১১ বছর ধরে পড়ে আছে সাড়ে ৭ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মি ত”বেনাপোল আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবন

0
312

আরিফুজ্জামান আরিফ ও আশানুর রহমান আশা : সাড়ে ৭ কোটি টাকা ব্যায়ে বেনাপোল চেকপোষ্টে নির্মিত আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবনটি প্রায় ১১ বছর যাবৎ অলস পড়ে থাকায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

বেনাপোল চেকপোষ্টে পাসপোর্টযাত্রীদের সুযোগ সুবিধার জন্য তিনতলা এ ভবনটি অত্যাধুনিক ভাবে নির্মিত হলে ও ভবন নির্মানের ৩ থেকে ৪ বছরের মধ্যে দেখা দিয়েছে ফাটল এর সৃষ্টি।
অনেকের অভিযোগ ভবনটি নির্মানের সময় ভালো মানের নির্মান সামগ্রী প্রয়োগ করা হয়নি। তৎকালিন প্রকৌশলীরা ও ভবন নির্মানের সাথে জড়িত ব্যাক্তিবর্গ এর একটি বড় অংশ পকেটস্থ করেছে বলে ও অনেকে মন্তব্য করেছেন।
২০০৬ সালে নির্মিত ভবনটি তৈরী হয়েছিল পাসপোর্ট যাত্রীদের জন্য।কিন্তু ১১ বছর পেরিয়ে গেলে ও তা পাসপোর্ট যাত্রীদের জন্য উন্মুক্ত করা হচ্ছে না।ভারত সরকার ভিসা সহজ করায় বাংলাদেশ থেকে পাসপোর্ট যাত্রী সংখ্যা বেড়ে গেছে।আর রোদ বৃষ্টি উপেক্ষা করে তাদের গমন করতে হচ্ছে ভারতে। ঘন্টার পর ঘন্টা বেনাপোল নোম্যান্সল্যান্ড এলাকায় দাড়িয়ে থেকে ক্লান্ত হচ্ছে যাত্রীরা।অনেক বৃদ্ধা ও চিকিৎসার জন্য যাওয়া যাত্রীরা পড়ছে নানা ধরনে বিড়ম্বনায়।
চেকপোষ্টের একটি সুত্র অভিযোগ করে বলেছে, যেহেতু কাষ্টমস ইমিগ্রেশন এর কাজ শেষ করে ভারত যেতে হয়। আর দাড়িয়ে অনেকে অসুস্থ হয়ে যেতে হয়। এর চেয়ে পাসপোর্ট যাত্রীদের এ ইমিগ্রেশন কাষ্টমসের কাজ শেষে টার্মিনালে বসার ব্যবস্থা করে ধীরে ধীরে পাঠালে তাদের এত কষ্ট করতে হতো না। বর্তমানে পাসপোর্ট যাত্রীর সংখ্যা আসংখ্যা জনক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় ১ জন যাত্রীকে ৩ ঘন্টা পর্যন্ত নোম্যান্সল্যান্ডে অপেক্ষা করতে হয়।

বেনাপোল আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবনের ৩ তলা ভবনটি ব্যবহার করছে স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ। বন্দর কর্তৃপক্ষ তাদের প্রশাসনিক ভবন হিসাবে ব্যবহার করে যাচ্ছে। ফলে পাসপোর্টযাত্রীদের জন্য কোন সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।তাছাড়া ভবনটির দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলার অধিকাংশ স্হানে নিম্ন মানের সামগ্রী দিয়ে তৈরী করার জন্য ফাটল দেখা দিয়েছে।

বিষয়টির দিকে জরুরী ভিত্তিতে নজর দেওয়ার জন্য সচেতনমহল দাবী জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here