হাওর অঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্তদের সুদ মওকুফ, বিনামূল্যে সার-বীজ

0
217

নিজস্ব প্রতিবেদক : কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, ‘কৃষি মন্ত্রণালয়ের কাছে যেটা চাইলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তো এর চাইতে বেশি দিয়ে সেখানে দিয়ে এসেছেন। উনি কৃষি ঋণ আদায় আপাতত স্থগিত রাখতে বলেছেন, সুদ মওকুফ করেছেন, সার এবং বীজ দেয়া হবে বিনামূল্যে, তাও বলেছেন। একইসঙ্গে সেখানে পরবর্তী ফসল না উঠা পর্যন্ত খাদ্য সহায়তা অব্যাহত থাকবে- তিনি ঘোষণা করে এসেছেন। মায়ের মমতা দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর যে সমস্ত রেয়াত দেয়া সম্ভব এবং যা যা সম্ভব তিনি ঘোষণা করেছেন। ’

জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে মঙ্গলবার সাধন চন্দ্র মজুমদারের (নওগাঁ-১)এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, হাওরে প্লাবিত হওয়ার ঘটনায় ‘ভয় পাওয়ার কিছু নাই’। কৃষি মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে। সারের অভাব হবে না। বীজের অভাব হবে না। উন্নতমানের বীজ আমরা সেখানে সরবারাহ করব। ফসল ফলাতে যে মূলধন লাগে সে ব্যাপারেও সরকার উদার থাকবে। তিনি আরো বলেন, ‘যতক্ষণ বঙ্গবন্ধুর কন্যা আছেন, তখন আল্লাহর রহমতে আমাদের দেশে কোনো অসুবিধা হবে না। ’

এর আগে বেগম লুৎফা তাহেরের (মহিলা আসন-৪০) এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত হাওর এলাকার মানুষের ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ওই এলাকায় ব্রিধান-৪৮ জাতের (আউশ) বীজ বিনামুল্যে বিতরণসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলায় ব্রিধান-৪৮ জাতের (আউশ) ১২৫০ কেজি বীজ বিনামূল্যে বিতরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। নিবিড় শস্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে আউশ/আমন ফসলের কাঙ্ক্ষিত উৎপাদন নিশ্চিত করা হবে। আমন মৌসুমে হঠাৎ পানিতে ডুবতে পারে এমন জমিতে ব্রিধান-৫২, বিনাধান-১১ জাতকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চাষাবাদের আওতায় আনা হবে। ভাসমান বেড়ে বীজতলা প্রস্তুত করা হবে। ক্ষুদ্র, প্রান্তিকসহ সকল কৃষকদের আমন জমি রোপনের আওতায় আনা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here