২৫ মার্চ ‘গণহত্যা দিবস’

0
222

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর গণহত্যা একাত্তরের ২৫ মার্চের কালরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডকে স্মরণ করতে ওইদিন ‘গণহত্যা দিবস’ পালনে সংসদে একটি প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়েছে। প্রস্তাবটির ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেন, ‘গণহত্যার কোনও প্রমাণ লাগে না। ওই সময়ের বিভিন্ন পত্রপত্রিকাই এর বড় প্রমাণ।’

এর আগে বিকাল তিনটায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হয়। দিনের কার্যসূচিতে থাকা অন্যান্য কার্যক্রম স্থগিত রেখে এ প্রস্তাবের ওপর সাধারণ আলোচনা শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও প্রায় ‎৬ ঘণ্টাব্যাপী এই আলোচনায় নেন ৫৫ জন সংসদ সদস্য।

সরকারের শরিক দল জাসদের শিরীন আখতারের উত্থাপিত এ প্রস্তাবে বলা হয়, ‘সংসদের অভিমত এই যে, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাত্রিতে বর্বর পাকিস্তানি সেনাবহিনী কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যাকে স্মরণ করে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস ঘোষণা করা হোক। আন্তর্জাতিকভাবে এ দিবসের স্বীকৃতি আদায়ে প্রয়োজনীয় কার্যত্রক্রম গ্রহণ করা হোক।’

আলোচনায় অংশ নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার ‘সংখ্যাতত্ত্ব’ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেন, ‘‘আসলে শহীদের সংখ্যা নিয়ে কোনও সংশয় নেই। এমনকি মওদুদির ছেলেও এক সাক্ষাৎকারে জামায়াতের অফিসিয়াল প্রকাশনার উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছেন, ‘একাত্তরে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে বাংলাদেশে নিহতের সংখ্যা ৩৫ লাখ।’ এই সংখ্যা নিয়ে যারা প্রশ্ন তোলে, তাদের ধিক্কার জানাই।’’ তিনি ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের প্রস্তাবটি সমর্থনের পাশাপাশি ১ ডিসেম্বরকে মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে পালনের প্রস্তাব দেন।

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘পাকিস্তানিরা শুধু একাত্তরে আমাদের ওপর নয়, এখনও গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে বেলুচিস্তানে। প্রস্তাবটি সমর্থন করে তিনি বলেন, আর্ন্তজাতিকভাবে এ গণহত্যার স্বীকৃতি আদায়ে সরকারকে তৎপর হওয়ার আহবান জানান।

জাসদের সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘দেশে এখনও পাকিস্তানের প্রেতাত্মা আছে। বাংলাদেশে আর কখনও যেন স্বাধীনতাবিরোধীরা ক্ষমতায় আসতে না পারে, সেজন্য এই দিবস পালন করতে হবে।’

জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ এই দিনে সরকারি ছুটি দাবি করেন।

আলোচনায় আরও অংশ নেন আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, মুহাম্মদ ফারুক খান, ড. মহীউদ্দিন খান আলমগীর, অধ্যাপক আলী আশরাফ আব্দুল মতিন খসরু, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, শাজাহান খান, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া, শওকত আলী, আলী আশরাফ প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ, দীপু মনি, আব্দুর রহমান, আব্দুল মান্নান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, নুরুল ইসলাম সুজন, কামাল আহমেদ মজুমদার, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ, ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতি তারানা হালিম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, এ বি তাজুল ইসলাম, ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমাযুন, পঞ্চনন বিশ্বাস, এ টি এম ওহাব, বজলুল হক হারুন, মনিরুল ইসলাম, সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য ফজিলাতুন নেসা বাপ্পী, নুরজাহান বেগম, আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, কাজী রোজী, জাতীয় পার্টির জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, ফখরুল ইমাম, নুরুল ইসলাম ওমর, জাসদের মইনউদ্দীন খান বাদল, ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা, সংরক্ষিত আসনের হাজেরা খাতুন, তরিকত ফেডারেশনের নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, বিএনএফ’এর আবুল কালাম আজাদ, স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য আব্দুল মতিন ও তাহ্জীব আলম সিদ্দিকী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here