নির্বাচন কমিশনার যশোরের আহসান হাবীব

0
91

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাবেক সিনিয়র সচিব কাজী হাবিবুল আউয়ালকে নতুন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন সাবেক জেলা ও দায়রা জজ বেগম রাশিদা সুলতানা, অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহসান হাবীব খান, সাবেক সিনিয়র সচিব আলমগীর ও সাবেক সিনিয়র সচিব আনিছুর রহমান।

শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। প্রজ্ঞাপনে স্বাক্ষর করেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

কাজী হাবিবুল আউয়াল: কাজী হাবিবুল আউয়াল অবিভক্ত আইন মন্ত্রণালয়, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় ও সংসদ সচিবালয়ে সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। সর্বশেষ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব হিসেবে ২০১৭ সালে অবসর নিয়েছিলেন তিনি। বিসিএসের ১৯৮১ ব্যাচের এই কর্মকর্তা সরকারি চাকরি থেকে বিদায় নেয়ার পর ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছিলেন।

নতুন সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল চট্টগ্রামের দক্ষিণ সন্দ্বীপে। ১৯৫৫ সালে কুমিল্লা শহরে পিতার কর্মস্থলে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

খুলনার সেন্ট জোসেফস হাই স্কুল থেকে তিনি ১৯৭২ এসএসসি, ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৭৪ সালে এইচএসসি এবং এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৮ সালে আইন শাস্ত্রে এলএলবি (সম্মান) এবং ১৯৮০ সালে এলএলএম করেন।

পরে ১৯৮১ সালে তিনি বিচার কর্ম বিভাগে মুন্সেফ (সহকারী জজ) পদে যোগদান করে জেলা ও দায়রা জজসহ বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

রাশেদা সুলতানা: বেগম রাশেদা সুলতানার বাড়ি সিরাজগঞ্জ শহরে। তার বাবাও ছিলেন একজন আইনজীবী। রাশেদা সুলতানা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে অনার্সসহ মাস্টার্স ডিগ্রি সম্পন্ন করে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে দেশের বিভিন্ন জায়গায় কর্মরত ছিলেন। চাকরি থেকে অবসর নেয়ার পর তিনি নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ পেলেন।

আহসান হাবীব খান: অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহসান হাবীব খানের বাড়ি যশোর জেলার চৌগাছা উপজেলার হাকিমপুর ইউনিয়নের যাত্রাপুর গ্রামে। তিনি মৃত লুৎফর রহমান খানের পুত্র। আহসান হাবীব ২০১৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যান। পরে ২০১৪ সালের ২৭ আগস্ট বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে সরকার চুক্তিতে তিন বছরের জন্য নিয়োগ দেয় তাকে।

এর আগেও তিন বছরের জন্য বিটিআরসির স্পেকট্রামের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এছাড়া বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে পরিচালিত বিটিআরসিতে একটি প্রকল্পে এক বছরের জন্য মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা। চাকরি থেকে অবসর নেয়ার পর তিনি নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ পেলেন।

আলমগীর: সিনিয়র সচিব আলমগীর ১০ জুন ২০১৯ তারিখে সচিব হিসেবে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে যোগদান করেন। পরবর্তী সময়ে ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে সিনিয়র সচিব হিসাবে পদোন্নতি পেয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে কর্মরত ছিলেন।

এর আগে, তিনি কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সচিব হিসেবে ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আলমগীর ১৯৮৬ সালে বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে সহকারী কমিশনার হিসেবে সিলেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে চাকরিজীবন শুরু করেন।

এরপর তিনি বিভিন্ন সময় দেশে ও বিদেশে সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর মহাপরিচালক, ঢাকা সিটি করপোরেশন (দক্ষিণ) এর প্রশাসক ও প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং দেশে-বিদেশে বহু প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

শিক্ষাজীবনে আলমগীর ১৯৮২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ থেকে অনার্স এবং ১৯৮৩ সালে একই বিষয়ে এম.এস.এস ডিগ্রি অর্জন করেন।

আলমগীরের গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জের হরিরামপুরে।

আনিছুর রহমান: আনিছুর রহমান জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে, তিনি ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

আনিছুর রহমান ৩১ ডিসেম্বর ১৯৬২ সালে শরীয়তপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি ও চাঁদপুর সরকারি কলেজ হতে এইচএসসি পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

আনিছুর রহমান বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন ক্যাডারের ১৯৮৫ ব্যাচের সদস্য হিসেবে ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৮ সালে ক্যাডার সার্ভিসে যোগদান করেন। চাকরিজীবনে তিনি প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে সহকারী কমিশনার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটসহ উপজেলা ও জেলায় বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মন্ত্রি পরিষদ বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ, অর্থ বিভাগ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালে তিনি ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে ভারপ্রাপ্ত সচিব এবং একই মন্ত্রণালয়ে ৪ এপ্রিল ২০১৮ তারিখ থেকে ৪ জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত সচিব হিসেবে কমর্রত ছিলেন।

৫ জানুয়ারি ২০২০ সালে তিনি জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগে সচিব পদে যোগদান করে ২৭ জানুয়ারি ২০২০ সাল থেকে সিনিয়র সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।