নড়াইলে মাদরাসাছাত্র আরাফাত হত্যার রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ২

0
70

নিজস্ব প্রতিবেদক : নড়াইলের মাদরাসা ছাত্র আরাফাত আলী (১১) হত্যার রহস্য উদঘাটন ও মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় গ্রেফতার দুই আসামি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, অন্যের গাছের কাঁঠাল চুরির কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আরাফাত আলীকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর মৃতদেহ বাঁশ বাগানের মধ্যে বাঁশের পাতা দিয়ে ঢেকে রাখে।

মঙ্গলবার ভোরে নড়াইল সদর উপজেলার বোড়ামারা গ্রামে তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে তৌহিদুর রহমানের ছেলে নাবিল (১৬) ও সাহিদুর রহমানের ছেলে মিলন হোসেনকে (২২) গ্রেফতার করা হয়। তাদের আদালতে সোপর্দ প্রক্রিয়াধীন। নিহত আরাফাত আলী নড়াইল সদর উপজেলার বোড়ামারা গ্রামের ওবাইদুর রহমান শিকদারের ছেলে ও স্থানীয় পেড়লী দাখিল মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র ।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) যশোরের পুলিশ সুপার রেশমা শারমিন জানান, ১২ মার্চ সকাল ৯টার দিকে মাদরাসার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয় আরাফাত আলী। বিকেল ৩টা বেজে গেলে বাড়িতে ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন খোঁজাখুজি শুরু করে। ওই দিন নড়াইল সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তার পিতা। পরের দিন (১৩ মার্চ) সকাল বেলা আরাফাত আলীর বড় ভাই মহব্বত আলী ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে ০১৯৫৫৯৪২১৬৪ হতে “তুই খুব বড় একটা জিনিস হারতে চলেছিস” লেখা মেসেজ আসে। এরপর ১৪ মার্চ আরাফাত আলীর পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধারের জন্য জিডি কপি নিয়ে যশোরে পিবিআই পুলিশ সুপারের কাছে আবেদন করে। পিবিআই বিষয়টি আমলে নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করে। পিবিআই টিম মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) ভোরে অভিযুক্ত নাবিল ও মিলন হোসেনকে তাদের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেখানো মতে নড়াইল সদর থানার বোড়ামারা গ্রামের জনৈক মাহাবুর এর বাঁশবাগান থেকে ভিকটিম আরাফাত আলীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। অভিযুক্ত নাবিলের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায়ে ব্যবহৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত আরাফাত আলী’র পিতা ওবাইদুর রহমান নড়াইল সদর থানায় গ্রেফতার দুইজনের নামে মামলা করেছেন।