দূর্নীতি, অনিয়ম : ভেঙ্গে পড়েছে তালা হাসপাতালের সেবা কার্যক্রম

0
65

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা : তালা উপজেলার ৪ লক্ষ মানুষ সহ পাশ^বর্তী পাইকগাছা, ডুমুরিয়া ও আশাশুনি উপজেলার কয়েকটি অঞ্চলের মানুষের চিকিৎসার আশ্রয় স্থল তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। ৫০ শয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালে প্রতিদিন দুর দুরান্ত থেকে রোগীরা চিকিৎসা সেবা নিতে আসেন। এরসাথে চলমান কোভিড-১৯ চিকিৎসা, পরীক্ষা ও ভ্যাকসিন নিতে এখানে আসা মানুষের সংখ্যা অগনিত। কিন্তু এই হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা মানুষের যেন ভোগান্তির শেষ নেই! দক্ষ পরিচালনার অভাব, হাসপাতালের দায়িত্বশীল কর্তার ক্লিনিক ও প্যাথলজি বানিজ্য, হাসপাতালকে মাদকের আখড়ায় পরিনত করা, সিমাহীন দূর্নীতি এবং অনিয়ম সহ নানান কারনে তালা হাসপাতাল এখন মৃত্যুমুখে! যেকারনে এখানে আগত রোগীরা কাংখিত সেবা না পেয়ে আরও নানান ভোগন্তির শিকার হচ্ছে।
চলমান করোনা ভাইরাস প্রাদূর্ভাব মোকাবেলায় সন্মুখ সারীর যোদ্ধা হিসেবে প্রতিনিয়ত লড়াই করে যাচ্ছে ডাক্তাররা। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের সেবা করতে যেয়ে সারা দেশে ইতোমধ্যে অনেক ডাক্তার আক্রান্ত হয়েছেন এবং জীবন উৎসর্গ করেছেন। কিন্তু তালা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাজিব সরদার কোভিড আক্রান্ত না হয়েও কোভিড-১৯ সনদ জাল করে সরকারি অনুদানের অর্থ হাতিয়ে নেবার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া করোনা প্রতিরোধে সরকারি ভাবে দেয়া অর্থ হাসপাতালের কাজে না লাগিয়ে সেই টাকা আত্মসাৎ, সরকারি ও বেসরকারি ভাবে হাসপাতালে দেয়া করোনা প্রতিরোধের বিভিন্ন উপকরন ক্লিনিকে বিক্রি, করোনা পরীক্ষার নামে টাকা হাতিয়ে নেয়াসহ নানান অনিয়মের ফলে হাসপাতালটির চিকিৎসা কার্যক্রম ভেঙ্গে পড়েছে। হাসপাতালের একটি স্বাস্থ্য কমিটি থাকলেও নিয়োমিত সভা না করা এবং সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরদারীর অভাবে এখানকার পরিবেশ এখন নাজুক অবস্থানে।
তালা নাগরীক কমিটির নেতা ও উন্নয়ন কর্মী অচিন্ত্য সাহা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হাসপাতালের সার্বিক অবস্থা দেখভালের দায়িত্ব এখানকার স্বাস্থ কর্মকর্তা ডা. রাজিব সরদারের। কিন্তু তার নিস্কৃয়তার কারনে একইস্থলে সাধারন রোগীদের আউটডোর চিকিৎসা; কোভিড-১৯ এর নমুনা সংগ্রহ এবং ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়। যেকারনে এখানে আসা হাজার হাজার মানুষের সংস্পর্শে করোনা আরও ছড়াতে থাকে। বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে বারবার বলার পরও সুরাহা না হওয়ায় নাগরিক কমিটির পক্ষ থেকে আন্দোলন কর্মসূচী গ্রহন করা হয়। একপর্যায়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগীতায় হাসপাতালের পরিবেশ পরিবর্তন করা হয়।
সূত্র জানায়, একাধিক নীতি বহির্ভূত ভাবে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হিসেবে পদন্নতী প্রাপ্ত হয়ে ডাক্তার রাজিব সরদার একের পর এক অনিয়ম এবং দূর্নীতি করে যাচ্ছেন। তার এই দূর্নীতির সাথে জড়িয়ে থেকে স্বাস্থ্য খাতের একটি মাফিয়া চক্র হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। ফলে হাসপাতালের উন্নয়নের পরিবর্তে দিন দিন হাসপাতালটির সেবা কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে হাসপাতালের অপারেশন, আল্ট্রাসনো, প্যাথলজি সেবা কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এতে তালা উপজেলা সহ আশপাশের উপজেলা থেকে আগত রোগীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিভিন্ন ক্লিনিক ও প্যাথলজীতে চুক্তি থাকায় কৌশলে তিনি হাসপাতালের একাধিক সেবা কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছেন।
স্বাস্থ্য কর্মকর্তার তত্বাবধানে হাসপাতালে তৈরি মাদকের আখড়া, দূর্ণীতি, এবং অনিয়ম বিষয়ে ধারাবহিক প্রতিবেদন আসছে…..