হত্যার দায় স্বীকার করে কুলাঙ্গার ছেলের আদালতে জবানবন্দি,রক্ত মাখা দা উদ্ধার

0
270

যশোরের পল্লীতে দিন মজুর আব্দুস সাত্তার হত্যাকান্ড

এম আর রকি যশোর: সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর মোল্যা পাড়ায় দিন মজুর আব্দুস সাত্তার (৬০) হত্যাকান্ডর দায় স্বীকার করে ছেলে তরিকুল ইসলাম মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবাবন্দি প্রদান করেছেন। সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমালী আদালত ক অঞ্চল কোতয়ালির হুমায়ূন কবিরের আদালতে জবানবন্দি প্রদান করেছেন বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই সোহরাব হোসেন নিশ্চিত করেছেন। তিনি আরো জানান হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা ধারালো দা তরিকুল ইসলামের ঘরের মধ্যে একটি ব্যাগের মধ্যে উদ্ধার করা হয়েছে। ।

গত ২৩ জুলাই রোববার তরিকুল ইসলামকে নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই সোহরাব হোসেন হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অভিযোগে নিহত বৃদ্ধের ছেলে তরিকুল ইসলাম ও তার বন্ধু একই গ্রামের আব্দুল মজিদ বিশ্বাসের ছেলে ইব্রাহিম এবং সন্ত্রাসী,ছিনতাইকারী,অপরাধী একই গ্রামের হারুন অর রশিদের ছেলে জুয়েল রানাকে গ্রেফতার করে। সূত্রগুলো আরো জানান, গত ২১ জুলাই ভোররাত সাড়ে ৩ টা হতে সাড়ে ৪ টার মধ্যে ধারালোর অস্ত্রের আঘাতে দিন মজুর আব্দুস সাত্তার খুন হন। খুনের ঘটনায় নিহতর স্ত্রী রাবেয় ২৩ জুলাই রোববার যশোর আমলী আদালত কোতয়ালি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক হুমায়ূন কবীরের আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক জবানবন্দি প্রদান করেন।

তিনি জবানবন্দিতে তার ছেলে তরিকুল ইসলামসহ দু’জন এই হত্যাকান্ডে জড়িত বলে স্বীকার করেছেন। গতকাল ২৫ জুলাই মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত তরিকুল ইসলামকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত ক অঞ্চল কোতয়ালীর বিজ্ঞ বিচারক হুমায়ূন কবীরের আদালতে হাজির করা হলে তিনি জন্মদাতা পিতা আব্দুস সাত্তারকে হত্যাকান্ডের দায়ভার স্বীকার করেছেন।

তিনি বলেছেন,তার বোন আসমা ওমানে থাকে। সেখান থেকে তরিকুল ইসলামের নামে ১লাখ ৩০ হাজার টাকা পাঠায়। উক্ত টাকা তরিকুল ইসলাম খরচ করে ফেলে। মেয়ে আসমা পিতা আব্দুস সাত্তারকে তরিকুল ইসলামের কাছ থেকে টাকা আদায়ের কথা বলে। এ নিয়ে প্রায় সময় আব্দুস সাত্তার ছেলে তরিকুল ইসলামকে বকাঝোকা ও ঝগড়া বিবাধ করে। ঘটনার দিন ২০ জুলাই সকালে তরিকুল ইসলাম তার অটো ভ্যান নিয়ে বাড়ি হতে বের হওয়ার সময় পিতা আব্দুস সাত্তার পিছন থেকে ভ্যান টেনে ধরে। মেয়ের টাকা দেওয়ার ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তরিকুল ইসলাম দু’দিনের মধ্যে দেওয়ার কথা বলেন। ওই দিন দিবাগত গভীর রাতে ধারালো দা দিয়ে পিতাকে হত্যা করে পরে। পরে উক্ত দা নিজের ঘরের মধ্যে একটি ব্যাগের মধ্যে রেখে দেয়। স্থানীয় সূত্রগুলো জানান, তরিকুল ইসলাম তার পিতাকে জামিনদার করে বিভিন্ন এনজিও থেকে কয়েক লাখ টাকা উত্তোলন করেন। এনজিও’র কর্মকর্তা ও কর্মীরা টাকার জন্য আব্দুস সাত্তারের বাড়িতে আসলে পিতার সাথে ছেলে তরিকুল ইসলামের প্রায় সময় বিরোধ শুরু হয়। এ ঘটনায় তরিকুল ইসলাম মনে করেন,পিতাকে সরিয়ে দিলে এনজিও টাকার চাপ থেকে সে বেঁচে যাবে। এই পরিকল্পনায় তরিকুল ইসলাম তার বন্ধু ইব্রাহিমের সাথে আলোচনা করে লোমহর্ষক পিতা হত্যাকান্ডের মতো ঘটনা ঘটায় । উল্লেখ্য হত্যাকান্ডের ব্যাপারে নিহতর আব্দুস সাত্তারের বড় ভাই আব্দুল গফুর বাদী হয়ে অজ্ঞানামা ২জন আসামী উল্লেখ করে কোতয়ালি মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here