২০১৭ সালের অস্থিতিশীল বিশ্ব পরিস্থিতি

0
373

২০১৭ সালের অস্থিতিশীল বিশ্ব পরিস্থিতিসদ্য-সমাপ্ত বত্সরটিতে বিশ্ব পরিস্থিতিতে উল্লেখযোগ্য কোনো ইতিবাচক পরিবর্তন দৃশ্যমান হয় নাই। বরং দুঃখজনক হইলেও ইহাই নিদারুণ সত্য যে, সদ্য-সমাপ্ত বত্সরটিতেও মানবসৃষ্ট সমস্যাগুলি দ্বারাই মূলত বিশ্ব মানব সমপ্রদায়কে বিব্রত থাকিতে হইয়াছে। উত্তর কোরিয়ার সহিত প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান এবং যুক্তরাষ্ট্রের বিবাদকে কেন্দ্র করিয়া, গোটা ২০১৭ সাল জুড়িয়াই পরমাণু অস্ত্রের ভীতি বিশ্ববাসীকে আতঙ্কিত করিয়া রাখিয়াছে। বিশেষ করিয়া জানুয়ারি মাসে ডোনাল্ড ট্রাম্পের যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতায় আগমনের পর হইতে উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উনের সহিত তাঁহার কথার লড়াই প্রচণ্ড এক ভীতি ছড়াইয়া দিয়াছে বিশ্বব্যাপী। বত্সরের সূচনাতে ব্রিটেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) হইতে বাহির হইয়া যাইবার উগ্র জাতীয়তাবাদী প্রয়াস তথা ব্রেক্সিটের আনুষ্ঠানিকতা শুরু করিবার সময় হইতে ঘরে-বাহিরে প্রচণ্ড ঝামেলার মধ্যে পড়িয়াছে। বিশেষত ইইউ- এর সদস্য দেশগুলি একজোট হইয়া ব্রিটেনকে প্রায় একঘরে করিয়া ফেলিয়াছে। ব্রিটেনের বিপরীতে দুই প্রতিবেশী ফ্রান্স ও নেদারল্যান্ডসে কিন্তু বিপরীত চিত্র দেখা গিয়াছে। এই দুই দেশেই বত্সরের প্রথমার্ধে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে উগ্র জাতীয়তাবাদীরা পরাজিত হইয়াছে। সারা বিশ্বের জন্য এই দুই নির্বাচন অতি-সামান্য হইলেও আশার আলো উপহার দিয়াছে।
মধ্যপ্রাচ্য বরাবরের মতোই ২০১৭ সালেও অস্থিতিশীল থাকিয়া গিয়াছে। বত্সরের একেবারে শেষে আসিয়া তেলআবিব হইতে জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস সরাইয়া লইবার ঘোষণায় ফিলিস্তিন-ইসরায়েল শান্তিপ্রক্রিয়া বলিতে গেলে অনির্দিষ্টকালের জন্য আরো একবার হিমঘরে ঢুকিয়াছে। সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনিয়া কাতারের সহিত সৌদি আরবের নেতৃত্বে উপসাগরীয় কয়েকটি দেশের সম্পর্কচ্ছেদ, সৌদি আরবে অবস্থানকালে লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরির রহস্যজনক পদত্যাগ এবং ইরানের বিরুদ্ধে ইসরায়েল ও সৌদি আরবের একজোট হইবার মতো খবরগুলিও মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতার প্রমাণ হিসাবে দেখা দিয়াছে। বত্সরের শেষ দিকে আসিয়া ইরাক ও সিরিয়াতে সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আইএস দৃশ্যত পরাজিত হইয়াছে। কিন্তু বিশ্বমোড়লেরা এই দেশগুলিতে যেইসকল খেলা খেলিতেছে তাহার পরিণতি যে শুভ হইবে না তাহা নিশ্চিত। বত্সরের একেবারে শেষের দিকে আসিয়া জিম্বাবুয়ের একনায়ক রবার্ট মুগাবে সেনাবাহিনীর সমর্থনে ক্ষমতা হারাইয়াছেন। স্বাধীনতার বীরসেনানী হইতে ক্ষমতালিপ্সু এক একনায়কে পরিণত হওয়া মুগাবের ক্ষমতা হইতে অপসারণ দুঃখজনক হইলেও অবধারিত হইয়া উঠিয়াছিল।
২০১৭ সালে মানবতা সর্বাধিক বিপন্ন হইয়াছে আমাদের প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারে। সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত এই দেশটিতে বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদী-মৌলবাদীরা মিলিয়া জাতিগত-ধর্মগত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিম নিধনযজ্ঞে মাতিয়া উঠিয়াছে। খুন-জখম-ধর্ষণ-অগ্নিসংযোগসহ অর্ধ-মিলিয়নের অধিক রোহিঙ্গাকে নিজ-দেশ হইতে বিতাড়িত করিতে এতটুকু লজ্জিত হয় নাই দেশটি। মানবতার চূড়ান্ত বিপর্যয়েও নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী মিয়নমারের নেত্রী অং সান সুচির ভয়াবহ নীরবতায় সারা দুনিয়ার শান্তিকামী মানুষ লজ্জায় মুখ ঢাকিয়াছে। পক্ষান্তরে, মানুষ মানুষের জন্য নীতির ভিত্তিতে বাংলাদেশ যেইভাবে রোহিঙ্গাদের গ্রহণ করিয়াছে তাহা সারা দুনিয়ার জন্যই শিক্ষণীয় হইয়া থাকিবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here