স্ব-গেীরবে ৩৯ বছরে ইবি

0
280

নিজস্ব প্রতিবেদক : বুধবার ৩৯তম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) দিবস। ১৯৭৯ সালের ২২ নভেম্বর কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ শহরের মধ্যবর্তী স্থান শান্তিডাঙ্গা-দুলালপুরে মহাসড়কের পশ্চিম পার্শ্বে প্রতিষ্ঠিত হয় বিশ্ববিদ্যালয়টি।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতিষ্ঠানটি উচ্চশিক্ষা বিস্তারের কাণ্ডারীর ভূমিকা পালন করে আসছে। এটি স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। সময়ের ধারাবাহিকতায় ৩৮ কে পেছনে ফেলে নানা প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির মাঝে ৩৯ বছরে পদার্পণ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের।

দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে ১৯৭৬ সালের ১ ডিসেম্বর তৎকালীন সরকার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন। এরপর ১৯৭৭ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ভিসি এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. এম এ বারীকে সভাপতি করে সাত সদস্য বিশিষ্ট ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় পরিকল্পনা কমিটি গঠন করা হয়। পরিকল্পনা কমিটি ৩টি অনুষদ, ১৮টি বিভাগ, ৩টি ইনিস্টিটিউট ও একটি স্কুল প্রতিষ্ঠার সুপারিশ করেন। আর্ন্তজাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার কথা থাকলেও পরবর্তীতে নানা প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতার কারণে তা আর হয়ে ওঠেনি।

বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫টি অনুষদ, ৩৩টি বিভাগ, একটি ইনিস্টিটিউট এবং একটি ল্যাবরেটারি স্কুল রয়েছে। এর অধীনে রয়েছে প্রায় ১৬ হাজার শিক্ষার্থী, ৩৫৬ জন শিক্ষক, সাড়ে ৩৯৭ জন কর্মকর্তা এবং প্রায় ৬০০ কর্মচারী।

এ পর্যন্ত প্রায় দুই হাজার জনকে এম.ফিল ও পি.এইচ.ডি ডিগ্রি প্রদান করা হয়েছে। ১৭৫ একরের এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ২টি প্রশাসনিক ভবন, চিকিৎসা কেন্দ্র, দেশের ৩য় বৃহত্তম মসজিদ, এছাড়াও রয়েছে একটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অত্যাধুনিক বীরশ্রেষ্ট হামিদুর রহমান মিলনায়তন, সমৃদ্ধ ও আধুনিক লাইব্রেরী, ভিসির বাংলো, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আবাসিক কোয়ার্টার, ছেলেদের জন্য রয়েছে ৪টি, মেয়েদের জন্য ৩টি আবাসিক হল। ছেলেদের জন্য শেখ রাসেল নামে আরো ১টি আবাসিক হল নির্মাণাধীন রয়েছে। এছাড়া এখানে রয়েছে ক্যাম্পাসভিত্তিক বৃহত্তম শহীদ মিনার, মুক্তবাংলা এবং স্মৃতিসৌধ।
বিশ্ববিদ্যালয়ের শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট ১২ জন উপাচার্য দায়িত্ব পালন করছেন। প্রথম ভিসি ড.এ.এন.এ. মমতাজ উদ্দিন চৌধুরী এবং বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী।

দীর্ঘ এই ৩৮ বছরের পথ চলায় নানা চড়াই উৎরাই পার করে কালের অবিচল স্বাক্ষী হয়ে স্বগৌরবে উচ্চ শিক্ষার প্রদীপ্ত মশাল নিয়ে ছুটে চলেছে দেশের প্রতিটি প্রান্তরে। ৩৮ বছরের পথ চলার মাঝে প্রাপ্তি অপ্রাপ্তি নিয়ে নান কথা বলেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা।

গণিত বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী শাহানুর হোসেন জানান, বর্তমান প্রশাসন দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তন এসেছে। সেশনজট কমেছে, কর্মঘণ্টায় পরিবর্তন এসেছে, অবকাঠামোগত উন্নয়নও লক্ষণীয়।

আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী রায়হান মাহবুব জানান, বর্তমানে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন সংকট চরমে, এছাড়া পরিবহন সংকট, লাইব্রেরি প্রয়োজনী বই সংকট ফলে শিক্ষার্থীদের তীব্র ভোগান্তি পোহাতে হয়।

ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী অধরা চৌধুরী বলেন, ডিবেটিং সোসাইটি, ফটোগ্রাফিক সোসাইটি, থিয়েটার, ফিল্ম সোসাইটি, তারুণ্য, লন্ঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো আমাকে অনুপ্রাণিত করে। তাদের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় সব সময় প্রাণবন্ত থাকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন সিনিয়র শিক্ষক জানান, বিশ্ববিদ্যালয়টি যে লক্ষ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বর্তমানে এটি লক্ষ্য বিচ্যুত। ইসলামী শিক্ষাকে গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলা হলেও বর্তমানে সেটি হচ্ছেনা। ইসলামী শিক্ষার সাথে আধুনিক শিক্ষার সমন্বয় করা হচ্ছে না।

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু হুরাইরা মনে করেন, গবেষণা ও উদ্ভাবনীধর্মী কাজ কম হওয়ার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়টি র‌্যাংকিং এ পিছিয়ে পড়েছে। গবেষণা ও উদ্ভাবনী কাজে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়ানো বৃত্তির ব্যবস্থা করা জরুরী।

লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী তানিয়া ইসলামী জানান, বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে তাল মিলিয়ে উচ্চ শিক্ষায় অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়। বিদেশি স্কলার, জার্নাল, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণসহ বিভিন্ন সুযোগ থেকে বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা। আন্তর্জাতিকমানের বিশ্ববিদ্যালয় হতে হলে বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে কলাবরেশন বাড়াতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘দীর্ঘ ৩৮ বছরে বিশ্ববিদ্যালয়টি অর্জন করেছে অনেক গৌরব আর খ্যাতি। আমি মনে করি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। এছাড়া এই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে একটি আর্ন্তজাতিকমানের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে বর্তমান প্রশাসন বদ্ধপরিকর। আমি প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়টির ৩৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সকলকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here