বসবাসযোগ্য বিশ্বের জন্য …

0
242

কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য ছাড়পত্র কবিতায় লিখে গিয়েছিলেন- ‘এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য ক’রে যাব আমি- নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।’ আমরা এখনও শিশুর বসবাসযোগ্য সেই বিশ্ব গড়তে পেরেছি কি-না, একুশের প্রথম প্রহরে চট্টগ্রাম মহানগরীর একটি নালা থেকে পরিত্যক্ত নবজাতক উদ্ধার আমাদের আরেকবার সেই প্রশ্নের সামনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। এ ধরনের অঘটন বিরলও নয়। আমরা জানি, জন্মের পরপরই অধিকাংশ শিশু যখন মাতা-পিতা ও আত্মীয়-স্বজনের পরম মমতা লাভ করে, তখন কিছু নবজাতক জন্মের পরই কতটা অসহায়ত্ব্ব নিয়ে পরিত্যক্ত হয়। নালায়, আবর্জনার স্তূপে, ফুটপাতে বা হাসপাতালের আঙিনায় পড়ে থাকা এসব ‘মানব সন্তান’ পৃথিবীর আলো দেখার আগেই জীবনের আভা হারিয়ে ফেলে। যারা মারা যায়, তারা এক অর্থে ‘বেঁচে’ যায়; যারা জীবন্মৃত হয়ে কিছু সময় বেঁচে থাকে, তাদের দুর্দশা যেন সবচেয়ে বেশি। আমাদের মনে আছে, বছর দুয়েক আগে রাজধানীর পুরনো বিমানবন্দরের একটি ঝোপ থেকে কুকুরের শিকারে পরিণত হওয়া এক নবজাতক উদ্ধার হয়েছিল। এও অস্বীকার করা যাবে না যে, নবজাতককে যেমন তার রক্তের সম্পর্কের স্বজন নিশ্চিত মৃত্যুর মুখে ফেলে যায়; অনাত্মীয় অনেকে তাকে বাঁচানোর চেষ্টাও করে। মনে আছে, চট্টগ্রামেই একবার এক পুলিশ কর্মকর্তা রাস্তায় প্রসব হওয়া এক শিশুকে উদ্ধার করে নিরাপদ মাতৃকোলের ব্যবস্থা করেছেন। সমকালে প্রকাশিত প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, চট্টগ্রামে উদ্ধার হওয়া নবজাতকটি এখন শঙ্কামুক্ত। একুশের প্রথম প্রহরে উদ্ধার হওয়ার জন্য তার নামও রাখা হয়েছে ‘একুশ’। সংশ্লিষ্টদের আমরা সাধুবাদ জানাই। এমন নাম রাখার তাৎপর্যও অনস্বীকার্য। কিন্তু মনে রাখতে হবে, সব শিশুর জন্য বসবাসযোগ্য বিশ্ব তৈরিই একুশ বা একাত্তরের মর্মবাণী। আমরা দেখি, শিশুদের জন্য পৃথিবীতে মমতার চেয়ে নিষ্ঠুরতা এখনও অনেক বেশি। এই চিত্র আমাদেরই সামষ্টিক ব্যর্থতা, স্বীকার করতেই হবে। ভাবতে হবে অনাকাঙ্ক্ষিত মাতৃত্বের সামাজিক অসহায়ত্বের কথাও। সমাজে পিতৃপরিচয়হীন সন্তানের মায়ের উপযুক্ত সম্মান ও সংস্থান করতে পারলে অনেক নবজাতকেরই এমন পরিণতি হতো না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here