একনজরে ঢাকা ও কোলকাতার পত্রপত্রিকার সব গুরুত্বপূর্ণ খবর

0
136

সুপ্রিয় পাঠক/শ্রোতা! আজ ২৭ অক্টোবর মঙ্গলবারের প্রাত্যহিক আয়োজন পত্রপত্রিকার পাতা বিশ্লেষন অনুষ্ঠান কথাবার্তায় আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছি । আসরের শুরুতে ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম তুলে ধরছি। এরপর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবরের বিশ্লেষণে যাবো।

প্রথমে বাংলাদেশ:

রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় অপ্রাপ্তবয়স্ক ১১ আসামির কারাদণ্ড -দৈনিক প্রথমআলো
সংসদে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনার দাবি চরমোনাই পীরের- দৈনিক কালের কণ্ঠ
আরও ২০ কোভিড রোগীর মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩৩৫: দৈনিক নয়াদিগন্ত।
৭ মাসে দেশে ফিরেছেন সোয়া ২ লাখ প্রবাসী-দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন
কাউন্সিলর পদ হারাচ্ছেন ইরফান সেলিম-দৈনিক মানবজমি

বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪ কোটি ৩৪ লাখ ছাড়াল: দৈনিক নয়াদিগন্ত
কোলকাতার দৈনিকগুলোর কিছু শিরোনাম:

ভাল কথা বা কাজ, কোনওটাতেই নেই ওরা’, বিহারে পরিবর্তনের ডাক সনিয়ার—দৈনিক আানন্দ বাজার
সরাসরি মার্কিন স্যাটেলাইট থেকে ছবি পাবে ভারত! প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক চুক্তি দু’দেশের-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন
হেপাজতে বাবা–ছেলেকে সন্ধে ৭.‌৪৫ থেকে ভোর তিনটে পর্যন্ত মেরেছিল পুলিশ:‌ সিবিআই
রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় অপ্রাপ্তবয়স্ক ১১ আসামির কারাদণ্ড -দৈনিক প্রথমআলো

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। রায়ে ৬ আসামিকে ১০ বছর করে, ৪ আসামিকে ৫ বছর করে এবং ১ আসামিকে তিন বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বাকি ৩ আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

বরগুনা জেলা শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে এই রায় দেন। এ সময় মামলার আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে গত ৩০ সেপ্টেম্বর এ মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় ঘোষণা করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। রায়ে নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁসির আদেশ দেন আদালত। বাকি ৪ জনকে বেকসুর খালাস দেন।

গত বছরের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে প্রকাশ্যে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় পরদিন রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বরগুনা থানায় ১২ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা ছিলেন এ মামলার প্রধান সাক্ষী। মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ড ওই বছরের ২ জুলাই পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন। ১ সেপ্টেম্বর মামলায় ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্ক দুভাগে বিভক্ত করে আদালতে পৃথক অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।

গত ৮ জানুয়ারি বরগুনার শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান ১৪ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। ১৩ জানুয়ারি অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। ১৪ অক্টোবর আসামিদের বিরুদ্ধে ৭৪ সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হওয়ার পর পক্ষে-বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

সংসদে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনার দাবি চরমোনাই পীরের- দৈনিক কালের কণ্ঠ

ফ্রান্সে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি থেকে দলটির আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম অবিলম্বে সংসদ অধিবেশনে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনার দাবি জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও পূর্ব সমাবেশে তিনি এ দাবি জানান। মুফতি রেজাউল করিম বলেন, ‘বাংলাদেশ ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশ। ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি রাসুল (সা.) কে নিয়ে ব্যঙ্গ উক্তি করার পর সারা বিশ্বের মুসলিম রাষ্ট্রপ্রধানরা বিভিন্ন ব্যবস্থা নিলেও আমাদের দেশের সরকার এখনো নিশ্চুপ কেন? এদেশের মুসলমানরা আপনাদের সম্পর্কে বুঝে গেছে আপনারা কোন পক্ষের।’

তিনি বলেন, ‘আজকের সমাবেশ থেকে আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি অচিরেই সংসদে বিল উত্থাপনের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয়ভাবে নিন্দা জ্ঞাপন করতে। ফ্রান্স দূতাবাসের মাধ্যমে আমাদের এ বার্তা পৌঁছে দিতে হবে। ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি যতক্ষণ প্রকাশ্যে ক্ষমা না চাইবে, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

তিনি ফ্রান্সের সঙ্গে বাংলাদেশের সব রকম কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবি জানিয়ে বলেন, ‘ওআইসিতে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনতে হবে। বাংলাদেশে রাসুল (সা.) এর বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীদের বিচারের জন্য কঠোর আইন পাস করতে হবে। ফ্রান্সের পণ্য বর্জন করতে হবে। আমাদের প্রতিবাদ বিক্ষোভ অব্যাহত রাখতে হবে।’ এসময় তিনি ঘোষণা দেন, আগামী বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) সারা দেশে জেলা ও মহানগরে এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে।

সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমদ, প্রথম যুগ্ম-মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, দফতর সম্পাদক লুৎফর হোসেন জাফরী, সহকারী মহাসচিব হাসান জামিল, ইসলামী যুব আন্দোলনের সভাপতি কেএম আতিকুর রহমান প্রমুখ।

আরও ২০ কোভিড রোগীর মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩৩৫: দৈনিক নয়াদিগন্ত

করোনায় দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৩৩৫ জন। মঙ্গলবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদফতর এক বুলেটিনে দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির সর্বশেষ এই তথ্য জানিয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ১ হাজার ৩৩৫ জনকে নিয়ে দেশে আক্রান্তে সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ১ হাজার ৫৮৬ জন। আরও ২০ জনের মৃত্যুতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫ হাজার ৮৩৮ জন হয়েছে।

গত একদিনে বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ১ হাজার ৫২৩ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে সুস্থ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে ৩ লাখ ১৮ হাজার ১২৩ জন হয়েছে। দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত ৮ মার্চ। এর ১০ দিনের মাথায় ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনে করোনাভাইরাসের উপদ্রব শুরু হয়। এটি বর্তমানে বিশ্বের ২১৩ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। ১১ মার্চ কোভিড ১৯-কে বৈশ্বিক মহামারী ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

৭ মাসে দেশে ফিরেছেন সোয়া ২ লাখ প্রবাসী-দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন

গত ৭ মাসে দেশে ফিরে এসেছেন ২ লাখ ২৫ হাজার ৫৮২ জন প্রবাসী বাংলাদেশি। গত ১ এপ্রিল থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত সময়ে বিশ্বের ২৯টি দেশ থেকে এসব প্রবাসী বাংলাদেশিরা কর্মী দেশে ফিরেন।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বাসস।

মন্ত্রণালয়ের প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের সহকারী পরিচালক মো. ফখরুল আলম জানান, গত ১ এপ্রিল থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত সময়ে যারা ফেরত এসেছে তাদের মধ্যে ২ লাখ ১৪৬ জন পুরুষ এবং ২৫ হাজার ৪৩৬ জন নারী রয়েছেন।

তিনি জানান, বিদেশ ফেরত কর্মীদের মধ্যে ১ লাখ ৯১ হাজার ১৯৪ জন পাসপোর্টধারী বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারণে কাজ না থাকা, কাজের বা চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়া, আকামা বা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ায় অবৈধ হয়ে যাওয়াসহ বিভিন্ন কারণে দেশে ফিরে এসেছেন। আবার বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগ করে আউটপাস নিয়ে ৩৪ হাজার ৩৮৮ জন কর্মী দেশে ফেরত এসেছেন।

ফেরত আসা কর্মীদের অনেকে আবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সংশ্লিষ্ট দেশে ফিরে যেতে পারবেন।

দেশে ফেরা কর্মীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি এসেছেন সৌদি আরব থেকে। এই সময়ে সৌদি থেকে এসেছেন ৬০ হাজার ৯৬৯ জন প্রবাসী কর্মী। এর মধ্যে পুরুষ ৫০ হাজার ৪৬৬ জন, আর নারী কর্মী রয়েছেন ১০ হাজার ৪০৩ জন। সৌদি ফেরত কর্মীদের মধ্যে বেশিরভাগই বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগ করে আউটপাস নিয়ে এবং কাজ না থাকায় ছুটি নিয়ে দেশে ফিরেছেন।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক কর্মী এসেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ না থাকায় সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ফিরেছেন ৫৯ হাজার ৯২০ জন। এর মধ্যে পুরুষ কর্মী ৫৫ হাজার ৮২ জন। আর নারী কর্মী ফিরেছেন ৪ হাজার ৮৩৮ জন।

বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগ করে আউটপাস নিয়ে ওমান থেকে দেশে ফেরত আসেন ১৩ হাজার ৪৮৬ জন। করোনাভাইরাসের প্রেক্ষিতে কাজ না থাকায় টুরিস্ট নির্ভর দেশ মালদ্বীপ থেকে ফিরেছেন ১২ হাজার ১৫৯ জন প্রবাসী কর্মী। আকামা বা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ায় কুয়েত থেকে দেশে ফিরেছেন ১০ হাজার ৮৯৩ জন। কাজের মেয়াদ শেষ হওয়ায় সিঙ্গাপুর থেকে ফিরেছেন ৪ হাজার ৬৪ জন। বাহরাইন থেকে ফিরেছেন ১ হাজার ৪১১ জন।

কাজ না থাকায় দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফিরে এসেছেন ৭১ জন প্রবাসী। কাতার থেকে ফিরেছেন ২৩ হাজার ১১৮ জন। মালয়েশিয়া থেকে ফিরেছেন ১০ হাজার ৮২১ জন। চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ায় দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ফিরেছেন ১৩৬ জন। কাজ না থাকায় থাইল্যান্ড থেকে ফিরেছেন ৮৯ জন, মিয়ানমার থেকে ৩৯ জন, জর্ডান থেকে ২ হাজার ২০৪ জন এবং ইরাক থেকে ফিরেছেন ৮ হাজার ৮৯২ জন। কাজের মেয়াদ শেষ হওয়ায় ভিয়েতনাম থেকে ফিরেছেন ১২১ জন এবং শ্রীলংকা থেকে ৫৪৮ জন।

অন্যদিকে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে ইতালি থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে ১৫১ জন প্রবাসী বাংলাদেশিকে। এই ১৫১ জন প্রবাসী গত ৬ জুলাই বাংলাদেশ থেকে ইতালি গেলে তাদের ফেরত পাঠানো হয়। পরে দেশে ফিরলে সবাইকে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল।

এছাড়া লেবানন থেকে ৬ হাজার ৬৯৯ জন, রাশিয়া থেকে ১০০ জন, মরিশাস থেকে ৪৫২ জন, তুরস্ক থেকে ৮ হাজার ৫৫৮ জন, নেপাল থেকে ৫৫ জন, হংকং থেকে ১৬ জন, কম্বোডিয়া থেকে ১০৬ জন, জাপান থেকে ৮ জন, লন্ডন থেকে ৫৩ জন, লিবিয়া থেকে ৩১৫ জন এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে ১২৮ জন প্রবাসীকর্মী দেশে ফেরত এসেছেন।

কাউন্সিলর পদ হারাচ্ছেন ইরফান সেলিম-দৈনিক মানবজমিন

কাউন্সিলর পদ হারাচ্ছেন এমপি হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম। ভ্রাম্যমান আদালত এক বছরের কারাদণ্ড দেয়ায় স্থানীয় সরকার বিভাগ তাকে কাউন্সিলর পদ থেকে বরখাস্ত করতে পারে। ইরফান সেলিম ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর। নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধর করার পর গতকাল হাজী সেলিমের বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। অভিযানে বেআইনি বিভিন্ন সমরঞ্জাম পাওয়ায় সেলিমপুত্রকে তাৎক্ষণিকভাবে এক বছরের কারাদণ্ড দেন র‍্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ গণমাধ্যমকে বলেন, দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে দণ্ডিত হওয়ার বিষয়ে রিপোর্ট পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এটা তো আইনে কাভার করে। ইরফান বরখাস্ত হবেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সিনিয়র সচিবি আরও বলেন, স্থানীয় সরকার সিটি করপোরেশন আইনে বলা হয়েছে, কেউ সাজা প্রাপ্ত হলে তিনি বরখাস্ত হবেন। গত রোববার রাতে এমপি হাজী মো. সেলিমের ‘সংসদ সদস্য’ লেখা সরকারি গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধর করা হয়। রাজধানীর কলাবাগান সিগন্যালের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪ কোটি ৩৪ লাখ ছাড়াল: দৈনিক নয়াদিগন্ত

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের (জেএইচইউ) প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য বলছে, বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা চার কোটি ৩৪ লাখ ছাড়িয়েছে।

জেএইচইউ এর তথ্য অনুযায়ী, মঙ্গবার সকাল পর্যন্ত প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে মারা গেছেন ১১ লাখ ৫৯ হাজার ৭৮০ জন। পাশাপাশি ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়েছেন দুই কোটি ৯২ লাখ ৪ হাজার ৩৭৯ ব্যক্তি।

সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যার দিক দিয়ে বিশ্বে প্রথমে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত ৮৭ লাখ চার হাজার ৫২৪ জন এবং দুই লাখ ২৫ হাজার ৭৩৫ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

দেশটির বিশেষজ্ঞরা আসছে শীতে পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার হুশিয়ারি দিয়েছেন। ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিক পূর্বাভাসে, আগামী ১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে দেশটিতে তিন লাখ ৪৬ হাজার জনের মৃত্যু হতে পারে বলে জানিয়েছে।

এদিকে, ২০২১ সালের মাঝামাঝির আগে কোনো ভ্যাকসিন সহজলভ্য হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এশিয়ার দেশ ভারত। তবে দেশটিতে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজারের নিচে নেমে আসছে।

রাশিয়াতে নতুন করে রেকর্ড ১৭,৩৪৭ জনের করোনা শনাক্তের খবর পাওয়া গেছে। সোমবার নতুন করে আক্রান্তদের নিয়ে মোট সংখ্যা দঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৩১ হাজার ২২৪ জনে।

ভাল কথা বা কাজ, কোনওটাতেই নেই ওরা’, বিহারে পরিবর্তনের ডাক সনিয়ার—দৈনিক আানন্দ বাজার

নোটবন্দি, লকডাউন নিয়েও নীতীশ ও বিজেপি জোটকে কটাক্ষ করেন সনিয়া। তাঁর দাবি, ‘‘বিহারের বুকে মহা সঙ্কট নেমে এসেছে। দলিত, অনগ্রসর শ্রেণির মানুষ লাগাতার নিপীড়নের শিকার সেখানে। বর্তমান বিহার সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকার, দু’টোই আসলে বন্দি সরকার। ওরা শুধু নোটবন্দি, লকডাউন করতে জানে, যা গোটা দেশে অর্থনৈতিক সঙ্কট ডেকে এনেছে।’’
সনিয়া আরও বলেন, ‘‘প্রতিভা, শক্তি, লোকবল এ সবই বিহারে রয়েছে। তা সত্ত্বেও স্বজন বিচ্ছেদ, বেকারত্ব, মুদ্রাস্ফীতি এবং অনাহারের অভিশাপ বয়ে বেড়াতে হচ্ছে রাজ্যবাসীকে। অপরাধমূলক কাজকর্মে মদত জুগিয়ে, মানুষকে ভয় দেখিয়ে সরকার গড়া যায় না। তাই বিহারবাসীর কাছে অনুরোধ, মহাজোটকে ভোট দিয়ে পরিবর্তন আনুন।’’

হেপাজতে বাবা–ছেলেকে সন্ধে ৭.‌৪৫ থেকে ভোর তিনটে পর্যন্ত মেরেছিল পুলিশ:‌ সিবিআই

লকডাউনের সময় নিয়ম ভেঙে অতিরিক্ত ১৫ মিনিট নিজেদের মোবাইলের দোকান খোলা রেখেছিল বাবা–ছেলে। সেজন্য তামিলনাড়ুর সান্থানকুলাম থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে পুলিশ রাতভর বেধড়ক মারে দু’‌জনকে। পরে হাসপাতালে মৃত্যু হয় দু’‌জনের। দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

ঘটনার তদন্তে নেমে ভয়াবহ তথ্য প্রকাশ করল সিবিআই। চার্জশিটে জানাল, ১৯ জুন সন্ধে ৭টা ৪৫ মিনিট থেকে ভোর ৩টে পর্যন্ত জয়রাজ (‌৫৯)‌ আর ছেলে বেনিকস (‌৩১)‌কে লাঠি দিয়ে পিটিয়েছে পুলিশ। উদ্দেশ্য ছিল, ‘‌উচিত শিক্ষা দেওয়া’‌। এতটাই মেরেছিল, যে সাথানকুলাম থানার দেওয়ালে রক্ত ছিটে এসে লেগেছিল। বেনিকসকে অন্তর্বাস খুলিয়ে সেই রক্তের দাগ মুছতে বাধ্য করেছিল পুলিশ। ফরেনসিক তদন্তে সে তথ্য জানা গেছে।

সরাসরি মার্কিন স্যাটেলাইট থেকে ছবি পাবে ভারত! প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক চুক্তি দু’দেশের-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

ভারত-আমেরিকা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে নয়া অধ্যায়। এবার দুই দেশের মধ্যে প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত ঐতিহাসিক BECA স্বাক্ষরিত হল। মঙ্গলবার ভারত-আমেরিকা হাই-প্রোফাইল ২+২ বৈঠকে চিন বিরোধিতাকে সুসংহত চেহারা দিতে এবং কৌশলগত সম্পর্ককে আলাদা উচ্চতায় নিয়ে যেতে এই ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষর করে দুই দেশ।

গতকালই ভারতে এসেছেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও এবং প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এসপার ।মঙ্গলবার তাঁরা ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সঙ্গে ২+২ বৈঠকে অংশ নেন। সেখানেই স্বাক্ষরিত হয় ঐতিহাসিক Basic Exchange and Cooperation Agreement for Geo-Spatial Cooperation (BECA) চুক্তি। এটি স্বাক্ষরিত হওয়ার ফলে, ভারতীয় ও মার্কিন ফৌজের মধ্যে তথ্য আদানপ্রদান আরও মজবুত হবে। ভারতের জন্য যেটা সবচেয়ে জরুরি তা হল, চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হওয়ায় মার্কিন মিলিটারি স্যাটেলাইট থেকে লাইভ ছবি পাবে ভারতীয় সেনা। লাদাখে সংঘর্ষের আবহে চিনা ফৌজের গতিবিধির উপর নজর রাখতে এটা অত্যন্ত প্রভাবশালী পদ্ধতি হবে।লাদাখের পরিস্থিতি, দক্ষিণ চিন সাগরে যুদ্ধের সম্ভাবনা, চিনের বিরুদ্ধে কোয়াড গোষ্ঠীর সামরিক পদক্ষেপ-সহ বিভিন্ন বিষয় আলোচনা করেন রাজনাথ ও এসপার