২০২১ সালের মধ্যে দেশের প্রত্যেক ঘরে আলো জ্বালাবই-যশোরে প্রধানমন্ত্রী

0
466

ডি এইচ দিলাসান : আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে আবারও বিজয়ী করতে নৌকায় ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলেই দেশের উন্নয়ন হয়। বিএনপি ক্ষমতায় এলে উন্নয়নের ধারা থেমে যাবে। আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে তখন গোলাভরা ধান, পুকুর ভরা মাছ খেয়ে-পরে মানুষ সুখে থাকে। কিন্তু যখন ধানের শীষ ক্ষমতায় ছিল তখনতো গোলা ভরা ধান ছিল না। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এসে শুধু নিজেরা খাবে, নিজেরা পরবে আর বিলাসিতা করবে।
রোববার বিকালে যশোর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে তিনি ২৮টি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন।এর আগে সকালে যশোরের মতিউর রহমান বিমান ঘাঁটিতে বিমান বাহিনীর শিক্ষা সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। তার আগে বেলা ১১টায় বিমান ঘাঁটি পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। এরপর তিনি কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন।

জনসভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতীর জনক শেখ মুজিবুর রহমান ৭ই মার্চে যে ভাষন দিয়েছিলো আজ সেই ভাষন বিশ্ব স্বকৃতি পেয়েছে।তিনি বলেন আমরা পদ্মা সেতু তৈরি করছি, রেল লাইন করছি, আর এই রেল লাইন দিয়ে খুব সহজে যশোরের সাথে ঢাকার যোগাযোগ হবে।
তিনি বলেন, আমরা আগামীকাল বই উৎসব করবো। আমরা বৃত্তি দিচ্ছি, মায়ের নামে মোবাইল ফোনের মাধ্যম্যে মেয়েদের উপবৃত্তি দিচ্ছি।২০২১ সালের মধ্যে কোন ঘরে আন্ধকার থাকবে না। আমরা প্রত্যেক ঘরে আলো জ্বালাবোই। যেখানে বিদ্যুৎ পেীছাতে পারবো না সেখানে আমরা সোলার পেীছে দিবো।

তিনি বলেন, আমি আমার মা বাবা ভাই বোন সব হারিয়েছি। আমার হারাবার কিছু নেই। আমার বাবা আপনাদের নেতা জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তিনি চেয়ে ছিলেন গরিবের মুখে হাসি ফুটবে, একটা মানুষও না খেয়ে কষ্ট পাবে না। কোনো মানুষ গৃহহারা থাকবে না। কোনো মানুষ রোগে ধুঁকেধুঁকে মরবে না। প্রত্যেকে সুন্দর জীবন পাবে। আমার জীবনেও একটাই লক্ষ্য। বাংলাদেশের প্রত্যেক মানুষ পেট ভরে ভাত পাবে। রোগের চিকিৎসা পাবে। ছেলে মেয়ে শিক্ষা পাবে। উন্নত জীবন পাবে। আমি কি পেলাম না পেলাম সে চিন্তা আমি করি না। আমার মাথায় একটাই চিন্তা যে স্বপ্ন আমার বাবা দেখেছিলেন বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলবেন, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা। বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা। সেই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছি। কথায় বলে নিয়তগুণে বরকত। আমাদের সেই নিয়ত ভালো দেখেই আজকে বরকত হয়। আমাদের দেশে ভালো ফসল ফলে। উদ্বৃত্ত হয়। আমরা খাদ্য রপ্তানি করতে পারি। সেই যোগ্যতাও আজ বাংলাদেশ অর্জন করেছে।

তিনি আরো বলেন, আজ সর্বত্র বাংলাদেশের সম্মান। অথচ বিএনপি-জামায়াত যখন ক্ষমতায় ছিল বাংলাদেশ সন্ত্রসী দেশ, বাংলাদেশ ভিক্ষুকের দেশ এই ধরনের একটা মনোভাব ছিল। আল্লাহর রহমতে আমরা বাংলাদেশকে মর্যাদা দিয়েছি। বাংলাদেশের মানুষকে সম্মান দিয়েছি। কারণ জাতির পিতা বলেছেন ভিক্ষুক জাতির ইজ্জত থাকে না। আমরা ভিক্ষুক জাতি হতে চাই না। আমরা উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্ব সভায় মাথা তুলে দাঁড়াতে চাই। তিনি আরো বলেন, আজ যে কেউ ইচ্ছে করলে কাজ করে খেতে পারে। আমরা সেই সুযোগ করে দিয়েছি। আর বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে মানুষ হত্যা করেছে। দুর্নীতি করেছে। লুটপাট করেছে। খালেদা জিয়ার ছেলেরা যে টাকা চুরি করেছে, ঘুষ-দুর্নীতি করেছে। সেই টাকা জনগণের টাকা। তারা বিদেশে নিয়ে গিয়েছিল। আমরা সিঙ্গাপুরের ব্যাংক থেকে সেই টাকা ফেরত এনেছি।
তিনি বলেন, ২০১৪ তে নির্বচন ঠেকানোর নামে খালেদা জিয়ার হুকুমে ৫৮২টি স্কুল পুড়িয়ে দিয়েছে। শতশত বাস পুড়িয়েছে। গাড়ি পুড়িয়েছে। প্রিজাইডিং অফিসারদের আক্রমণ করেছে। পুলিশ বিজিবিসহ বিভিন্ন সংস্থার মানুষকে হত্যা করেছে। জীবন্ত মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরেছে। এটাই নাকি তাদের আন্দোলন। এটাই নাকি তাদের সংগ্রাম। তিনি বলেন খালেদা জিয়া এতিমদের টাকা মেরে খাই, তারা মানিলন্ডারিং করে

যশোর জেলা আওয়ামিলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য পিযুষ ভট্টাচারিয়া, দিপু মনি, মোঃ হানিফ,ইসমত আরা সাদক, যশোর-৫ আসনের এমপি স্বপন ভট্টাচার্য, যশোর-৩ আসনের এমপি নাবিল আহমেদ, যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহিন চাকলাদারসহ আরো অনেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here