১৭ বছর আগে বন্ধুর সাথে কোথায় গিয়েছিলেন চৌগাছার মান্নান?

0
336

বিশেষ প্রতিনিধি

১৭ বছর আগে সলেমানের সাথে কোথায় গিয়েছিলেন মান্নান ??

মান্নান অপহরনের মামলার এজাহারে মান্নান এবং সলেমানকে সীমান্তবর্তী গ্রামে (ধূলিয়ানী হাট) দেখা গিয়েছিল বলে লোকমুখে শুনার কথা উল্লেখ করেছিলেন মামলার বাদী মান্নানের পিতা সায়েদ আলী। বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত যাচাই করে জানা যায় যে, ২০০৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি রবিবার সলেমান মান্নানকে নিয়ে কাবিলপুরের দিকেই গিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে সলেমানের ভাই সুলতান ওরফে ভাদুড়ি বলেন,“সলেমান ও মান্নানরা প্রায় কাবিলপুরের দিকে যেত। তিনি আরো বলেন,আমাদের গ্রামের (আমাদেরই এক ভাইপো) আব্দুলের ভ্যানে তারা সেদিন (৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৪) কাবিলপুরে গিয়েছিল।

তবে সেই ভ্যান চালক আব্দুল বলেন, সেসময় ভদুড়ির ছেলেদের পুলিশে ধরলে আমার নাম বলেছিল। আমার ভ্যানে না মান্নানরা অন্য একটি ভ্যানে গিয়েছিল। তাদের সাথে আমার ভায়ের (মৃত গাদন) ধূলিয়ানী বাজারে দেখা হয়েছিল।

গরীবপুর গ্রামের বিএনপি কর্মী স্যাকো (যিনি দীর্ঘদিন ধরে কাবিলপুরে আছেন) বলেন,সেদিন মান্নান ও সলেমোনের সাথে কাবিলপুরে দেখা হয়েছিল। তখন তাদেরকে বসতে বলে জিজ্ঞাসা করেছিলাম কোথায় যাচ্ছিস উত্তরে তারা জানিয়েছিল কাশিপুর যাচ্ছি।

উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি শামসুল আরেফিন শান্তি জানিয়েছেন, সেসময় মান্নানরা ভারতে গিয়েছিল বলে শুনেছিলাম।

বিভিন্ন সূত্র মতে, সেদিন মান্নান ও সলেমান অবৈধভাবে ভারতে গিয়েছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ননা–

নিজেকে প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে ঘটনার বর্ননা দিয়েছেন শার্শার এরফান সর্দারের ছেলে হানেফ আলী।

কে এই হানেফ আলী ??

মামলার এজাহারে মান্নানের পিতা জানিয়েছিলেন,“ মান্নান নিখোজের পরে সলেমানে গ্রামে এসছিলেন। সেদিন স্থানীয় চেয়ারম্যান ইউনুচ আলীকে সাথে নিয়ে তারা সলেমানের বাড়িতে গিয়ে মান্নানের খবর জানতে চেয়েছিলেন”। তখন সলেমান বলেছিলেন,“আমরা তিনজন একটা কাজে গিয়েছিলাম। আমি আগে চলে এসেছি, ও (মান্নান) আসছে। সলেমানের কথামতো “আমরা তিনজন” বলতে তিনি আর মান্নান ছাড়া অপরজন কে?? হানেফের বক্তব্য অনুযায়ি সেই তৃতীয় ব্যক্তিটি তিনি নিজে।

মামলার একজন স্বাক্ষী আক্কাস আলী ২০০৪ সালের ৫ সেপ্টেম্বর চৌগাছা থানার এসআই শুভাষ চন্দ্র বিশ্বাসের কাছে জবানবন্দীতে এই হানেফ আলীর নাম বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন,২০০৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি আমার গ্রামের সলেমান ও শার্শার হানেফ আলী আমাদের বাড়িতে আসে। তারা আমার ভাই মান্নানের সাথে কথা বলার কিছুক্ষন পরে হানেফ আলী রাস্তার উপরে চলে যায়। তার কিছুক্ষন পরে সলেমান ও মান্নান বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। তার কয়েকদিন পরে সলেমান ফিরে এলে তার কাছে মান্নানের কথা জিজ্ঞাসা করলে সে বলে মান্নান কয়েক দিন পরে আসবে। স্বাক্ষীদের বর্ননা অনুসারেই মামলায় হানেফের নাম আসে। তবে কোনো দিন ( মামলা শুরু থেকে চার্জশীট পর্ন্ত) গ্রেফতার না হওয়া এবং উপযুক্ত স্বাক্ষ্য প্রমানের অভাবে চার্জশীটে হানেফকে অভিযোগ থেকে অব্যহতি প্রদান করা হয়।

তবে মান্নান নিখোজের ঘটনার সেই প্রত্যক্ষদর্শী হানেফের বক্তব্যের সাথে মান্নান ও সলেমানের সেদিনের ঘটনার হুবহু মিল পাওয়া যায়। হানেফ বলেন,“ সলেমান ও মান্নানের সাথে আছরের আজানের দিকে শার্শা উপজেলার পাকশিয়া বাজারে আমার সাথে দেখা হয়। তখন সলেমান বলে ভাল একটা ব্যবসা আছে, ভারতে যাবো। ওখানে কে আছে প্রশ্নের উত্তরে সলেমান বলে ওখানে আমার লোক আছে। তারপর আমরা টেংরালি গ্রামের মাঠ দিয়ে ভারতের কুড়ুলিয়া হয়ে সন্ধ্যায় গাড়াপোতা বাজারে পৌছায়। গাড়াপোতা বাসস্ট্যান্ডে শামীমের সাথে আমাদের দেখা হয়।”

হানেফ বলেন,সেদিন গাড়াপোতায় ধূলিয়ানীর মোস্ত ওখানে আগে উপস্থিত ছিল। সেখানে একটি মিষ্টির দোকানে শামীম আমাদেরকে মিষ্টি খাওয়ায়। কিছুক্ষন পরে শামীম আমাদেরকে একটি বাড়িতে মদ খাওয়াতে নিয়ে যায়। মদ খাওয়ার কিছুক্ষন পরে শামীম,সলেমান আর মান্নানকে ডেকে নিয়ে যায়। সেসময় তার সাথে আরো কয়েকজন ছিল। ওরা বেরিয়ে যাওয়ার ঘন্টা দেড়েক পরে শামীম ও সলেমান ফিরে আসে। কিন্তু তাদের সাথে মান্নান ছিলনা। পরে অবস্থা ভাল না বুঝতে পেরে সেই রাতেই আমি আর সলেমান দেশে ফিরে আসি। তার দুই দিন পরে যখন মান্নানকে তার পরিবার থেকে খোজাখুজি শুরু করে এবং সলেমানও পালিয়ে যায় তখন জানতে পারি মান্নানকে শামীম খুন করেছে।

অন্য এক প্রত্যক্ষদর্শী চৌগাছা কুঠিপাড়ার আমিন জানান,“ ওইদিন রাতে মান্নানদের আপ্যায়ন করতে কিলার শামীম কয়েকটি মদ ও এককেস বিয়ার কিনে আনেন। মাধবের বাড়িতে বসে সেই মদ খাওয়াবস্থায় কিলার শামীম,আমিরুল,গাড়াপোতার কসাই ইউনুচ ও খলিল মান্নানকে গলায় গামছা পেচিয়ে হত্যা করে। এবং রাতেই গাড়াপোতার অজিতের মটর সাইকেলে করে কিলার শামীম মান্নানের লাশ (ভারতের) হেলেঞ্চা আর অসাড়ু বাজারের রাস্তার পাশে ফেলে আসে ।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক এক ছাত্র নেতা বলেন, ২/৩ বছর আগে যশোর জেলখানায় ধূলিয়ানীর মোস্তর মুখ থেকে মান্নান হত্যাকান্ডের কাহিনী শুনেছি।

সেদিনের ঘটনা জানতে মুঠো ফোনে কথা হয় সেই মোস্তর সাথে। এক সময় কিলার শামীমের কাছের লোক মোস্ত প্রথমেই কিরে কসম কেটে বলেন, সেসময় দীর্ঘদিন চৌগাছার আমিন গাড়াপোতায় ছিল। ঘটনা সেই সঠিক বলতে পারবে। তখন ব্যবসার কারনে আমি মাঝে মাঝে ভারতে যেতাম। কিন্তু সেদিন মান্নান,সলেমানদের সাথে আমি ছিলাম না। তবে শামীম মান্নানকে ভারতে খুন করেছে বলে শুনেছি।

ওই ইউনিয়নের সাবেক সেই চেয়ারম্যান ইউনুচ আলী বলেন, “শামীমরা মান্নানকে সীমান্ত এলাক থেকে (কাবিলপুর) ধরে ভারতে নিয়ে যায়। তাহলে সেসময় হত্যা মামলা হলো না কেনো উত্তরে তিনি বলেন,ওই ঘটনায় পুলিশ খুব তৎপর ছিল। তবে ঘটনাটি ভারতের এবং যারা ঘটিয়েছে (শামীমরা) তারাও সেসময় ভারতে থাকতো। আর মান্নানের হত্যার বিষয়ে আমরা পরে নিশ্চিত হয়েছি। তবে মান্নানকে মেরে ফেলা হয়েছে এটা শতভাগ নিশ্চিত” জোর দিয়ে জানালেন সাবেক চেয়ারম্যান ইউনুচ আলী।

(চলবে)