রাজগঞ্জ বাজারে ভারতীয় গরুর আমদানিতে দেশী গরু ব্যবসায়ী ও খামারিদের মাথায় হাত

0
402
উত্তম চক্তবর্তী : ভারতীয় গরুর আমদানিতে দেশী গরু ব্যবসায়ী ও খামারিদের রীতিমতো মাথায় হাত উঠেছে । দামের বাজারে গরু কিনে উচ্চ মুল্যে খাবার খাইয়ে অর্ধেক দাম পাওয়ায় যশোরের মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জসহ আশে পাশের বাজারে গরু খামারিদের কপাল চাপড়ানো ছাড়া কিছুই করার নেই বলে অভিমত স্থানীয়দের ।
জানা যায়, প্রতিনিয়ত হাটে ভারত থেকে তার বাইরের উপজেলার গুলোতে ইন্ডিয়ান গরুর আনে । হঠাৎ এ ধরনের পরিবর্তন আসায় গোশ ক্রেতারা যেমন আনন্দের সাথে গরুর মাংস কিনছেন তেমনি বিপরীত দিকে তার উল্টো দিক পরিলক্ষিত হচ্ছে । বাজার ঘুরে দেখা যাচ্ছে দেশী গরুর মাংস যেখানে ৪ শত ৭০ টাকায় কেজি প্রতি কিনতো সেখানে ইন্ডিয়ান গরুর মাংস কেজি প্রতি ৩ শত ৪০ টাকায় কিনছে ক্রেতা সাধারণ । এতে একদিকে স্বস্থির নিঃশ্বাস মেললেও দেশী গরুর খামারী ও চাষীদের যেন বাকরুদ্ধ হয়ে আসছে ৷
গরুর খাবার ফিড, ভূষি, খৈল, বিচালি সহ অন্যান্য সরঞ্চামাদি উচ্চমুল্য দিয়ে কিনে খাইয়ে এখন কেনা দামের অর্ধেক মুল্য পাচ্ছি । বাজারের গোশ বিক্রেতা ত্রক কসাই এ বিষয়ে জানান, দেশী গরুর দাম কমেনি । তবে ইন্ডিয়ান গরুর ভিড়ে দেশী গরুর মাংসের চাহিদা একেবারেই নেই বললে চলে । সস্তা মুল্যে গোশ কিনে এখন সাধারণ জন সোনালী মুরগী, পোল্ট্রি মুরগীর দিকে তেমন একটা ঝুকছে না । ফলে এলাকায় যারা উচ্চ মুল্যে গরু কিনে পালছেন তারা বিক্রির কথা মুখে আনতেই আতকে উঠছেন । একটি সূত্র জানায়, সচেতন ব্যক্তিদের ভাষ্য এমনই ধারা চলতে থাকলে দেশী গরু চাষী এবং খামারিরা রীতিমতো নিরাশ হবেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here