১০ জেলার ক্ষুদে ক্রিকেটারদের মিলনমেলায় পরিনত ছিলো যশোর স্টেডিয়াম

0
60

২৪০০ জনের মধ্যে থেকে চুড়ান্ত হলো ২৬৪ জন
ডি এইচ দিলসান : দু হাজার ৪শ জন ক্ষুদে ক্রিকেটার একসাথে জড়ো হয়েছিলো যশোর শামস-উল-হুদা স্টেডিয়ামে। প্রত্যেকে গাড়ো আকাশি রংঙ্গের জার্সি পরা ছিলো। আকাশি কালারের জার্সি পরে ওরা এসেছিলো আকাশ ছোয়ার স্বপ্ন নিয়ে। সবার চোখে মুখে এক এক জন তামিম, সাকিব, মাসরাফি হওয়ার স্বপ্ন। আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে অংশ নিতে এসেছে ক্রিকেট ট্যালেন্ট হান্ট কার্যক্রমের খুলনা বিভাগের ১০ জেলার প্রতিযোগিরা।
‘মাদক নয়, স্বপ্নের ভবিষ্যৎ গড়ব ক্রিকেটে’ এই স্লোগানকে সামনে নিয়ে প্রতিভাবান খুদে ক্রিকেটারদের সন্ধানে বাংলাদেশ (পিকেসিএসবিডি) ক্রিকেট ট্যালেন্ট হান্ট কার্যক্রম সারা দেশব্যাপী চলমান। সেই কর্মসূচির অংশ হিসেবে যশোরে শনিবার সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত হয়েছে খুদে ক্রিকেটারদের বাছাই কার্যক্রম। বাছাই শেষে ২৪০০ জন প্রতিযোগির মধ্যে ধেকে ২৬৪ জনকে মূল পর্বের জন্য রাখা হয়।
প্রতিটি জেলা থেকে খুদে ক্রিকেটার বাছাই করে তাদের পরিণত ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কার্যক্রমটি পরিচালিত হচ্ছে। এতে সহায়তা করছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।
বর্তমানে কার্যক্রমটির-১ম পর্ব ‘২০২১ চলমান। ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম, সিলেট এবং রংপুর বিভাগে বাছাই কার্যক্রম শেষ হয়েছে। এখন চলছে খুলনা বিভাগে। বিভাগের যশোর, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা ঝিনাইদহ, মাগুরা এবং গতকাল বুধবার খুলনা জেলায় বাছাই কার্যক্রম শেষে। শনিবার ৩০ অক্টোবর যশোওে বিভাগীয় পর্যায়ে বাছাই পর্ব শেষে ২৬৪ জনকে চুড়ান্ত করা হয়েছে।

ট্যালেন্ট স্পোর্টস লিমিটেড’ ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহেল মাহমুদ সৈকত জানান, প্রাথমিকভাবে প্রতিটি জেলা থেকে ২৬৪ জন করে বাছাই করা হচ্ছে। এদের মধ্যে থেকে বিভাগীয় পর্যায়ে ২৬৪ জনকে বাছাই করা হচ্ছে। পরবর্তীতে জাতীয় ভাবে ২৬৪ জনকে বাছাই করে ৫ বছর মেয়াদি প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। তিনি বলেন, আগামী দিনে ক্রিকেটার সৃষ্টির লক্ষ্যেই তাদের এই কার্যক্রম। এই কার্যক্রমের মধ্যে দিয়েই ভবিষ্যতে দেশ সেরা ক্রিকেটার তৈরি হবে বলে তিনি আশা করেন।
শনিবার বেলা ১১টায় খুলনা বিভাগের খুদে ক্রিকেটারদের বাছাই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রফিকুল ইসলাম ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির।