২০টিরও বেশি রোগ নিরাময়কারী এন্টিবায়োটিক স্কয়ারের সেফট্রোন কি ভেজাল ?

0
84

ডি এইচ দিলসান : মানব শরিরের মারাত্মক ২০টিরও বেশি রোগ নিরাময়কারী এন্টিবায়োটিক স্কয়ারের সেফট্রোন নিয়ে বিপাকে যশোরের ক্রেতারা। বর্তমানে যশোরের অধিকাংশ ফার্মেসিতে বিক্রী হওয়া এই অতী গুরুত্বপূর্ণ এন্টিবায়োটিক ইনজেকশনটির মোড়ক এবং ভেতরের ভায়ালের ব্যাচ নাম্বার, উৎপাদন ও মেয়াদের তারিখ ভিন্ন ভিন্ন হওয়ায় দ্বিধা দ্বন্দে ভুগছেন রোগীরা।
মানব শরিরের জন্য অতী প্রয়োজনীয় এই ইনজেকশনটি ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের সংক্রমণ, টাইফয়েড জ্বর, রেচনতন্ত্রের সংক্রমণে, শ্বাসনালীর নিম্নাংশের সংক্রমণে, বিশেষত নিউমোনিয়া, গণোকক্কাস সংক্রমণে, চর্ম ও নরম কলার সংক্রমণে, অস্থি ও অস্থি সন্ধির সংক্রমণে, ব্যাকটেরিয়া ঘটিত মেনিনজাইটিস, গুরুতর ব্যাকটেরিয়া ঘটিত সংক্রমণে, যেমন সেপটিসেমিয়া, নাক, কান ও গলার সংক্রমণে এবং অপারেশন পূর্ব ও পরবর্তী সংক্রমণে প্রতিষোধক হিসেবে ব্যাবহার করে থাকেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎকরা। এত বেশি গুরুত্বপূর্ণ এই ইনজেকশনটির নি¤œমানের ভায়ালটি যশোরের ইবনেসিনা হাসপাতালের নিজস্ব ফার্মেসিতেও পাওয়া গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্কয়ারের এক কর্মকর্তা বলেন, ঢাকার মিডফোর্ডে এমন ভেজাল মেডিসিন তৈরি করে ছড়িয়ে দিচ্ছে দেশের বাজারে। তিনি বলেন, ৩৫০ টাকা মুল্যের এই মেডিসিনটি স্কয়ার বিক্রী করে ৩১০ টাকা আর প্রতারক চক্র বিক্রী করে মাত্র ৪০ টাকা। মেডিসিন ব্যাবসায়ীরা এই নিমানমানের মেডিসিন বিক্রী করে বেশি মুনফা লাভ করতে পারে। অপরদিকে এই নি¤œমানের মেডিসিনের কারনে অনেক রোগির ঘটে যেতে পারে মৃত্যুও।
এই নি¤œমানের ইনজেকশন ক্রেতা উপশহর ফারির ইনচার্জ আজিজুল ইসলাম বলেন, আমি না দেখে এই ইনজেকশন পুশ করে ফেলেছি, এখন তো ভয় লাগছে, তিনি বলেন এই সব অসাধু ব্যবসায়ীদের বিচার হওয়া দরকার।
নি¤œমানের মেডিসিন বিক্রীর দায়ে ইবনেসিনা হাসপাতালেরন ফার্মেসির বিক্রয়কর্মীদের আটক করে নিয়ে যায় পুলিশে। এদিকে শহরের কমলা ফার্মেসি, ক্লাসিক ফার্মেসি এবং বিসিডিএস মার্কেটের চিপ ফার্মেসিতের ইনজেকশনটি কালেক্ট করে দেখা গেছে ভিন্ন ভিন্ন তারিখ। সব থেকে ভয়ের ব্যাপার হলো ৫টি স্যাম্পলের প্রতিনি ইনজেকশনে এক এক রকম ডেট দেওয়া। ১কে০০২৫৮ ব্যাচ নাম্বারের মোড়কের গায়ে ইএক্সপি ডেট আছে অক্টোবর ২৩ এবং একই ব্যাচের ভায়ালের গায়ে আছে সেপ্টম্বর ২৪। এমন ভাবে ব্যাচ একই হলেও এক একটি স্যাম্পলের মোড়ক এবং ভয়ালের উৎপাদন এবং এক্সপায়ার ডেট এক এক রকম।
ইনজেকশনের মোড়ক এবং ভায়ালের উৎপাদন এবং তারিখের মেয়াদের ভিন্নতার ব্যাপারে বাংলাদেশ জনস্বাস্থ অধিকার আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং ফার্মাসিটিক্যাল রিপ্রেজেনটেটিভ এ্যাস এর উপদেষ্টা বেলাল আহমেদন দাবি করেছেন, স্কয়ারের মত একটি কোম্পনি কখনোই এমন মোড়কে ঔষধ বাজারজাত করে না। তিনি বলেন বাংলাদেশের আর কোন মেডিসিন কোম্পানিও এমনটা করেন না। তিনি সরাসরি এই ইনজেকশনটি ভেজাল এবং নি¤œমানের বলে ঘোষনা দেন। তিনি বলেন স্কয়ারের ডিপো ম্যানেজার বাইরে থেকে মেডিসিন এনে ডিপোর মাধ্যম্যেও বাজারে ছাড়তে পারে। তিনি বলেন এমন ঘটনা এ দেশে অহর অহর দেখা যাচ্ছে।
এ ব্যাপারে যশোরের ড্রাগ সুপার নাজমুল হাসান বলেন, মোড়ক এবং ভেতরের ভায়ালের ব্যাচ নাম্বার এবং উৎপাদন ও মেয়াদের তারিখ ভিন্ন ভিন্ন কখনই হয় না। এই ইনজেকশনে নিশ্চয় কোন সমস্যা আছে। তিনি বলেন আমি সরাসরি ভেজাল বলছি না, তবে খতিয়ে দেখছি, মেডিসিনটি স্কয়ারের নিজস্ব প্রডাক্ট কিনা।
এ ব্যাপারে স্কয়ারের ডিপো ম্যানেজার রবিউল ইসলাম বলেন, “এটা আমাদের নিজস্ব প্রডাক্ট, এটা নিয়ে আপনি বেশি ঘাটাঘাটি করেন না, আমি আপনার সাথে দেখা করবো, আপনাকে খুশি করবো”।
ক্লাসিক মেডিকেলের আজম ইকবাল বলেন, আমদেরকে স্কয়ার কোম্পানির লোক দিয়ে যায় আমরা বিক্রী করি। এটা ভ্যাজাল কি আসল কি নকল এটা আমরা জানি না, তবে জানা টা দরকার।
এ ব্যাপারে যশোর ভোক্তা অধিকার নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের পরিচালক খালিদ বিন ওয়ালিদ বলেন, আমরা স্যাম্পল কালেকশন করে দেখবো, যদি মেডিসিনটি ভেজাল হয় তাহলে অবশ্যয় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।