যশোরের রাজগঞ্জের কোমলপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি ছাত্রীকে বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ

0
393

নিজস্ব প্রতিবেদক : শ্রেণীকক্ষে ইংরেজি বিষয়ে পাঠদান চলাকালে লেখাপড়ায় সহপাঠিকে সহযোগীতা করার অপরাধে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী মারিয়া খাতুন রিমাকে বেত দিয়ে বেধড়ক পিটিয়েছে সহকারি শিক্ষক আহম্মদ আলী। অভিযোগ করা হয়েছে শ্রেণী কক্ষে অন্যান্য সহপাঠিদের সামনে এতোটাই পেটানো হয়েছে যে, রিমার স্কুল ড্রেসের কয়েক জায়গায় ছিড়ে গেছে। বেত্রাঘাতের অসহ্য যন্ত্রনা এবং অভিমানে রিমা এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে আর স্কুলে না যাওয়ার। বিষয়টি জানাজানি হবার পর অভিভাবকসহ এলাকাবাসীর মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে। আর এ ঘটনা ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার যশোরের মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের কোমলপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। রিমা উপজেলার হানুয়ার গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী আবদুল মান্নানের মেয়ে। মারিয়া খাতুন রিমা জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে(মর্নিং শিফট) ইংরেজি প্রথমপত্র বিষয়ে শ্রেণীকক্ষে পাঠদান করতে আসেন সহকারি শিক্ষক আহম্মদ আলী। প্রশ্নউত্তর পর্বে পড়াদিতে ব্যর্থ হয় সহপাঠি তিথী। এ সময় রিমা পিছনের বেঞ্চ থেকে বান্ধবী তিথীকে সহযোগীতা করে। আর এ অপরাধে অন্যান্য সহপাঠির সামনে শিক্ষক রিমাকে বেত দিয়ে বেধড়ক পেটায়। তিথীসহ অন্যান্য শিক্ষার্থীরা জানায়, স্যার এতোটায় নির্দয়ভাবে পিটিয়েছেন যে, রিমার শরীরের জামার(স্কুল ড্রেস) কয়েক জায়গায় ছিড়ে গেছে। পেটানোর পর রিমা অসুস্থ্য হয়ে পড়লে বাড়িতে খবর দেয় তার সহপাঠিরা। রিমার মা সেলিনা খাতুন বলেন, খবর পেয়ে প্রতিবেশী ওসমানকে সাথে নিয়ে স্কুলে গিয়ে অসুস্থ্য অবস্থায় রিমাকে উদ্ধার করে বাড়িতে এনে গ্রাম্য ডাক্তারের কাছ থেকে চিকিৎসা করানো হয়। রিমার মা অভিযোগ করেন, নির্দয়ভাবে পেটানোর পর এ পর্যন্ত কোন শিক্ষক তার অসুস্থ্য মেয়ের খোঁজ নেননি। বরং এ ব্যাপারে মুখ না খুলতে শিক্ষক আহম্মদ আলীর পক্ষে অপর শিক্ষক সুজিত কুমার তাকে স্কুলের পাশে ডেকে নিয়ে চার’শ টাকা হাতে ধরিয়ে দেন। কিন্তু রিমার মা সে টাকা গ্রহন না করে ওই শিক্ষকের মুখের উপর ছুড়ে দিয়ে চলে আসেন বলে সেলিনা খাতুন জানান। এ ছাড়া তিনি ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবি জানান। অভিযুক্ত সহকারি শিক্ষক আহম্মদ আলী জানান, শ্রেণীকক্ষে বেয়াদবি করায় রিমাকে সামান্য শাসন করা হয়েছে। প্রধান শিক্ষক ও ঝাঁপা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি খোরশেদ আলী জানান, এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে ম্যানেজিং কমিটিকে অবহিত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীকে মারপিটসহ কোন প্রকার শাস্তি গ্রহনযোগ্য নয় উল্লেখ করে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আকরাম হোসেন খান জানান, তদন্তপূর্বক এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here