যশোরে ভারতফেরত দম্পতির শরীরে করোনা শনাক্ত

0
124

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে ভারতফেরত এক দম্পতির শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। সোমবার পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষায় এদের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। দ্রুত দম্পতিকে যশোর ২৫০ জেনারেল হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন শেষে তারা বাড়ি ফেরে।

করোনা শনাক্তরা হলেন, যশোর শহরের বেজপাড়া মেইন রোড এলাকার বাসিন্দা রাজিব সাহা (৩৪) ও তার স্ত্রী সুস্মিতা সাহা (২২)। এ দম্পতি ভারত থেকে ফেরার পর যশোর শহরের ম্যাগপাই হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন।

ম্যাগপাই হোটেলের ম্যানেজার রাজু বিশ্বাস জানান, গত ২৯ এপ্রিল রাজিব সাহা ও সুস্মিতা সাহা ভারত থেকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন দিয়ে দেশে প্রবেশ করেন। ওইদিনই জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা আমাদের হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে পাঠান। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে দম্পতি ১৩ মে ছাড়পত্র পেয়ে বাড়িতে যান। সোমবার প্রশাসনের লোকদের কাছ থেকে জানতে পেরেছি করোনা শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি।

এ বিষয়ে যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মীর আবু মাউদ বলেন, ‘বাড়িতে থাকা দুজন করোনা পজিটিভ হয়েছেন। আর তিনি বিস্তারিত তথ্য জানতে মেডিকেল অফিসার ডা. আদনান ইমতিয়াজের সাথে যোগাযোগের পরামর্শ দেন।

ডা. আদনান ইমতিয়াজ বলেন, রাজিব সাহা ও সুস্মিতা সাহা কোয়ারেন্টাইন শেষে বাড়িতে যাওয়ার পর তাদের উপসর্গ প্রকাশ পায়। যে কারণে তারা রোববার (১৬ মে) ব্যক্তিগত উদ্যোগে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন। সোমবার তাদের নমুনার পিসিআর টেস্টের ফলাফলে করোনা পজিটিভ আসে। এরপর তাদের হাসপাতালের ডেডিকেটেড অ্যাম্বুলেন্সযোগে বাড়ি থেকে যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, তারা বাড়িতে ফিরে পরিবারের সদস্যসহ কারো সংস্পর্শে যাননি। ফলে দ্রুতই তাদের হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। বর্তমানে তাদের দুজনেরই শারীরিক অবস্থা ভালো আছে।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন বলেন, পূর্বে সরকারের সিদ্ধান্ত ছিল ভারতফেরতদের ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখতে হবে। সে মোতাবেক ১৪ দিন শেষে রাজিব সাহা ও সুস্মিতা সাহা ১৩ মে ছাড়পত্র পান। তাদের কোনো পরীক্ষা করানো হয়নি। বাড়ি ফিরে অসুস্থ বোধ করায় তারা নিজেরা পরীক্ষা করান এবং তাতে করোনা শনাক্ত হয়।

তিনি আরো বলেন, সরকারের নতুন সিদ্ধান্ত ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষ করলেও ১৫তম দিনে বাধ্যতামূলকভাবে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হবে এবং ফলাফল নেগেটিভ সাপেক্ষে ছাড়পত্র পাবেন তারা। গত ১৪ মে থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে।