২০ চলচ্চিত্রের জন্য ১২ কোটি, দেখে নিন তালিকা

0
63

পেন্সিলে আঁকা পরী পাচ্ছে ৬০ লাখ টাকা। প্রযোজক অমিতাভ রেজা চৌধুরী, মাহজাবিন রেজা চৌধুরী ও আসাদুজ্জামান। হুমায়ুন আহমেদের গল্প থেকে ছবিটি পরিচালনা করবেন অমিতাভ রেজা চৌধুরী ।

অমিতাভ রেজা চৌধুরী।

অমিতাভ রেজা চৌধুরী।

তিনি বলেন ‘হুমায়ূন আহমেদ বেঁচে থাকতে গল্পটা চেয়ে নিয়েছিলাম। ক্যানসার ধরা পড়ার পর সিঙ্গাপুরে যাওয়ার পথে ফ্লাইটেও স্যার আমাকে এই ছবির কথা জিজ্ঞেস করেছিলেন। বলেছিলেন, ছবিটা বানাবে না? তাড়াতাড়ি বানায়ে ফেলো।’ অবশেষে সেই ছবিটি অনুদান পেল। কেমন লাগছে? তিনি বলেন, ‘অনুদান তো একটা প্রণোদনামাত্র। ছবি বানাতে অনেক টাকা লাগবে। এবার আমি যতটা নিজের ছবির জন্য খুশি, তার চেয়ে অনেক বেশি খুশি, এ বছর ২০টি চলচ্চিত্রকে অনুদান দেওয়া হয়েছে বলে। বন্ধুবান্ধব, আশপাশের এত মানুষের ছবি আছে এবং আমরা সবাই মিলে আগামী বছর ছবি বানাব—এটা অসাধারণ অনুভূতি।’ এই ছবিটির চিত্রনাট্যও আগে আরেকবার জমা দেওয়া হয়েছিল।

অরুণা বিশ্বাসের প্রযোজনা ও পরিচালনায় অসম্ভব পাচ্ছে ৬০ লাখ টাকা। এই ছবিও আগে ছয়–সাতবার অনুদানের জন্য জমা দিয়েছেন বলে জানালেন তিনি। এবার পেলেন। এই মুহূর্তে তিনি কানাডায়। সেখান থেকে বললেন, ‘এই গল্পটা আমার স্বপ্নের একটি গল্প। আমার তো এমনও মনে হয়েছে, গল্পটি আগে পড়াই হয়নি। এবার নিশ্চয়ই পড়েছে, তাই দিয়েছে। এই চলচ্চিত্রে পরিবার, মুক্তিযুদ্ধ, দেশপ্রেম এবং যাত্রাশিল্পের একটা সুন্দর সমন্বয় রয়েছে।’

অরুণা বিশ্বাস

অরুণা বিশ্বাস
ফেসবুক থেকে

দেশান্তর চলচ্চিত্রের জন্য প্রযোজক ও পরিচালক হিসেবে অনুদান পেয়েছেন আশুতোষ সুজন। তিনি বলেন, ‘সরকার আমাকে ছবি বানাতে অনুদানের জন্য মনোনীত করেছে, এ জন্য আমি খুশি। আমি আসলে ছবি বানাতে চাই, ছবি বানিয়ে নিজেকে প্রমাণ করতে চাই। এটা দেশেরই গল্প। অভিনয়শিল্পী নিয়ে একধরনের প্ল্যান আছে, তবে চূড়ান্ত কাউকে করিনি।’

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সাধারণ শাখায় অনুদানের জন্য নির্বাচিত হয়েছে ৯টি চলচ্চিত্র। ৬৫ লাখ টাকা পাচ্ছে জয় বাংলা, প্রযোজক মিটু সিকদার ও পরিচালক কাজী হায়াৎ। প্রযোজক জানে আলমের জামদানী পাচ্ছে ৬৫ লাখ টাকা। এই ছবির পরিচালক অনিরুদ্ধ রাসেল।
১৯৭৬-৭৭ অর্থবছর থেকে দেশীয় চলচ্চিত্রের জন্য সরকারি এ অনুদান চালু করে। কয়েক বছর বিরতি দিয়ে আবার অনুদান দেওয়া শুরু হয়েছে।

২০২০-২১ অর্থবছরে যে ছবিগুলো পেল অনুদান

মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক শাখা

১.ক্ষমা নেই, প্রযোজক ও পরিচালক জেড এইচ মিন্টু

২. সাড়ে তিন হাত ভূমি, প্রযোজক ও পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল

৩.মৃত্যুঞ্জয়ী, প্রযোজক বেগম বদরুন নেছা খানম, পরিচালক উজ্জ্বল কুমার মণ্ডল

শিশুতোষ শাখা

৪.মাইক, প্রযোজক এফ এম শাহীন, পরিচালক এফ এম শাহীন ও হাসান জাফরুল

৫. নুলিয়াছড়ির সোনার পাহাড়, প্রযোজক ও পরিচালক লুবনা শারমিন

সাধারণ শাখা

৬. জয় বাংলা, প্রযোজক মিটু সিকদার, পরিচালক কাজী হায়াৎ

৭.জামদানী, প্রযোজক জানে আলম, পরিচালক অনিরুদ্ধ রাসেল

৮. চাঁদের অমাবস্যা, প্রযোজক ও পরিচালক জাহিদুর রহিম অঞ্জন

৯.রইদ, প্রযোজক জয়া আহসান, পরিচালক মেজবাউর রহমান সুমন

১০. পেন্সিলে আঁকা পরী, প্রযোজক মাহজাবিন রেজা চৌধুরী, মো. আসাদুজ্জামান ও অমিতাভ রেজা চৌধুরী, পরিচালক অমিতাভ রেজা চৌধুরী

১১.জলে জ্বলে, প্রযোজক ও পরিচালক অরুণ চৌধুরী

১২. অসম্ভব, প্রযোজক ও পরিচালক অরুণা বিশ্বাস

১৩.ভাঙন, প্রযোজক ও পরিচালক মির্জা সাখাওয়াৎ হোসেন

১৪. দাওয়াল, প্রযোজক ও পরিচালক রকিবুল হাসান চৌধুরী

১৫.বলী, প্রযোজক রেজাউর রহমান খান পিপলু, পরিচালক ইকবাল হোসাইন চৌধুরী

১৬. শ্রাবণ জ্যোৎস্নায়, প্রযোজক তামান্না সুলতানা, পরিচালক আবদুস সামাদ খোকন

১৭.দেশান্তর, প্রযোজক ও পরিচালক আশুতোষ ভট্টাচার্য সুজন

১৮. গলুই, প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু, পরিচালক এস এ হক অলিক

১৯.দেয়ালের দেশ, প্রযোজক মাহফুজুর রহমান, পরিচালক ইব্রাহিম খলিল মিশু

২০. জলরঙ, প্রযোজক দেলোয়ার হোসেন দিলু, পরিচালক কবিরুল ইসলাম রানা