ঝিকরগাছা প্রশাসন কাপ ফুটবলে চলছে বিদেশি খেলোয়াড় প্রদর্শনের মহড়া ॥ কার্যত উদ্দেশ্য ব্যহত

0
1145

এম আর মাসুদ : যশোরের ঝিকরগাছায় উপজেলা প্রশাসন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৭ তে চলছে টাকার বিনিময়ে বিদেশিসহ দেশের নামিদামি খেলোয়াড় প্রদর্শেনের বিরাট মহড়া। দর্শক নন্দিত এই খেলায় প্রতিদিন বিকেলে হাজার হাজার এক শ্রেণির দর্শক যেমন ভিন দেশি খেলোয়াড়দের খেলা দেখে মুগ্ধ হচ্ছে তেমনি আরেক শ্রেণির দর্শক বিশেষ করে সুধিমহল স্থানীয় খেলোয়াড়দের খেলায় অংশগ্রহনের সুযোগ না দেওয়ায় মূলত টুর্নামেন্টের উদ্দেশ্য ব্যহত হচ্ছে বলে মনে করেন।
ঝিকরগাছা উপাজেলা প্রশাসনের আয়োজনে গত ৬ অক্টোবর ঝিকরগাছা বিএম হাইস্কুল মাঠে শুরু হয় এই ফুটবল টুর্নামেন্ট। উপজেলার ১১ টি ইউনিয়ন ও ঝিকরগাছা পৌরসভা ৪টি গ্রৃুপে বিভক্ত হয়ে গ্রুপ পর্বের খেলায় লিগ পদ্ধতিতে খেলে সর্বোচ্চ পয়েন্ট নিয়ে ২ টি করে দল কোয়ার্টার ফাইনালে প্রতিদ্বন্দি¦তা করেছে। প্রথম পর্ব থেকেই বিদেশিসহ বাহিরের খেলোয়াড়ের অংশগ্রহন চলছে টুর্নামেন্টে। বিশেষ করে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলায় বিদেশিসহ বিভিন্ন বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ের খেলোয়াড়দের অংশগ্রহন ছিল লক্ষ্যনীয়। পুরো টিম জুড়ে ছিল বাহিরের খেলোয়াড়। ফলে স্থানীয় খেলোয়াড়দের অংশগ্রহনের কোন সুযোগ দেওয়া হয়নি। তাছাড়া কাড়ি কাড়ি টাকা খরচ করে বিদেশিসহ বাহিরের খেলোয়াড় আনার আর্থিক বিষয়টি নিয়েও চলছে সুধিমহলে নানা আরোচনা-সমালোচনা। অনেকের মতে, ঢের টাকা দিয়ে বিদেশিসহ বাহিরের খেলোয়াড় আনার আর্থিক বিষয়টি সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়ন ও পৌরসভার মেয়র, চেয়ারম্যান, মেম্বর, কাউন্সিলররা ব্যক্তিগত ভাবে মিটাবেন নাকি খরচের ভাউচার জমা দিয়ে পরিষদের ঘাড় ভাঙবেন? অনেকে আবার খরচের বিল ভাউচার বেড়ে যাওয়ার মন্তব্যও করেছেন। যদি তাই হয় তাহলে, এই ফুটবল টুনামের্ন্টের লাভ কি হল? এমন জিঙ্গাসা সুধিমহলের। স্থানীয় খেলোয়াড়দের অংশগ্রহনের সুযোগ না থাকায় ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায় কোন ভাল খেলোয়াড় তৈরির সুযোগও অনেকটায় ক্ষীণ। নির্বাসখোলা ইউনিয়নের লিয়াকত আলী নামে এক সদস্য জানান, ৩ মাঠ খেলতে শুধু বাহিরের খেলোয়াড়দের দিতে হয়েছে ৭৬ হাজার টাকা। নাভারণ ইউনিয়নের মাহবুবুর রহমান কাকন নামে আরেক সদস্য জানান, তাদেরও ৩ মাঠের খেলায় বিদেশিসহ বাহিরের খেলোয়াড়দের গুনতে হয়েছে লক্ষাধিক টাকা। আরিফুল ইসলাম সোহাগ নামে পৌরসভা একাদশের ২ মাঠে অংশ নেওয়া এক খেলোয়াড় আক্ষেপ করে বলেন, টাকার ছড়া ছড়িতে বিদেশিসহ বাহিরের খেলোয়াড়ের কারণে সারা বছর এই উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম, ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায় যারা নিয়মিত ফুটবল খেলেন তারা বঞ্চিত হয়েছেন। তিনি আরো বলেন, উপজেলা প্রশাসন কাপ টুর্নামেন্টে যদি উপজেলা পর্যায়ে উদীয়মানরা খেলার সুযোগ না পায় তাহলে এই টুর্নামেন্টের দরকার কি। উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার শ্যামল কুমার বসু জানান, যদিও ম্যাচগুলো দর্শক নন্দিত হয়েছে তবে স্থানীয় খেলোয়াড়দের অংশ নিতে না পারায় টুর্নামেন্টের মূল উদ্দেশ্য ব্যহত হয়েছেন বলে মত দেন। গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বদরউদ্দীন বেল্টু বিদেশিসহ বাইরের খেলোয়াড় দিয়ে টুর্নামেন্টের বিপক্ষে। তিনি জানান, তাঁর ইউনিয়ন একাদশে কোন বিদেশি বা বাহিরের খেলোয়াড় না থাকায় টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিতে হয়েছে। জেলা পরিষদ সদস্য ইকবল আহমেদ রবি বলেন, যে উদ্দেশ্যে টুর্নামেন্ট দেওয়া তা সফল হচ্ছে না। যদি টাকার বিনিময়ে বিদেশিসহ বাহিরের খেলোয়াড় দিয়ে টুর্নামেন্ট হয় তাহলে আমাদের উপজেলায় প্রতিভাবান ফুটবলার তৈরি হবে না। এবিষয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম জানান, প্রথম থেকেই বলা আছে ৪ জনের বেশি বহিরাগত খেলোয়াড়ের অনুমতি নেই। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কারণে টুর্নামেন্টে স্থানীয় খেলোয়াড়রা বাদ পড়েছেন। তিনি আগামি টুর্নামেন্টে এ বিষয় কড়াকড়ি আরোপের আশা ব্যক্ত করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here