ভয়ঙ্কর বন্যার পদধ্বনি

0
213

বহু বত্সর ধরিয়াই বন্যার সহিত আমাদের নিত্য বসবাস। এই বদ্বীপ গঠিতই হইয়াছে বন্যাসৃষ্ট পলিমাটি দ্বারা। ভাটির দেশ হিসাবে বাংলাদেশের উপর দিয়াই মৌসুমি বৃষ্টিজনিত উজানের পানি প্রবাহিত হইয়া থাকে। সেই হিসাবে বন্যা আমাদের অস্তিত্বেরই অংশ। কিন্তু বন্যা যদি অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করে, তবে তাহা এতদাঞ্চলের দুর্ভোগকে চরম পর্যায়ে লইয়া যাইতে পারে। এই বত্সর বন্যার পূর্বাভাস ছিলই, তাহার সহিত সমপ্রতি দ্য ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর মিডিয়াম-রেঞ্জ ওয়েদার ফোরকাস্ট (ইসিএমডব্লিউএফ) জানাইয়াছে, বাংলাদেশে গত ২০০ বত্সরের মধ্যে সবচেয়ে বড় বন্যা হইতে পারে। আমরা দেখিতে পাইতেছি ব্রহ্মপুত্র, গঙ্গা ও তিস্তা অববাহিকায় রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টি হইয়া চলিতেছে। মৌসুমি বৃষ্টির অতিবর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় ভারত ও নেপালে মৃত্যু হইয়াছে অন্তত ৬৭৫ জনের। হাজার হাজার মানুষ গৃহহীন এবং লক্ষ লক্ষ মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় দিন কাটাইতেছে। ইহার সহিত চীনের বিভিন্ন রাজ্য ভয়ঙ্কর বন্যার মুখে পড়িয়াছে। এই সকল বন্যার প্রভাব বাংলাদেশেও পড়িতেছে। ইতোমধ্যেই দেশের উত্তরাঞ্চলের বিস্তীর্ণ এবং পূর্বাঞ্চলের আংশিক এলাকায় বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করিয়াছে। এতদাঞ্চলের ২৪ জেলার লক্ষ লক্ষ মানুষ এখন পানিবন্দি।

ক্ষয়ক্ষতির পাশাপাশি বন্যার উপকারী দিকও আছে বটে। মাটির পানি ধারণ ক্ষমতা ও উর্বরতা-বৃদ্ধি, ভূগর্ভস্থ জলস্তরের পুনর্নবায়ন ইত্যাদি কম গুরুত্বপূর্ণ নহে। তবে বন্যা বিধ্বংসী আকার ধারণ করিলে যে ব্যাপক জনদুর্ভোগ দেখা দেয়—তাহা সর্বার্থেই দেশের বিপুল ক্ষতি সাধন করিয়া থাকে। কোনো কোনো বিশেষজ্ঞ মনে করেন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে আগামীতে বন্যা আরো মারাত্মক আকার ধারণ করিবে। বেলজিয়ামের লুভাঁ ক্যাথলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমার্জেন্সি ইভেন্টস ডেটাবেজ অনুযায়ী পাঁচ বত্সর আগে এশিয়া মহাদেশে যে ধরনের বন্যা হইত, এখন তাহার চাইতে অনেক বেশি বন্যা হইতেছে। ইহার নেপথ্যে রহিয়াছে বিশ্বের উষ্ণায়ন ও সমুদ্রের উচ্চতা বৃদ্ধি—এমনটি মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার কমনওয়েলথ সাইন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (সিএসআইআরও) আবহাওয়া বিজ্ঞানীরা। তবে কোনো কোনো বিজ্ঞানী এই তত্ত্বের বৈজ্ঞানিক ভিত্তি আদৌ স্বীকার করেন না। গবেষকরা যাহাই বলুক, বাস্তবতা হইল—বিভিন্ন অঞ্চলের বন্যার ডেটাবেজ বলিতেছে, বিশ্ব্যবাপীই বন্যার মাত্রা পূর্বের তুলনায় বৃদ্ধি পাইতেছে। সামপ্রতিক বন্যার কথা উল্লেখ করিয়া প্রধানমন্ত্রী অবশ্য বলিয়াছেন যে, এই ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসিতে পারে, কিন্তু সেই দুর্যোগ মোকাবিলারও আমাদের সব ব্যবস্থা রহিয়াছে। অর্থাত্ সরকার প্রস্তুত রহিয়াছে। এই ব্যাপারে সরকার এমন ব্যবস্থাপনা করিয়া দিয়াছে যে, কাহার কী করণীয়—সেই বিষয়ে সকলেই অবগত। ইহা আশার কথা। তবে ইহার পাশাপাশি আগামীতে আরো ব্যাপক বন্যার ব্যাপারে যে সতর্কবার্তা রহিয়াছে সেই অনুযায়ী দুর্যোগ মোকাবিলায় জনগণের সক্রিয় ভূমিকারও প্রয়োজন রহিয়াছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here