হিমালয়ের কোলে দুর্গম রূপকুণ্ড হ্রদের পাশে কাদের কঙ্কাল পড়ে আছে ১৪০০ বছর ধরে ?

0
351

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক : গাড়োয়াল হিমালয়ের কোলে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৫০২৯ মিটার উঁচুতে মনোরম হ্রদ | চারদিকে হিমবাহ এবং তুষারাবৃত পাহাড়ে ঘেরা এই হ্রদের ‘রূপকুণ্ড‘নাম সার্থক | হিমবাহ গলা জলে পুষ্ট‚ উত্তরাখণ্ডের এই হ্রদের তীরে পাওয়া গিয়েছিল একগাদা নরকঙ্কাল |

সেটা ১৯৪২ সালের কথা | এক ব্রিটিশ বনরক্ষীর চোখে প্রথম পড়েছিল ওই কঙ্কালের স্তূপ | তারপর থেকে শুরু হয় জল্পনা | কাদের কঙ্কাল এগুলো ?ভেসে আসে বহু থিওরি | কেউ কেউ বলেন‚ এই কঙ্কাল জাপানি সৈন্যদের | দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে এই এলাকা অতিক্রম করার সময়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগে মারা পড়ে |

আবার কোনও সূত্র দাবি করে‚ এই কঙ্কাল মহম্মদ বিন তুঘলকের সৈন্যদলের | গাড়োয়াল হিমালয় জয় করার ব্যর্থ অভিযান চালিয়েছিলেন তিনি | প্রবল শীতে মারা পড়েছিল তাঁর সেনারা | কোনও ঐতিহাসিক বলেন‚ এই দেহাবশেষ আসলে কনৌজের রাজা জয়শলধাওয়ান এবং তাঁর লোকলস্করের |

তবে সবথেকে জোরালো হয় আর একটি দাবি | তা হল‚ অনেকেই বলতে থাকেন‚ এই কঙ্কাল হল জেনারেল জোরাওয়ার সিং-এর | ১৮৪১ সালে‚ কাশ্মীরের জেনারেল সিং সসৈন্য ফিরছিলেন তিব্বতের যুদ্ধ থেকে | মাঝপথে হিমালয়ের ভিতরে কোনও একজায়গায় উধাও হয়ে যান তাঁর | কোনও সন্ধানই মেলেনি | মনে করা হয়‚ এই কঙ্কাল তাঁদের |

সব তত্ত্ব খারিজ হয়ে যায় দু বছর আগে | কার্বন টেস্টিং-এর পরে বিজ্ঞানীরা জানিয়ে দেন এই কঙ্কাল বেশ পুরনো | অন্তত নবম খ্রিস্টাব্দের | অনুমান করা হয়‚ স্থানীয় কোনও উপজাতি গোষ্ঠীর মানুষজন ছিলেন এঁরা | রূপকুণ্ড হ্রদ পার হওয়ার সময় তীব্র তুষারঝড়ের মুখে পড়েন |

কঙ্কালগুলো পরীক্ষা করে দেখা গেছে মাথার পিছনে আঘাতের চিহ্ন আছে | বড় ক্রিকেট বল এসে পড়লে যেমন হয়‚ সেরকম ক্ষত | কোনও অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন নেই | তাই‚ বিজ্ঞানীদের অনুমান তুষারঝড়ে তুষারখণ্ডের আঘাতে নিহত হন এই দুশো জন মানুষ | এখনও গ্রীষ্মকালে বরফ গললে রূপকুণ্ডের তীরে দেখা যায় নরকঙ্কালের অংশ |

পাহাড়ের কোলে দু মিটার গভীর এই হ্রদের টান ট্রেকারদের কাছে অসীম | প্রতি বছর ভিড় করেন দলে দলে ট্রেকার | আর আসেন পুণ্যার্থীরা | প্রতি ১২ বছর অন্তর এখানে অনুষ্ঠিত হয় নন্দা দেবী রাজ জাঠ | যখন হিমালয়ের এই দুর্গম অংশে পূজিত হন নন্দা দেবী |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here