ঘটনাটি উদ্বেগজনক

0
293

দেশের আর্থিক খাত লইয়া বিশৃঙ্খলার নানান সংবাদ পত্রিকান্তরে প্রায়শই প্রকাশিত হয়। অনিয়ম আর দুর্নীতির কারণে এই খাতের শৃঙ্খলা রক্ষা করা যাইতেছে না। যখন যাহারাই দায়িত্বে আসুক, প্রভাব প্রতিপত্তি আর ক্ষমতাসীনদের অঙ্গুলি হেলনে স্পর্শকাতর ব্যাংকিং খাত পরিচালিত হইয়া থাকে। ইহা সাধারণ মাত্রই জানেন। হলমার্ক, বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির পর রিজার্ভ চুরির ঘটনা দেশের ব্যাংকিং খাতকে মারাত্মক ঝাঁকুনি দিয়া গিয়াছে। একটি দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক হইতে যদি রিজার্ভ চুরি হইয়া যায়, তাহা হইলে ওই দেশের আর্থিক খাতের সার্বিক নিরাপত্তা লইয়া প্রশ্ন অবান্তর নহে। এই বারে ঘটিল আগুনের ঘটনা। কিন্তু কেন? গত রাতে যখন চারিদিক চাউর হইয়া গিয়াছে যে, বাংলাদেশ ব্যাংকে আগুন লাগিয়াছে, তখন অনেকেই ইহার নিরাপত্তা লইয়া প্রশ্ন তুলিয়াছেন। তাহারা বলিয়াছেন, সরকার-ঘোষিত কেপিআই এলাকা হিসাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের আরো ঝুঁকিমুক্ত অবস্থান নিশ্চিত করা জরুরি ছিল। ২০০৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় ব্যাংককে কী-পয়েন্ট ইনস্টলেশনস (কেপিআই) ঘোষণা করা হয়। ইহার পর সাধারণের চলাফেরায় কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। এমনকি প্রয়োজনে ব্যাংকিং খাতের ব্যক্তিবর্গকেও বাংলাদেশ ব্যাংকে গমন করিতে হইলে বিশেষ পাস সংগ্রহ করিতে হয়। যান্ত্রিক চেকিংয়ের ব্যবস্থাতো আছেই। যে কারণেই প্রশ্ন উঠিয়াছে— এত কড়াকড়ির পরও কীভাবে আগুন লাগিল? কীভাবে রিজার্ভ চুরি হইল? কীভাবে প্রায়শই ভল্ট হইতে টাকা চুরি হইয়া যায়? দুইজন বিদেশিও টাকা চুরির ঘটনায় একবার ধৃত হইয়াছেন। তাহার পরও টনক নড়ে নাই কেন?

এমন নানান প্রশ্নের মুখে আগুন লাগিবার ঘটনার পর আলোচনায় আসিয়াছে যে, নূতন কোনো ঘটনা আড়াল করিবার জন্যই কি তবে এই আগুন? বাঙালি মানস বড় কৌতুহল প্রবণ। এই কৌতূহল হইতেই গুজবের ডালপালা গজাইতে থাকে। ইহারই মধ্যে ত্রিশতলা ভবনটির ১৪তলায় আগুন লাগিল। এই ভবনটিতেই মূলত গুরুত্বপূর্ণ সব কার্যাদি সম্পন্ন হইয়া থাকে। এইখানেই মহাব্যবস্থাপকের কক্ষ— যেখানে রহিয়াছে গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র। এমনকি বৈদেশিক বাণিজ্যের সিস্টেম সুইফট-এর কার্যক্রমও এই ভবন হইতে পরিচালিত হয়, যাহার মাধ্যমে বৈদেশিক লেনদেন ও রিজার্ভের অর্থ পরিশোধ করা হইয়া থাকে। তাহা হইলে পর্যায়ক্রমে সুইফট সিস্টেমও কি আগুনের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হইত না? দেশের সার্বিক আর্থিক কর্মকাণ্ডকে স্থবির করিয়া দিলে কাহারা লাভবান হইত, তাহাদের চিহ্নিত করা এই মুহূর্তে জরুরি হইয়া পড়িয়াছে। ইহা নিছকই একটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা বলিয়া কেহ আর মানিয়া লইতেছে না। যদিও দুইটি তদন্ত কমিটি গঠিত হইয়াছে। তাহারা ২৮ মার্চের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিবেন। রিজার্ভ চুরির তদন্ত রিপোর্টও একইভাবে জমা হইয়াছিল। কিন্তু প্রতিশ্রুতিসত্ত্বেও জনসমক্ষে তাহা আজও প্রকাশ করা হয় নাই।

একের পর এক ব্যাংকিং খাতের অঘটন, সর্বশেষ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই আগুনে উদ্বিগ্ন না হইয়া পারা যায় না। ভবনে আগুন লাগিলেও ফায়ার অ্যালার্ম বাজে নাই। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কেহই ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয় নাই। পথচারীরাই ফায়ার সার্ভিসকে ডাকিয়া আনিয়াছেন। ইহার পেছনে অভ্যন্তরীণ কিংবা আন্তর্জাতিক কোনো ষড়যন্ত্র রহিয়াছে কি না—তাহাও খতাইয়া দেখা যাইতে পারে। ব্যাংক ও আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসাবে যেকোনো ধরনের বিপর্যয় হইতে রক্ষার পূর্বপ্রস্তুতি থাকা বাঞ্ছনীয় ছিল। এক্ষণে এই ঘটনাকে গুরুত্ব দিয়া পুরো নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢালিয়া সাজাইবার প্রয়োজন আছে বলিয়া আমরা মনে করিতেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here