নড়াইলে ম্যারেজ মৌলভীর বিরুদ্ধে জাল কাবিনের অভিযোগ

0
532

নড়াইল প্রতিনিধি
নড়াইলে কাবিননামা জালিয়াতি করে দেনমোহরের পরিমান বাড়িয়ে লেখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে জেলা রেজিষ্টার ও জেলা প্রশাসক বরাবর শহীদুল ইসলাম নামে এক ভুক্তভোগী ১১ জুলাই লিখিত অভিযোগ করেছেন। জাল কামিনের কারণে ভূক্তভোগীরা বেকায়দার পড়েছেন।
অভিযোগের বিবরণে জানা যায়, সদর উপজেলার আলীগঞ্জ গ্রামের মৃত আঃ ছবুর শেখের কন্যা মোছাঃ ছাবরিনা আক্তারের সাথে দুইলক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য পূর্বক পঁচিশ হাজার টাকা ওয়াশীল এবং চাহিবা মাত্র একলক্ষ টাকা প্রদান ও পঁচাত্তর হাজার টাকা পরিশোধ উল্লেখ পূর্বক গত ২৬ অক্টোবর ২০১৬ সালে  সদর উপজেলার পশ্চিম রঘুনাথপুর গ্রামের শহীদুল ইসলাম নামে এক প্রাইমারী স্কুল শিক্ষকের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু দাম্পত্য কলহের কারণে ৭ জুলাই সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার সভাপতিত্বে ও চেয়ারম্যান চ-িবরপুর ইউনিয়ন এর উপস্থিতিতে এক সালিশ  বৈঠক হয়। উক্ত বৈঠকে শহীদুলের স্ত্রী তার সঙ্গে সংসার করবে না বলে সিদ্ধান্ত প্রদান পূর্বক তার দেনমোহর পরিশোধের জন্য পাঁচলক্ষ টাকার একটি কাবিননামার সত্যায়িত কপি উপস্থাপন করেন। সেই কাবিননামা জালিয়াতির স্পষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে ছেলে পক্ষের অভিযোগ। কাবিননাম পর্যালোচনা করে দেখা যায়, সেখানে দেনমোহরের দুইলক্ষ টাকার অঙ্কের ২ টিকে কাটাকাটি করে ৫ এবং কথায় লেখা দুই শব্দটিকে  কোনভাবে মুছে ফেলে পাঁচ করা হয়েছে। ঘষামাজার কারণে কাবিননামাটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রমাণ স্বরূপ বলা যায় কবিননামাটির ডটেড লাইন মুছে গেছে এবং উপরের লাইনের তারিখ ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় তা পুনরায় লেখা হয়েছে। চাহিবা মাত্র প্রদান একলক্ষ টাকার অঙ্কের ১ টিকে ঘষামাজা করে ৪ এবং উক্ত ঘষামাজার কারণে ১ এর পরবর্তী দুইটা শূন্য ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় তা দোকর করা হয়েছে। সে কারণে অভিযোগকারী শহিদুল ইসলাম, নড়াইল সদর উপজেলার সীমানন্দপুর গ্রামের কাজী মকবুল হোসেন ছেলে ম্যারেজ মৌলভী কাজী রকিবুল ইসলামের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করেছেন।
এ প্রসঙ্গে ম্যারেজ মৌলভী কাজী রকিবুল ইসলাম বলেন, ‘আমার কাবিনে কোন কাটাকাটি নাই্। উভয় পক্ষের মতামতের ভিত্তিতে কাবিন নামার দেনমহোর লেখা হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here