সড়ক দূর্ঘটনায় ৭ মাসে নিহত ১৪, আহত দুইশ’

0
275

যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়ক এখন মরণ ফাঁদ মহাসড়কে ৩ দিনের ব্যবধানে আবারো প্রাণ গেল এক বৃদ্ধের

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর): ‍যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের দুই পাশের বেহাল দশায় আবারো প্রাণ গেল মণিরামপুরে আবু বক্কর নামের এক বৃদ্ধের। বালুবাহী ট্রাক সাইড দিতে গিয়ে উচুঁ মহাসড়ক থেকে পিছলে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। গতকাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে এ দূর্ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গত ৭ মাসের ব্যবধানে প্রাণ হারিয়েছেন কলেজ-স্কুল ছাত্রী ও পুলিশ অফিসারসহ ১৪ জন এবং আহত হয়েছে প্রায় দুই’শ জনেরও বেশী। সামান্য বৃষ্টিতে পিচ্ছিল পিচ আর মহাসড়কের দুই পাশ নিচু হওয়ায় এ মহাসড়কটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এর ফলে ওই মহাসড়কে একের পর এক দূর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।
জানাযায়, বছর খানেক আগে যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কটির রাজারহাট থেকে চুকনগর পর্যস্ত মেসার্স জামিল এন্টারপ্রাইজ ও মাহবুব ব্রাদার্স নামের দুইটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান প্রায় ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার করে। ফলে মহাসড়কটি দুই ইঞ্চি উঁচু হয়। এমনিতে আগেই মহাসড়কের দুই পাশ নিচু ছিল। সংস্কারের পর মূল মহাসড়কটি আরো উঁচু হওয়ায় মহাসড়কের দুই পাশ কোথাও কোথাও ১ ফুট থেকে দেড় ফুট নিচু হয়ে গেছে। সংস্কারের পর প্রায় বছর পার হলেও এখন পর্যন্ত মহাসড়কের দুই পাশ সমান করতে কোন উদ্যোগ নেননি সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এছাড়া একটু বৃষ্টি হলেই মহাসড়কটি পিচ্ছিল হয়ে যান চলাচল ঝুঁকিপূর্ন হয়ে উঠে।
খোঁজ-খবর নিয়ে জানাযায়, এর আগে গত ৯ জুন শুক্রবার এ মহাসড়কের মোলাম মিয়ার বটতলা নামক স্থানে যাত্রীবাহী বাস চাপায় যশোর এমএম কলেজের ইংরেজী সম্মান শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী তানজিম সুলতানা কুমু, ২৬ জুন ঈদের দিন এ মহাসড়কের আটমাইল নাম স্থানে পৌর এলাকার বিজয়পুর গ্রামের আব্দুল বারির ৭ম শ্রেণিতে পড়–য়া কন্যা বৃষ্টি, ৫ মে চালকিডাঙ্গা নামক স্থানে তাপস কুন্ডু ও কায়েদী আজম, ১০ ফ্রেব্রুয়ারি একই মহাসড়কের কানাইতলা নামক স্থানে কলেজ ছাত্র পাবন ও দেবপ্রসাদ বিশ্বাস, ৭ জুন মধুপুর গ্রামের হাদিউজ্জামানের ছেলে কলেজ ছাত্র মোমিনুর রহমান, ৭ এপ্রিল লাউড়ী গ্রামের আজগরের ছেলে আনছার আলী, একই তারিখে আটমাইল নামক স্থানে ট্রাক চাপায় দেউলিয়া গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে টিপু সুলতান, ২৩ এপ্রিল সরসকাটি গ্রামের শাহ আলমের ছেলে আশরাফুল ইসলাম এবং একই মহাসড়কে সর্বশেষ গতকাল সোমবার ৩১ জুলাই বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের মৃত নাজির হোসেন খানের ছেলে আবু বক্কর প্রাণ হারান।

এছাড়া উপজেলার মোলাম মিয়ার বটতলা নামক স্থানে ৫ ফেব্রুয়ারি লাউড়ী গ্রামের ইতি খাতুন, পৌর কাউন্সিলর বসু মোল্যা, হালিমা খাতুন, ৬ ফেব্রুয়ারি অরুণা মন্ডল, ১১ ফেব্রুয়ারি যশোর সদরের সোহাগ হোসেন, শাহাদাৎ হোসেন ও সোহেল, ৮ ফেব্রুয়ারি যশোর সদরের হাসিবুল হাসান, ৫ মে তাজজিক, ২১ মে আফরোজা, ৩১ মে আব্দুর রহিম এবং একই স্থানে ১১ জুন উপজেলার মোলাম মিয়ার বটতলা নামক স্থানে দূর্ঘটনায় মাহির মুস্তাকিন (১১), সাফায়েত আমীন (৯), শফিকুল ইসলাম (৪০), করিমুন্নেছা (৫০), মনোরঞ্জন ধর (৩৫), বৈকালি মন্ডল (৩৫), বিউটি বিশ্বাস (৫০), সমেন বিশ্বাস (৪৮), বলরাম মন্ডল (৩০) ও শিউলি খাতুন (৩০) গুরুত্বর আহত হন। এছাড়া ৩ মার্চ পৌর এলাকার গাংড়া মোড়ে চৈতন্য দাস, ৮ মার্চ উপজেলার সামনে আব্দুল হামিদ, নুরুল আমিন, ১২ মার্চ শ্যামকুড়ের সবুজ সরকার, বাজিতপুরের দেবু বিশ্বাস, মুছা আলী, ১৫ মার্চ পাটগবেষণা কেন্দ্রের সামনে হেমায়েত ও তার কন্য ফারিয়া খাতুনসহ প্রায় দুই’শ জনেরও বেশী আহত হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই পঙ্গু হয়ে গেছেন।
মণিরামপুর কলেজের প্রভাষক ফিরোজ আহম্মেদ বলেন, সড়কের দুই পাশ নিচু এবং সামান্য বৃষ্টিতে কর্দমাক্ত হয়ে পড়ে-যে কারনে সাইড দিতে গেলেই কাঁদায় ¯িপ করে প্রায় দূর্ঘটনা ঘটে প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। এছাড়া মড়াসড়ক লাগোয়া ইটভাটাও দায়ী বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বাঁধাঘাট মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেলিনা আক্তার বানু বলেন, প্রতিষ্ঠান লাগোয়া মহাসড়কটি অনেক উঁচু হওয়ায় সেখানে প্রায় দূর্ঘটনা ঘটছে। এর ফলে স্কুলের কোমলমতি ছেলে-মেয়েদের নিয়ে আতংকে থাকতে হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) লিংকন বিশ্বাস মহাসড়কে দূর্ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, দূর্ঘটনারোধে কার্যকরী ব্যবস্থা নিতে সদ্য বিদায়ী ইউএনও মোহাম্মদ অতুল মন্ডল সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছেন।
জানতে চাইলে জেলা সওজ (সড়ক ও জনপদ) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম মহাসড়কটি সংস্কারের সময় বর্তমান কর্মস্থলে ছিলেন না জানিয়ে বলেন, বাজেট না পাওয়ায় মহাসড়কের দুই পাশে মাটি দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here