প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সন্মেলনে স্ত্রীর অভিযোগ অপহৃত ব্যবসায়ী ও ৪ দিনেও খোঁজ মেলেনি

0
218

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে অপহৃত ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক সাইদুর রহমান সোহেল গত ৪দিনে উদ্ধার ও তার খোঁজ মেলেনি। সুস্থ শরীরে তার ফেরতের দাবি জানিয়েছেন স্ত্রী শ্রাবণী আক্তার। শুক্রবার সকালে প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলনে তার স্ত্রী এ দাবি জানান।
শ্রাবণী আক্তার সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন, সাইদুর রহমান সোহেল যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক সমাজের কথা পত্রিকার খুলনা বিভাগীয় চীফ রিপোর্টার এবং সিএনএন বাংলা টিভির রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত আছেন। এছাড়া যশোর উপশহরের রজনীগন্ধা তেল পাম্প এলাকায় একটি এস এ অটো মোবাইল সার্ভিসিং সেন্টার এর ব্যবসা রয়েছে। গত ১০ অক্টোবর দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে তার স্বামীর মোবাইলে তামান্না নামে এক অজ্ঞাত মহিলা ফোন করেন। তার স্বামী দীর্ঘ ২০ বছর যাবত বিদেশে থাকে এবং কিছু লোক তাকে ব্লাকমেইল করছে বলে তার একটি নিউজ করার অনুরোধ করেন। সোহেল তাকে থাকায় জিডি করার এবং প্রেসক্লাব যশোরে যাওয়ার পরামর্শ দেন। ১২ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ফের ওই মহিলা ফোন করে জানায়, থানায় জিডি করা হয়েছে। তার সাথে জরুরি ভিত্তিতে দেখা করার অনুরোধ করেন। এসময় সোহেল তার এসএ অটো মোবাইল সার্ভিসিং সেন্টারে আসতে বলেন। সোহেল তার অফিস সহকারী রাকিবুল ইসলাম, ক্যামেরা ম্যান মিঠুন চক্রবর্তীকে সাথে করে নিজস্ব প্রাইভেটকারে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মোবাইল সার্ভিসিং সেন্টারে যান। এসময় তামান্না নামে ওই মহিলা আসেন। তার সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে সিলভার রং এর হাইএক্স মাইক্রোবাসে অজ্ঞাত নামা ৭/৮জন সাদা পোশাকধারী এসে সোহেলকে তুলে নিয়ে যশোর শহরের দিকে চলে আসে। এরপর থেকে তাকে পাওয়া যাচ্ছে না।
চার বছরের কন্যা সন্তানকে কোলে নিয়ে শ্রাবণী আক্তার আরো বলেন, সোহেল নিখোঁজ হওয়ার পর যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রশাসনের বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দেয়া হলেও গত ৪/৫দিন ধরে তার কোন সন্ধান পাননি। চার বছর বয়সের মেয়েকে নিয়ে তিনি খুব কষ্টে আছেন। দ্রুত তার স্বামীকে সুস্থ শরীরে ফেরতের দাবি জানান শ্রাবণী আক্তার।
সংবাদ সম্মেলনে চার বছরের কন্যা মুসাইবা আয়াত অরিন, সোহেলের বোন আয়েশা খাতুন উপস্থিত ছিলেন।
দৈনিক সমাজের কথা পত্রিকার বার্তা সম্পাদক, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মিলন রহমান জানান, সাইদুর রহমান সোহেল দৈনিক সমাজের কথা পত্রিকার খুলনা ব্যুরো অফিসে কর্মরত আছেন। তাকে দ্রুত উদ্ধার করার জন্য প্রশাসনকে আহবান জানিয়েছেন। এব্যাপারে জানতে চাইলে কোতয়ালী থানার ওসি তদন্ত শেখ তাসনিম আলম বলেন, তার স্ত্রীর অভিযোগ তদন্ত অব্যাহত আছে৷