হটাৎ খবরের শিরোনাম যশোরের মানিক সাহা!

0
143

নিজস্ব প্রতিদেবক : দুদিন আগেও যে অন্যের দোকানে দিনমজুরের কাজ করতো পরের বাড়ি ভাড়া থেকে কোন রকম আয় করে সংসার চালাতো তিনিই এখন রাতারাতী কোটিপতি বনে গেছেন, তার নাম মানিক চন্দ্র সাহা, পিতা বংশি পদ সাহা, ইতিপুর্বে যিনি যশোরের কাপুড়িয়া পট্রিতে অবস্থিত বানী জুয়েলার্সে কারিগর হিসাবে কর্ম্মচারীর কাজ করতো-তার মা বাড়ীতে বসে ঠোঙ্গা বানিয়ে বাজারের বিভিন্ন দোকানে দোকানে বিক্রী করতো -সেই মানিক সাহা এখন কোটি কোটি টাকার মালিক যশোর শহরের বড় বাজার কাপুড়িয়াপট্টিতে সাহা জুয়েলার্স নামে একটি নামমাত্র স্বর্নের রযেছে তাছাড়া সম্প্রতি তিনি কাপুড়িয়াপট্টিতে প্রায় পাঁচকোটি টাকা মুল্যের একটি মার্কেট কিনেছেন, যার মালিক ছিলেন যশোর শহরের ঘোপ নিবাসী এম ওয়াদুদ ও তার স্ত্রী সাবিহা ওযাদুদ পুত্র আদনান বিন ওয়াদুদ ও রিফাত বিন ওয়াদুদ (গং) এর কাচ থেকে উক্ত সম্পওিটি ক্রয় করেন। এবং ব্যাংকেও রয়েছে কোটি কোটি টাকা, নামে-বেনামে রয়েছে আরো অনেক অর্থ সম্পদ, হঠাৎ করে তার এ পরিবর্তনে তার আশে পাশের লোকজন হতবাক হয়ে পড়েছেন, দিন কয়েক আগেও যশোর শহরের বানী জুয়েলার্সে কারিগর হিসাবে কাজ করা মানিক সাহার হঠাৎ এ পরিবর্তনে সচেতন মহলে জেগেছে নানা প্রশ্ন?। অভাবের তাড়নায় গোপালগঞ্জ হতে আসা এই ভাগ্যবান যশোরে বিভিন্ন ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসলেও তিনি এখন কোটি কোটি টাকার মালিক, তার এ আয়ের বৈধ কোন উৎস পাওয়া যায়নি তবে জনশ্রুতি রয়েছে ও বিভিন্ন জনেরা বলছে ভিন্ন কথা, তার এ কোটি কোটি টাকা আয়ের পিছনে রয়েছে এক অন্ধকার জগত, যা কিনা স্বর্ন চোরালান-ও ডলারের ব্যাবসা নামে পরিচিত, সুত্রমতে উক্ত মানিক সাহা, আন্তর্জাতিক স্বর্ন ও ডলার পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য, গত বছর ২০১৭-১৮ সালে পাচারকারী অপর এক সদস্য ঢাকা আরিচা মহাসড়কে বেশকিছু ডলারসহ ধরা পড়েন, উক্ত ডলার পাচারকারী তখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিকট যশোরের মানিক সাহার নাম উল্লেখ করেন, সে সময় মানিকগঞ্চ থেকে পুলিশের একটি বিশেষ টিম যশোরে এসে তাকে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ রয়েছে।
উক্ত মামলায় সে প্রায় ৬/৭ মাস জেল খেটে জামিনে মুক্তি পায় এবং জেলখানা থেকে বেড়িয়ে এসে হঠাৎ করেই যশোর শহরের কাপুড়িয়াপট্টির সরদার মার্কেটে স্বর্নের দোকান ও কাপুড়িয়াপট্টিতে উক্ত মার্কেট টি কিনে ফেলে,উক্ত সাহা জুয়েলার্সের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পর্কে মুঠো ফোনে মানিক সাহার কাছে জানতে চাইলে তিনি মামলাটি চলমান রয়েছে। আরো অভিযোগ উক্ত দোকানে অচেনা বিভিন্ন ধরনের লোকজনের যাতায়াত রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে সচেতন মহল উক্ত মানিক সাহার আসল স্বরুপ উন্মোচন সহ তার অবৈধ আয়ের উৎস্য অনুসন্ধানে দুর্নীতি দমন সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।