২০ জেলায় বন্যার অবনতি

0
586

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে যাচ্ছে। প্রায় ২০টি জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। বেড়েছে বেশির ভাগ নদনদীর পানি। এতে প্লাবিত হয়েছে কয়েকশ গ্রাম। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের পূর্বাভাস বলছে দেশের প্রধান নদ নদীতে পানি বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকবে। বরিবার সকালে দেয়া পূর্বাভাসে জানানো হয়, উত্তরাঞ্চলে বহ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা-পদ্মা অববাহিকায় আগামী ৭২ ঘণ্টায় বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে। পূর্বাঞ্চরলে সুরমা-কুশিয়ারা নদীর পানিও আগামী ২৪ ঘন্টায় বাড়তে পারে।

গত এপ্রিলে হাওর অঞ্চল এবং জুনে উত্তরবঙ্গ, সিলেট অঞ্চল এবং মধ্যাঞ্চলে দেখা দেয় আগাম বন্যা। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন লাখ লাখ মানুষ। সেই বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার আগেই বর্ষার শেষে বন্যা আবার বন্যায় চরম বিপাকে পড়েছে দুর্গতরা।

আগেই আভাস দেয়া হয়েছিল আগস্টে এক বড় বন্যা আসছে। সেই বন্যার পূর্বাভাস গত কয়েক দিন ধরেই শুরু হয়ে গেছে। ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে প্লাবিত হয়েছে দেশের নিম্নাঞ্চল। তবে বন্যা শুরু হলেও এখনো সরকারি-বেসরকারি কোনো ত্রাণ তৎপরতা চোখে পড়েনি। এতে চরম কষ্টে দিনাতিপাত করছেন বন্যার্তরা।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য মতে দেশের ১৪টি নদীর পানি বেড়েছে ১৭টি পয়েন্টে। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৩৬ সেন্টিমিটার পানি বেড়েছে শেরপুরের ভুগাই নদীতে। এ ছাড়া ধরলা কুড়িগ্রাম পয়েন্টে ৭৭ সেন্টিমিটার, তিস্তার ডালিয়া পয়েন্টে ২৯ সেন্টিমিটার, যমুনেস্বরি বদরগঞ্জে ১৩২ সেন্টিমিটার, যমুনা বাহাদুরাবাদে ৬৩ সেন্টিমিটার, সিরাজগঞ্জে ৪৭ সেন্টিমিটার, টাঙ্গন নদী ঠাকুরগাঁওয়ে ২৬১ সেন্টিমিটার, সুরমা কানাইঘাটে ৫১ সেন্টিমিটার, সুনামগঞ্জে ২৩ সেন্টিমিটার, কুশিয়ারা শেওলায় ১২ সেন্টিমিটার, সারিগোয়াইন সারিঘাট পয়েন্টে ৮৪ সেন্টিমিটার, মনু নদী মনু রেলওয়ে ব্রিজ পয়েন্ট ৩৬৮ সেন্টিমিটার, খোয়াই নদীর বাল্লায় ২২১ সেন্টিমিটার ও হবিগঞ্জে ৪৭০ সেন্টিমিটার, ধলাই কমলগঞ্জে ২৭৮ সেন্টিমিটার, ভোগাই নদী নাকোয়াগাও ৩২০ সেন্টিমিটার, সোমেশ্বরী দুর্গাপুরে ১০০, কংস নদী জারিয়াজঞ্জাইল পয়েন্টে ১০৫ সেন্টিমিটার বেড়েছে।

বিভিন্ন জেলা থেকে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো বন্যার খবর:

ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে সুনামগঞ্জের বন্যা

প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকায় সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। নদ-নদী ও হাওরে পানি বাড়ছে। নতুন করে জেলার দোয়ারাবাজার, সুনামগঞ্জ সদর, দিরাই, ধর্মপাশা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন বিভিন্ন গ্রামের মানুষজন।

সড়ক প্লাবিত হওয়ায় জেলা সদরের সঙ্গে বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলার সরাসরি যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে। এছাড়াও সুরমা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সুনামগঞ্জ পৌর এলাকার বেশ কয়েকটি আবাসিক এলাকায় পানি প্রবেশ করেছে। অন্যদিকে দোয়ারাবাজার উপজেলা সদরের সাথে নয় ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

বন্যার্তদের জন্য জেলা প্রশাসন থেকে আক্রান্ত উপজেলাগুলোতে তিন মেট্রিক টন চাল ও নগদ ১০ হাজার টাকা জরুরি সহায়তা দেয়া হয়েছে।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত ৯টা পর্যন্ত সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৭৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। পানি আরও বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুনামগঞ্জে ২০৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। বর্ষণ অব্যাহত আছে।

পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকলে বন্যার আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি

 

কুড়িগ্রামের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তিস্তা ও দুধকুমারসহ প্রধান-প্রধান সব নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সকাল ৬টায় ধরলা নদীর পানি বিপদসীমার ১ দশমিক ৮ মিটার ও ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ২০ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

৯টি উপজেলার তিন শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে দুই লাখের বেশি মানুষ। সাপের কামড়ে সদর উপজেলার খামার হলোখানা গ্রামে জোসনা নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। পানিতে ডুবে মারা গেছে কুড়িগ্রাম পৌর এলাকার ভেলাকোপা গ্রামের দেড় বছরের এক শিশু।

পাটেশ্বরী নাম স্থানে কুড়িগ্রাম- ভূরুঙ্গামারী সড়কের তিনটি স্থানে বন্যার পানি প্রবাহিত হওয়ায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ভেঙে গেছে কুড়িগ্রাম-ফুলবাড়ী সড়ক। এই সড়কের আরডিআরএস বাজারে ভাঙন কবলিত এলাকায় ৩০টি দোকান ভেঙে গেছে। রাজারহাটের কালুয়ারচরে বেড়িবাঁধ ভেঙে ভেসে গেছে ২০টি বাড়ি। ফুলবাড়ী-নাগেশ্বরী সড়কে পানি ওঠায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। হাজার হাজার হেক্টর জমির আমন ও সবজি ক্ষেত তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে বেশ কিছু গবাদি পশু।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, রবিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ধরলা নদীতে ৮৬ সে.মি., ব্রহ্মপুত্রে ৫৮ সে.মি, দুধকুমরে ৬০ সে.মি. ও তিস্তায় ৫৫ সে.মিটার পানি বেড়েছে।

ভয়াল রূপ নিচ্ছে তিস্তা

 

ভারী বর্ষণে উজানের ঢলে তিস্তা নদী ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। রবিবার সকাল ৯টায় নীলফামারীর ডিমলার ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ৬৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা সতর্কীকরণ পূর্বাভাস কেন্দ্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া ডিভিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, তিস্তায় ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

পানি বৃদ্ধির কারণে নীলফামারী জেলা প্রশাসনের নির্দেশে ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার তিস্তা অববাহিকার গ্রাম ও চর এলাকায় মাইকিং ও ঢোল সহরত করে মানুজনকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

নীলফামারীর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম জানান, প্রশাসনের সবস্তরের সরকারি কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

বন্যার দুর্গত মানুষের জন্য ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ১০টি মেডিকেল টিম ও একটি অতিরিক্ত হাসপাতালের মেডিকেল টিম কাজ করছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ডিমলা খালিশাচাঁপানী ইউনিয়নের ছোটখাতা ও বানপাড়া গ্রামের ঘর-বাড়ির টিনের চালের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

নেত্রকোণায় বেড়েছে তিন নদীর পানি

হাওর ও পাহাড় অধ্যুষিত নেত্রকোণায় তিন নদীর পানি আরও বেড়েছে। এতে চার নদীর পানিই বিপদসীমা ছাড়ানোয় জেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড রবিবার সকাল নয়টায় পানি পরিমাপ করে দেখেছে পাহাড়ি এলাকায় সোমেশ্বরীর পানি কিছুটা কমলেও বেড়েছে কংস, উব্দাখালি ও ধনু নদীর পানি। তবে সোমেশ্বরী এখনও বিপদসীমার ওপরে বইছে।

বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু তাহের জানান, জেলার হাওরাঞ্চলের নদী ধনুর পানি নতুন করে বেড়ে বিপদসীমা পেরিয়েছে।

দুর্গাপুর পয়েন্টে পাহাড়ি সোমেশ্বরী আজ সকালেও বিপদসীমার সতি সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছিল। তবে আগের চেয়ে পানি কিছুটা কমায় নদীর আশপাশ প্লাবিত এলাকা থেকে পানি নেমেছে।

দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুনুর রশিদ জানান, রবিবার সকাল থেকে প্লাবিত ৭০ গ্রাম থেকে পানি নেমে যাচ্ছে। তিনি জানান, শনিবার দুপুর থেকে মধ্যরাত নাগাদ নেতাই নদীর বাঁধ ভেঙে ও সোমেশ্বরীর পানি উপচে নিম্নাঞ্চল এলাকার গ্রামগুলো প্লাবিত হয়। পানি নামতে থাকায় গ্রামগুলোর পানিবন্দি মানুষের দুর্ভোগ কমে আসছে। তার পরও স্থানীয় প্রশাসন সতর্ক রয়েছে বলে জানান ইউএনও।

অন্য তিন নদীর পানি বেড়ে কংস নদের জারিয়া পয়েন্টে ১৭৬ সেন্টিমিটার ও উব্দাখালি কলমাকান্দা পয়েন্টে ৮৫ সেন্টিমিটার ও ধনু বিপদসীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি বাড়ায় এসব নদী তীরবর্তী এলাকাগুলো নতুন করে তলিয়ে গেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে স্থানীয়রা।

ময়মনসিংহে নদীর পাড় ভেঙে প্লাবিত ৩০ গ্রাম

ভারতীয় সীমান্তবর্তী ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় নিতাই নদীর বাঁধ ভেঙে প্রায় ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। শুক্রবার রাতে প্রবল পাহাড়ি স্রোতে দুটি জায়গায় বেড়িবাঁধ ভেঙে গ্রামের ভেতর পানি ঢুকছে।

শনিবার বিকাল পর্যন্ত চারটি ইউনিয়নের প্রায় ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়। উপজেলার কালিকাবাড়ী গোদারাঘাট সংলগ্ন নিতাই নদীর উত্তর পাড় ভেঙে প্রবল স্রোতে দোকানপাট ও বাড়িঘর ভাঙনের মুখে পড়েছে।

দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক জানান, দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নের কালিকাবাড়ী এজাহারের বাড়ির কাছে প্রায় ১০০ ফুট নদীর পাড় ভেঙে পাহাড়ি ঢলের পানি প্রবেশ করে কালিকাবাড়ী, নয়াপাড়া, জাঙ্গালিয়াপাড়া, দুধকুড়া, ভলল্বপুর, খাগগড়া ও সোহাগীপাড়া গ্রামসহ ১০ গ্রাম প্লাবিত হয়ে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বহু মানুষ উঁচু রাস্তায় মালামাল, গবাদি পশুসহ আশ্রয় নিলেও শেষ রক্ষা হচ্ছে না। একের পর এক তলিয়ে যাচ্ছে উঁচু রাস্তাগুলো। পরিস্থিতির আরও অবনতি হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন শনিবার দুপুরে প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। সন্ধ্যায় বন্যা প্লাবিত এলাকা পরিদর্শনে যান ময়মনসিংহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব এম এ গালিব। পরিদর্শন শেষে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করেন।

বেড়েছে গাইবান্ধার সব নদীর পানি

গত চার দিনের টানা বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে গাইবান্ধার সবকটি নদ-নদীর পানি দ্রুত বাড়ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ৫৯ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ৩২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে এবং ঘাঘট নদীর পানি ৫৮ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ০৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এছাড়া তিস্তা নদীতে পানি ৫২ সেন্টিমিটার ও করতোয়া নদীতে ৮৪ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার কাছ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

ফলে জেলার সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি ও সদর উপজেলার নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়ে পড়েছে।

যশোরে পানিবন্দি দেড় লক্ষাধিক

টানা দুই দিনের বৃষ্টিতে যশোরের তিন উপজেলায় বন্যাপরবর্তী জলাবদ্ধতার আরও অবনতি হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন মনিরামপুর, অভয়নগর ও কেশবপুরের দেড় লক্ষাধিক মানুষ।

বিশেষ করে হালসা, শ্যামকুড়, মশ্মিমনগর, নেহালপুর, ভোজগাতীসহ অন্তত ৯০টি গ্রাম বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

এদিকে জলাবদ্ধ পরিস্থিতি দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার শংকায় পানিবন্দি মানুষ বাড়িঘর ছাড়তে শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে প্রায় সাত হাজার মানুষ সড়কের দুই ধারে ও স্কুল-কলেজের আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছেন। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে তিন উপজেলার প্রায় ৩০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

কেশবপুরে ইতোমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

অন্যদিকে জলাবদ্ধতা দীর্ঘস্থায়ী রূপ নেয়ায় ফসল ও মৎস্যসম্পদের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ক্রমেই বাড়ছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো। প্রাথমিকভাবে নিরূপণ করা এ ক্ষতির পরিমাণ ইতোমধ্যে ৬০ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।

রাঙামাটির বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

ভারী বৃষ্টির কারণে কাপ্তাই হ্রদের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। পাহাড়ি ঢলের পানি নেমে আসার কারণে হ্রদের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে গত শনিবার ডুবে যায় রাঙামাটির জুলন্ত সেতু।

ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে জেলার বাঘাইছড়ি লংগদু উপজেলায় বন্যাকবলিত নিম্ন এলাকা এখনো পানির নিচে আছে। বাঘাইছড়ি উপজেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছে বন্যা দুর্গতরা।

গত শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে টানা বৃষ্টিপাত হওয়ায় রাঙামাটির নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। কাপ্তাই হ্রদের পানি বৃদ্ধির পাশাপাশি নিচু এলাকায় বন্যার সৃষ্টির হয়েছে। পাহাড়ি ঢলে নষ্ট হয়ে গেছে আউস ও আমন ফসলের।

কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রর ব্যবস্থাপক শফি উদ্দিন আহমেদ জানান, হ্রদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বাঁধের ১৬ দরজায় পানি ছাড়া হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here