মামলা আর পাল্টা মামলায় পকেটভারি হচ্ছে যশোর পুলিশের

0
156

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত ১১ নভেম্বর প্রতিপক্ষ গ্রুপের জনসভায় অংশ নেয়ার কারণে যশোর সদর উপজেলার শ্যামনগর গ্রামের যুবলীগকর্মী সাইফুল ইসলাম বাবুকে বেদম মারপিট করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে ক্যাডাররা। তাদের মারপিটে গুরুত্বর জখম বাবুর চোখের নিচে চারটি সেলাই দিতে হয়। এ ঘটনায় ১৫ নভেম্বর কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি মামলা রেকর্ড হয়।
মামলায় চুড়ামনকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্না, তার ছেলে আব্দুল আওয়ালসহ আট জনের নাম উল্লেখ করা হয়। এই মামলার কিছুক্ষণ পরেই অভিযুক্তদেরই একজন আব্দুল আজিজ বাদী হয়ে প্রতিপক্ষ গ্রুপের ৯ জনকে আসামি করে একটি পাল্টা মামলা করেন।
এভাবে প্রতিনিয়ত কোতোয়ালি মডেল থানায় প্রকৃত ঘটনা ভিন্ন খাতে নিতে পাল্টা মামলা হচ্ছে। পুলিশের এই পাল্টা মামলা বাণিজ্যের কারণে সাধারণ মানুষ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছেন।
এর আগে গত ২২ অক্টোবর কোতোয়ালি মডেল থানায় আরেকটি মামলা দায়ের করেন আনোয়ার হোসেন খান নামে এক ব্যক্তি। উপজেলার সদুল্লাপুর গ্রামের বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন মামলায় আসামি করেন ইব্রাহিম খান ও আমিনুল ইসলাম নামে দুই ভাইকে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা আনোয়ার হোসেন খানের বাড়িতে গিয়ে তার ওপর হামলা চালিয়েছে। এই ঘটনা উল্লেখ করে কোতোয়ালি মডেল থানায় যে মামলাটি করা হয়েছে সেটাও মিথ্যা বলে জানিয়েছেন মামলার আসামিরা।
তাদের দাবি, তাদের করা একটি মামলায় আটক হন আনোয়ার খান। সেই মামলা থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে হয়রানি করতে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছেন আনোয়ার খান।
মুজিববর্ষে জনগণের বন্ধ হওয়ার নির্দেশনা থাকলেও যশোরে অধিকাংশ ক্ষেত্রে হয়রানির নাম হয়ে উঠেছে পুলিশ। অভিযোগের সাথে কাঙ্খিত টাকা ধরিয়ে দিলেই যাচাই-বাছাই ছাড়াই রেকর্ড করা হচ্ছে মামলা। কোতোয়ালি মডেল থানার এই মামলা বাণিজ্যের কারণে প্রতিনিয়ত সাধারণ মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছেন। আর প্রকৃত ঘটনা আড়াল হয়ে যাচ্ছে।
জানা যায়, গত ২১ অক্টোবর রাত পৌনে একটায় কোতোয়ালি মডেল থানায় মারপিট ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় একটি মামলা রেকর্ড হয়। সদর উপজেলার চাউলিয়া গ্রামের মুর্তজা নামে এক ব্যক্তি এই মামলাটি করেন। মামলায় জিরাট গ্রামের রাজু আহমেদ, চাউলিয়া গ্রামের সাগর গাজী, সোহেলসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে ঘটনাস্থল রূপদিয়া বাজারের নারকেলহাট দেখানো হয়। আর ঘটনার সময় উল্লেখ করা হয় সন্ধ্যা সাতটা। কিন্তু স্থানীয় ব্যবসায়ীরা যারা অন্তত রাত দশটা পর্যন্ত প্রতিদিন ওই এলাকায় অবস্থান করেন-তারা বলছেন, যে ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়ে এমন কোন ঘটনা সেদিন সেখানে ঘটেনি।
সূত্র বলছে, রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করতে যুবলীগনেতা রাজু আহমেদসহ ১১ জনের নামে ওই মামলাটি করা হয়। এজন্য অবশ্য বাদিকে মোটা অঙ্কের অর্থ খরচ করতে হয়েছে। অভিযোগের সাথে সাথে থানা পুলিশের কাছে সেই টাকা দেওয়া হয়েছে। আর তার ভিত্তিতেই কোন তদন্ত ছাড়াই মামলাটি গভীর রাতে রেকর্ড করে নিয়েছে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি।
স্থানীয় মাইক্রোস্ট্যান্ডের সভাপতি আক্তার হোসেন জানান, মারপিট ও ছিনতাইয়ের ঘটনার যে বর্ণনা দেয়া হচ্ছে সেটা একদম মিথ্যা। সেই সময় আমি এখানে ছিলাম। এমন কোন ঘটনা আমার চোখে পড়েনি। এমনকি এমন কোন ঘটনার কথা শুনিওনি। একই কথা জানালেন নারিকেলহাটের মিজান টি স্টোরের স্বত্বাধিকারী। তিনি বলেন, শুনেছি ২১ তারিখ সাতটার দিকে এখানে মারামারি ও ছিনতাই হয়েছে বলে একটি মামলা হয়েছে। কিন্তু আমি সন্ধ্যা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত দোকানে ছিলাম। আমার জানা মতে এমন কোনো ঘটনা সেদিন এখানে ঘটেনি। ঘটনা না ঘটার বিষয়টা আরো নিশ্চিত করছেন, স্থানীয় সঞ্জয় ইলেকট্রনিক্সের মালিক সঞ্জয় ও হাট মালিক শান্ত সহার বাবা ফটু সাহা।
তাহলে কিসের ভিত্তিতে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে? স্থানীয়রা জানান, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে অর্থের বিনিময় মুর্তজা এই মামলাটি করেছেন।
এ ব্যাপারে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মনিরুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই মামলা করার নেওয়া হয়েছে। তদন্ত চলছে। পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।