২৫ মার্চ মানবসভ্যতার ইতিহাসে একটি কলঙ্কিত দিন-ড.হুমায়ুন কবির

0
300

আশানুর রহমান আশা : দেশ শ্রেষ্ট যশোর জেলা প্রশাসক বেনাপোল সিএন্ডএফ ঐক্য পরিষদ আয়োজিত ২৫ মার্চ জাতীয় গনহত্যা দিবস উপলক্ষে বললেন ২৫ মার্চ মানবসভ্যতার ইতিহাসে একটি কলঙ্কিত দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে সাধারণ বাঙালির ওপর নেমে আসে ভয়ঙ্কর এক অভিশাপ। বর্র্বর পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী এই রাতে ‘অপারেশন সার্চলাইট’-এর নামে ঘুমন্ত নিরস্ত্র বাঙালির ওপর আধুনিক মারণাস্ত্র নিয়ে হায়নার মতো ঝাঁপিয়ে পড়ে। এ অভিযানের উদ্দেশ্য ছিল বাঙালির মুক্তির আকাঙ্খাকে শুরুতেই ধ্বংস করে দেওয়া। সেই রাতে হানাদাররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, ইকবাল হল, রোকেয়া হল, শিক্ষকদের বাসা, পিলখানার ইপিআর সদর দফতর, রাজারবাগ পুলিশ লাইনে একযোগে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে হত্যা করে অগণিত নিরস্ত্র দেশপ্রেমিককে। সাধারণ মানুষ তো বটেই, এই অপারেশনের আসল লক্ষ্য ছিল দেশের নেতৃত্বস্থানীয় শ্রেষ্ঠ সন্তানদের নিঃশ্বেষ করে দেওয়া। এ ছাড়াও সেই রাতে একে একে দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক সংবাদ, জাতীয় প্রেসক্লাব অগ্নিসংযোগ, মর্টার শেল ছুড়ে ধ্বংসস্তুুপে পরিণত করে পাক হানাদাররা। এ হামলায় জীবন দিতে হয় বেশ কয়জন গণমাধ্যম কর্মীকেও। হানাদার বাহিনী ট্যাংক ও মর্টারের মাধ্যমে নীলক্ষেতসহ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা দখলে নেয়। সেনাবাহিনীর মেশিনগানের গুলি, ট্যাংক-মর্টারের গোলা ও আগুনের লেলিহান শিখায় নগরীর রাত হয়ে ওঠে বিভীষিকাময়। পাকিস্থানি হায়েনাদের কাছ থেকে রক্ষা পায়নি রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও। ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেব ও জ্যোতির্ময় গুহ ঠাকুরতা, অধ্যাপক সন্তোষ ভট্টাচার্য, ড. মনিরুজ্জামানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ৯ জন শিক্ষককে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়। ঢাবির জগন্নাথ হলে চলে নৃশংসতম হত্যার সবচেয়ে বড় ঘটনাটি। এখানে হত্যাযজ্ঞ চলে রাত থেকে সকাল পর্যন্ত।
বেনাপোল শাখারীপোতা স্বজনের পিকনিক কর্নারে বেনাপোল সিএন্ডএফ ঐক্য পরিষদ আযোজিত ২৫ মার্চ জাতীয় গনহত্যা দিবসে এক আলোচনা ও দোয়ামাহফিল অনুষ্ঠানে মফিজুর রহমান স্বজনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথী হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দেশশ্রেষ্ট জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবির, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বেনাপোল পৌরমেয়র আশরাফুল আলম লিটন, শার্শা উপজেলা নির্বাহি অফিসার আব্দুস সালাম, বেনাপোল পোর্ট থানা ওসি অপুর্ব হাসান প্রমুখ।

বিশেষ অতিথী আশরাফুল আলম লিটন বলেনএই কালরাত ছিল আসলে পাকবাহিনীর গণহত্যা কার্যক্রমের শুরু। এরপর ৯ মাসব্যাপী রক্তক্ষয়ী স্বাধীনতা সংগ্রামে আবির্ভূত হয় মুক্তিকামী বাঙালি। এই দীর্ঘ সময়ের যুদ্ধে অসংখ্য মা-বোনের সম্ভ্রম গেছে, প্রাণ হারিয়েছেন অসংখ্য নিরীহ বাঙালি। ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার মধ্য দিয়ে এ ইতিহাসের সমাপ্তি ঘটে। এখনো পৃথিবীর ইতিহাসে বর্র্বরতম গণহত্যাগুলোর একটি মানা হয় এই ২৫ মার্চকে।
মূলত ২৫ মার্চের এই গণহত্যার মধ্য দিয়েই পাক হানাদার বাহিনী শাসকরূপী শোষক হিসেবে নিজেদের পতনকে ত্বরান্বিত করে। বাঙালি লাভ করে চূড়ান্ত বিজয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here