স্মার্ট নাগরিক গড়তেই নতুন শিক্ষাক্রম, ভুল থাকলে সংশোধন করবো: শিক্ষামন্ত্রী

0
147

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর : যশোরে শুরু হয়েছে ৫১তম শীতকালীন জাতীয় স্কুল মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় স্থানীয় শামস-উল-হুদা স্টেডিয়ামে ছয় দিনের এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এসময় তিনি বলেন, ‘স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তেই সকলের প্রচেষ্টায় নতুন শিক্ষাক্রম তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু এটা করা শ্রম ও সময় সাপেক্ষ একটি কাজ। এরমধ্যে করোনা মহামারি, বৈশ্বিক সংকটও গেছে। তাই কাজ করতে গিয়ে কোথাও কোথাও কিছু ভুল থাকতে পারে, যদিও থাকা উচিৎ নয়, তারপরও কোথাও কোথাও কিছু ভুল থেকে গেছে, আরও ভুল পাওয়া যেতে পারে। আমরা ভুল স্বীকার করে সাথে সাথেই তা সংশোধন করবো। কিন্তু মিথ্যা, অপপ্রচার, গুজবে কান দেবেন না’।

মন্ত্রী বলেন, ‘যারা অপপ্রচার চালিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায়, আমরা সকলে মিলে সেই অপশক্তিকে প্রতিহত করবো’।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের সিনিয়র সচিব কামাল হোসেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. ওমর ফারুক, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হাবিবুর রহমান, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডে ঢাকার চেয়ারম্যান প্রফেসর তপন কুমার সরকার, যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান ও পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আহসান হাবিব।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আরও বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার। তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ সে পথেই এগিয়ে চলেছে। তিনি বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে উন্নত, সমৃদ্ধ ও টেকসই বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য রয়েছে। এ লক্ষ্য অর্জনে যেসব চ্যালেঞ্জ আছে তা মোকাবেলায় আমাদের শিক্ষার্থীদের যুগোপযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে হবে। সেটা মাথায় রেখেই শিক্ষাব্যবস্থাকে রূপান্তর করা হয়েছে। নতুন করিকুলামে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান বৃদ্ধি, চিন্তা করার দক্ষতা ও সমসাময়িক বিষয়ের সমাধানে দক্ষতা অর্জন করতে পারবে।

উদ্বোধনী বক্তৃতা পর্ব শেষে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অলিম্পিক মশাল প্রজ্জ্বলন, প্যারেড এবং মনোজ্ঞ মাঠ ও ক্রীড়া ডিসপ্লে প্রদর্শন করা হয়। যশোর বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আহসান হাবীব জানান, সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে চারটি অঞ্চলে ভাগ করে পদ্ম, গোলাপ, বকুল ও চাঁপা নামকরণ করা হয়েছে। ছয় দিনের এ প্রতিযোগিতা চলবে মঙ্গলবার পর্যন্ত। ৮টি ইভেন্টে ৮২৪ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এরমধ্যে ৪৪০ জন ছাত্র এবং ৩৮৪ জন ছাত্রী।