১৭২ বেডের একটি হাসপাতাল,ডাক্তার আছেন মাত্র ২ জন

0
238

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ১৭২ বেডের একটি হাসপাতাল আছে, কিন্তু ডাক্তার আছেন মাত্র ২ জন। আর এই দুই ডাক্তার প্রতিদিন ৩৫০ হইতে ৪০০ রোগীকে নামমাত্র ব্যবস্থাপত্র দেন, যত্সামান্য চিকিত্সাও করেন, কারণ প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিও নাই। প্রতিদিন হাসপাতালে ভর্তি করিতে হয় ১৪০ হইতে ১৫০ জনকে। একটু জটিল পরিস্থিতি হইলেই কারাগারের রোগীকে বাহিরের হাসপাতালে নিয়া যাইতে হয়। হূদরোগ বা অনুরূপ জটিল পরিস্থিতিতে দেখা যায়, কারাগারের আনুষ্ঠানিকতা সারিয়া বাহিরের হাসপাতালে পৌঁছাইবার পূর্বেই রোগী ইহলোক ছাড়িয়া পরলোকে যাত্রা করেন। গত দেড়মাসে একমাত্র ঢাকা কারাগার হইতে বাহিরের হাসপাতালে প্রেরণের পথেই এইরকম সাত জন মারা গিয়াছেন। সুতরাং সমগ্র দেশের কারাগারগুলিতে অসুস্থ অসংখ্য কয়েদির অবস্থা অনুমান করা কঠিন নহে। যাহাদের অর্থ ও সামর্থ্য আছে এমন অনেক কয়েদি তদবির করিয়া কারাগারের বদলে হাসপাতালে আসিতে পারেন, কিন্তু বেশিরভাগ কয়েদির পক্ষেই তাহা অচিন্তনীয়ই বলা যায়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, দেশের ৬৮টি কারাগারের মোট ধারণক্ষমতা ৩৩ হাজার ৫৭০ জন। অথচ আছেন অন্তত ৭৭ হাজার কয়েদি। বস্তুত, দেশের বেশিরভাগ কারাগারে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণেরও বেশি কয়েদি আছেন। কোনোটিতে বন্দির সংখ্যা সাত গুণ ছাড়াইয়াছে। কয়েদিদের স্বাস্থ্যসেবা পরিস্থিতি সম্পর্কে কারাগার মহাব্যবস্থাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন জানাইয়াছেন, সমগ্র দেশের ৬৮টি কারাগারে কর্মরত আছেন মাত্র ছয় জন চিকিত্সক। উক্ত ছয় চিকিত্সক পাঁচ কারাগারে কর্মরত। আর বাকি ৬৩টি কারাগারে কোনো চিকিত্সকই নাই। চিকিত্সকের ১১১টি পদ ফাঁকাই পড়িয়া আছে। নার্স নাই কোথাও। আর, বিভিন্ন কারাগার হইতে গুরুতর অসুস্থ কয়েদিদের বাহিরের হাসপাতালে পাঠাইতে অ্যাম্বুলেন্স আছে মাত্র ১১টি। কারা কর্তৃপক্ষের দাবি, বিষয়টি সরকারকে একাধিকবার অবহিত করিবার পরেও কোনো সুরাহা হয় নাই। হাসপাতালগুলিতে ডাক্তারের শূন্য পদ পূরণে সরকারের দেওয়া প্রতিশ্রুতি কারাগারের চিকিত্সা সেবাবঞ্চিত অসহায় বন্দিদের মতোই ফাইলবন্দি হইয়া আছে।

কারাগারকে আধুনিক মানবতাবাদের জবানে বলা হয়—সংশোধনাগার। কারাগারে উন্নত গ্রন্থাগার থাকিবে, শারীরিক ও মানসিক রোগ নিরসনের জন্য উপযুক্ত চিকিত্সাসেবা থাকিবে, এবং সর্বোপরি নানাবিধ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকিবে। আর এই সুযোগগুলি নিয়া অপরাধপ্রবণ নাগরিকেরা উন্নত মানসিক ও শারীরিক উদ্দীপনা লইয়া কর্মক্ষম মানুষ হিসাবে সমাজে পুনর্বাসিত হইবে। কিন্তু বাংলাদেশের বাস্তবতায় দেখা যাইতেছে, ধারণক্ষমতার অধিক কয়েদি নিয়া এবং উপযুক্ত সুযোগ-সুবিধা বঞ্চিত হইয়া কারাগারগুলি এখন হিমশিম খাইতেছে। এই পরিস্থিতি কয়েদিদের অপরাধপ্রবণতা না কমাইয়া বরং আরও বাড়াইয়া তুলিতে পারে। এমন পরিস্থিতি কাহারো কাম্য হইতে পারে না। আমরা বরং চাহিব, কারাগারগুলির প্রতি বিশেষ মনোযোগ দেওয়া হউক। কয়েদিদেরকে শারীরিক ও মানসিকভাবে এমন পরিচর্যার অধীন করা হউক যাহাতে তাহাদের অপরাধপ্রবণতা লুপ্ত হয় এবং সমাজে ফিরিয়া আসিয়া অন্য দশটি স্বাভাবিক মানুষের মতো তাহারা দিন যাপন করিতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here