৫ মার্চের অবস্থান কর্মসূচি সফলে প্রস্তুতিসভা

0
99

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর মেডিকেল কলেজে (যমেক) ৫০০ শয্যা হাসপাতালের দাবিতে যশোর-খুলনা মহাসড়কে ৫ মার্চ সকাল ১০টায় অবস্থান কর্মসূচি পালিত হবে। মেডিকেল কলেজের সামনে শংকরপুর বটতলায় অনুষ্ঠিতব্য এ কর্মসূচি সফল করার লক্ষ্যে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বাস্তবায়ন সংগ্রাম কমিটির প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার বিকেলে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বাস্তবায়ন সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক অ্যাড. আবুল হোসেন। কর্মসূচিতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক জনসমাগমের লক্ষ্যে নিকনির্দেশনামূলক মতামত ব্যক্ত করেন ও উপস্থিত ছিলেন ইকবাল কবির জাহিদ, শেখ হাফিজুর রহমান মাস্টার, ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, মুস্তাক হোসেন শিম্বা, ইলাহদাদ খান, নাজিম উদ্দিন, হারুন অর রশীদ, অর্চনা বিশ্বাস ইভা, মাহমুদ হাসান বুলু, নুরুল ইসলাম, প্রণব দাস, হাবিবুর রহমান মিলন, মনিরুল ইসলাম, রিয়াদুর রহমান, নওরোজ আলম খান চপল, সুজন দত্ত লালটু, মঞ্জুরুল আলম, সাইদ আহমেদ নাসির শেফার্ড, আবুল ফরহা, আজিজুল হুদা, অ্যাড. গোলাম মোস্তফা, নজরুল ইসলাম বুলবুল, মফিজুর রহমান হিমু, জাহাঙ্গীর হোসেন, আব্দুল আলীম গাজী, জান্নাতুল ফাতেমা প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বাস্তবায়ন সংগ্রাম কমিটির সদস্য সচিব জিল্লুর রহমান ভিটু।

সভায় নেতৃবৃন্দ যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বাস্তবায়নের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে অবস্থান কর্মসূচি সফল করার জন্য যশোরের সকল শ্রেণিপেশার মানুষের প্রতি আহ্বায়ক জানান। একইসাথে চলমান কর্মসূচির পাশাপাশি নতুন করে কর্মসূচি প্রণয়নের জন্য আহ্বান জানান।

নেতৃবৃন্দ বলেন, যশোর মেডিকেল কলেজ ৫০০ শয্যা হাসপাতালের আরডিপিপি বর্তমানে পরিকল্পনা কমিশনে আছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। এখান থেকে তা একনেকে অনুমোদনের জন্য যাবে। কিন্তু এর আগে মন্ত্রণালয়ের একটি সিদ্ধান্ত অশুভ ইঙ্গিত বহন করছে বলে আমরা মনে করছি। যেকোনো ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে হাসপাতালের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফেরা হবে না বলে নেতৃবৃন্দ সত দেন। তারা বলেন, এই দাবি বিশেষ কোনো মহলের নয়, বরং বৃহত্তর যশোরবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি।

অবস্থান কর্মসূচি সফল করার আহ্বায়ক জানিয়ে বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার ব্যাপক প্রচারণা চালানো হবে বলে সভায় ঐক্যমত্য পোষণ করা হয়।

উল্লেখ্য, বহু আন্দোলন সংগ্রাম ও ত্যাগের বিনিময়ে পাওয়া যশোর মেডিকেল কলেজ হলেও তা পূর্ণাঙ্গ হয়নি একদশকেও। দীর্ঘ ১০ বছরেও এ মেডিকেল কলেজের হাসপাতাল চালু করা হয়নি। যদিও যশোরের পরে স্থাপিত পাশের জেলা সাতক্ষীরা ও কুষ্টিয়ায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। যা যশোরবাসীর সাথে প্রতারণার সামিল। কারণ মেডিকেল কলেজের সঙ্গে হাসপাতাল না থাকলে সেই মেডিকেল কলেজ পূর্ণাঙ্গ হয় না।
বক্তারা বলেন, এ অবস্থায় মেডিকেল শিক্ষার্থীদের যথাযথ শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি বৃহত্তর যশোর অঞ্চলের সাধারণ মানুষ অধিকতর চিকিৎসাসেবা লাভে বঞ্চিত হচ্ছেন।
তাই আগামী ৫ মার্চ সকাল ১০টায় মেডিকেল কলেজ মোড়ে অবস্থান ধর্মঘটে সবাইকে উপস্থিত হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।
উল্লেখ্য, ২০১১ সালে যশোর মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হয়। প্রাথমিক অবস্থায় যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে কলেজটির সকল কার্যক্রম পরিচালনা করা হতো। পরবর্তীতে শহরের শংকরপুর এলাকায় নিজস্ব ক্যাম্পাসে কলেজ স্থানান্তর করা হয়। বর্তমানে কলেজে চার শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছেন।