২০২০ সালে অনলাইনে ক্লাসের নামে শিক্ষার্থীরা ব্যস্ত ছিল ফ্রি ফায়ার ও পাবজিতে

0
112

মিরাজুল কবীর টিটো : করোনা মহামারির কারনে ২০২০ সালে দেশের অন্যান্য স্থানের মতো যশোরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। শিক্ষার্থীদের কল্যাণের কথা চিন্তা করে যশোর শিক্ষা বোর্ড, জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা অফিস স্ব স্ব ওয়েবসাইটে অনলাইন ক্লাস ব্যাংক চালু করে। সিটি ক্যাবলেও প্রচার হয়েছে ক্লাস। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোও নিজস্ব আঙ্গিকে অনলাইন ক্লাস কার্যক্রম চালু রাখে। করোনাকালে শিক্ষকরা অনলাইন ক্লাস তৈরি ও গ্রহণে নতুন এক অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। কিন্তু শিক্ষার্থীদের চিত্র ছিল ভিন্ন। তাদের একটি বড় অংশ অনলাইন ক্লাসের নামে মোবাইল চালু রেখে খেলেছে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেম। এদিকে যশোর বোর্ড মোবাইলে এসএসসির ফলাফল ও অনলাইনের মাধ্যমে মার্কসিট ও সনদ দিয়ে বেশ সুনাম অর্জন করেছে।

গেল বছরের ১৬ মার্চ থেকে বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যশোর জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা অফিস শিক্ষার্থীদের বইয়ের সাথে সম্পৃক্ত রাখতে অনলাইন ক্লাস চালু করে। শিক্ষা অফিসের সহযোগিতায় যশোরের বিভিন্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সাথে কথা বলে সিটি ক্যাবলে অভিজ্ঞ শিক্ষকদের ভিডিও ক্লাস প্রচার করে। সেটা আবার বিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীদের জানিয়ে দেয়া হয়। এ কার্যক্রম শুরু করার পর বিভিন্ন স্কুলের নিজস্ব ওয়েবসাইটে  ভিডিও ক্লাস প্রচার করা শুরু হয়। এমনকি শিক্ষকরাও নিজেদের ফেসবুকে ভিডিও ক্লাস প্রচার করে। এর পাশাপাশি যশোর শিক্ষা বোর্ড অনলাইন ক্লাস রুম চালু করে। বোর্ডের ওয়েবসাইটে ক্লাস রুম লিংক আকারে দেয়া আছে। যাতে করে শিক্ষার্থীরা অভিজ্ঞ শিক্ষকদের ক্লাসে অংশ নিতে পারে । অথচ শিক্ষার্থীদের কাছে মোবাইল ফোন থাকলেও তারা অনলাইন ক্লাস দেখেছে কম, গেম খেলেছে বেশি।  বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা জানা গেছে মোবাইলে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেম খেলে সময় কাটিয়েছে শিক্ষার্থীরা। তাদের গেম চর্চা অব্যহত রয়েছে।

গেল বছর এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে শিক্ষার্থীরা। যশোর শিক্ষা বোর্ড প্রথম মোবাইলে ফল ঘোষণার পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী জাতীয়ভাবে মোবাইলে এসএসসির ফলাফল ঘোষণা হয়।

করোনা ভাইরাসের কারণে যশোর শিক্ষা বোর্ডে প্রবেশে কড়াকড়ি করা হয়। এ অবস্থায় শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের বোর্ডে এসে দুর্ভোগ পোহাতে না হয়। এজন্য নতুন সফটওয়্যার তৈরি করে শিক্ষার্থীদের মার্কশিট ও সনদপত্র আপ লোড করা হয়। সেখান থেকে অনেক শিক্ষার্থী বাড়ি বসে প্রিন্ট কপি পায়।

এদিকে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস শিক্ষকদের মাধ্যমে মোবাইলে শিক্ষার্থীদের সপ্তাহিক  পড়া দেয়। সেটা আবার তদারকি করা হয়। এমনকি গত নভেম্বর মাসে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক শিক্ষার্থীদের বাড়িতে পুষ্টিকর বিস্কুট পৌঁছে দেয়াসহ উপবৃত্তি প্রদান করা হয়।