যশোরে স্বর্ণ চোরাচালানীর অভিযোগে দুই নারীকে গ্রেফতার পূর্বক নগদ ৩ লাখ টাকায় মুক্তি দেওয়া খবর ফাঁস

0
305

বিশেষ প্রতিনিধি : জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের বিরুদ্ধে স্বর্নচোরাচালানীর অভিযোগে দুই নারীকে গ্রেফতার পূর্বক নগদ ২ লাখ টাকা বাকি দুই লাখ টাকার চেকের বুনিয়াদে মুক্তি দেওয়ার অভিযোগে উঠেছে।
নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ,যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি’র এসআই শহিদুল ইসলাম গত বৃহস্পতিবার ১১ মে শবেবরাতের রাতে সদর উপজেলার পুলেরহাট গ্রামের বাসিন্দা স্বর্ণচোরাচানী আলতাফ হোসেনের বাড়িতে অভিযান চালায়। আলতাফ হোসেনকে না পেয়ে উক্ত এসআই তার স্ত্রী মোছা সুমা আক্তার ও আলতাফ হোসেনের ভাই জমশেদ আলীর স্ত্রী মোছাঃ উর্মি খাতুনকে জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে ডিবি’র গাড়ীতে তুলে নিয়ে আসে। দুই নারীকে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অফিসের একটি কক্ষে আটকে রেখে তাদেরকে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ৫ লাখ টাকা দাবি করা হয়। এক পর্যায় দেন দরবার শেষে শুক্রবার রাতে শংকরপুর এলাকার শাহারিয়া নামক একজন আইনজীবীর জিম্মায় নগদ ২লাখ টাকা ও বাকী ২ লাখ টাকা চেক নিয়ে দেওয়া হয়। সূত্রটি জানিয়েছেন,রোববার নগদ আরো ১লাখ টাকা দিয়ে ২লাখ টাকার চেক নিয়ে পুনরায় আরো ১লাখ টাকার চেক জেলা গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তার কাছে দেওয়া হয়। জেলা গোয়েন্দা শাখার হেফাজতে সুমা আক্তার ও উর্মি খাতুনকে জিম্মায় প্রদানের হিসাব অনুযায়ী ১ লাখ টাকা চেক রয়েছে। সূত্রটি জানিয়েছেন,আলতাফ হোসেন স্বর্ণ চোরাচালানী। আলতাফ হোসেনের স্বর্ণ চোলানীর সাথে তার স্ত্রী সুমা আক্তার জড়িত রয়েছে এমন অভিযোগে তাকে গ্রেফতার। একই বাড়িতে সুমা আক্তারের জা উর্মি খাতুন থাকার কারনে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে জেলা গোয়েন্দা শাখার একটি টিম পুলের হাট বাড়ি হতে সুমা আক্তার ও উর্মি খাতুনকে তুলে নেওয়ার পর ওই এলাকায় নানা গুঞ্জন উঠে। শুক্রবার রাতে ডিবি অফিস থেকে মুক্তি পাওয়ার পর এলাকাবাসীর মধ্যে নানা আলোচনা সৃষ্টি হয়। আলতাফ হোসেনের পরিবারের সদস্যরা ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা। তবে জেলা গোয়েন্দা শাখা তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ স্বীকার করেনি। এ ব্যাপারে তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে আসল কাহিনী। আলতাফ হোসেন স্বর্ণচোরালান হিসেবে পুলিশের খাতায় ওয়ানটেড হিসেবে পরিচিত থাকায় পুলিশ তাকে না পেয়ে স্ত্রীকে জিম্মি করে টাকা আদায়ের ঘটনা ওই পরিবারের মধ্যে ভীতি সঞ্চার সৃষ্টি করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here