‌বেনা‌পো‌লে অবৈধভা‌বে ভার‌তে পাচার হওয়া ১৪ নারী-‌শিশু‌কে হস্তান্তর

0
310

আশানুর রহমান আশা বেনাপোল : দে‌শের বি‌ভিন্ন সীমান্ত প‌থে অবৈধভা‌বে ভারতে পাচার হওয়া ১৪ বাংলাদেশি নারী, শিশুকে আটকের ৩ বছর পর বেনাপোলে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ।

বৃহস্পতিবার রা‌তে ট্রাভেল পারমিট মাধ্য‌মে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদেরকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।।

ফেরত আসারা হলেন- সাতক্ষীরার বাগুড়ে গ্রামের সাহেব আলীর ছেলে নুসাইন শেখ (১৩) ও মোমিনুর শেখ (১১), যশোরের শার্শা উপজেলার কাঠুরিয়া গ্রামের মান্নান শেখের ছেলে সেলিম শেখ (১১), শার্শার সাদিপুর গ্রামের শাহাবুদ্দিনের ছেলে হায়দার (১২), যশোর সদর এলাকার ইরশাদ মোড়লের ছেলে ইসরাফিল (১০), খুলনার রুপসা দেয়াড়া গ্রামের কবীর শেখের ছেলে আবুল হাসান (১২), বাগেরহাটের গোপালপুর গ্রামের সেলিমের ছেলে মুকতার (১০), চাঁদপুরের রশিদ খানের মেয়ে সাথী আকতার (১৮), গাজীপুরের আজিজুলের মেয়ে আকলিমা (১৯), মাগুরার মান্নান মজুমদারের মেয়ে শিরীনা বেগম (২১), সুবাস চন্দ্রের মেয়ে সিমু বিশ্বাস (১৪), ঢাকার আহম্মেদের মেয়ে ছালমা আক্তার (২০), মীরপুরের হারুনর রশিদের মেয়ে হালিমা আক্তার (১৯), সাতক্ষীরার খুলনা দৌলতপুর এলাকার আনোয়ার ব্যাপারির মেয়ে আখি খাতুন (২০), চাঁদপুরের বাবুরহাট এলাকার রশিদ খানের মেয়ে সাথী আক্তার (২২)।

বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম জানান, ফেরত আসা নারী-শিশুদের তাদের পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য ৩টি এনজিও সংস্থার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

ফেরত বাংলাদেশিদের মধ্যে আহসানিয়া মিশনের এনজিও প্রতিনিধি রফিকুল ইসলাম গ্রহণ করেন ৫ কিশোরকে। অন্যদিকে বাংলাদেশ মহিলা আইজীবী সমিতির নূরনাহার নিয়েছেন ৪ জনকে ও রাইটস যশোরের তাহামিনা গ্রহণ করেছেন ৫ জনকে।

এনজিওকর্মী নূরনাহার জানান, ভালো কাজের প্রলোভনে প‌ড়ে দালাল চ‌ক্রের মাধ্য‌মে তারা ভারতে পা‌ড়ি জমায়। প‌রে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ভারতীয় পুলিশ তাদের আটক করে আদালতে পাঠায়। সেখান থেকে কলকাতার নিলুয়াহোম নামে একটি এনজিও সংস্থা তাদের ছাড়িয়ে নিজেদের জিম্মায় রাখে। পরে তাদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেওয়া বিশেষ ট্রাভেল পারমিট আইনে তারা ফিরে আসছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তাদেরকে নিজ নিজ পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে।

তি‌নি ব‌লেন, যদি পাচারকারীদের সনাক্ত করে ‌কেউ মামলা করতে চায় তাহলে আইনি সহায়তা দেওয়া হবে।
আশানুর রহমান আশা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here