স্বাগত ২০১৮

0
421

আধুনিক যুগে পহেলা জানুয়ারির আবেদন বিশ্বে সবচাইতে বেশি গুরুত্ব বহন করে; যদিও নূতন বত্সরে সূর্য বিশেষ কোনো আলোকবার্তা পাঠাইবে না এই দিনে। শুরু হইবে না সম্পূর্ণ নূতন কোনো যাত্রা। নূতন আলোয় ভাসিয়া যাইবে না জমাট বাঁধা অন্ধকার। তাহার পরও পহেলা জানুয়ারিতে যে নূতন বত্সর সূচিত হয়, তাহাতে তৈরি হয় নূতন কিছুর জন্য এক ধরনের প্রত্যাশা। সেই প্রত্যাশার একটি মনস্তাত্ত্বিক মূল্য রহিয়াছে বটে।

পহেলা জানুয়ারি সর্বপ্রথম নববর্ষ পালিত হয় খ্রিস্টপূর্ব ১৫৩ সালে। উল্লেখ্য যে, খ্রিস্টপূর্ব ৭০০ সাল পর্যন্ত জানুয়ারি মাসের অস্তিত্ব ছিল না। মার্চ হইতে ডিসেম্বর পর্যন্ত গণনা করা হইত ১০ মাসে বত্সর। এই কারণে আদি রোমান ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১ মার্চ ছিল নববর্ষ। রোমের দ্বিতীয় রাজা নুমা পনটিলিয়াস জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাস যোগ করিয়া ১২ মাস পূর্ণ করেন। বিখ্যাত রোমান সম্রাট জুলিয়াস সিজার ক্যালেন্ডার সংস্কারের চেষ্টা করিয়াছিলেন। তিনি নিহত হইলে ৪৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দে সম্রাটের সম্মানে ক্যালেন্ডার সংস্কার করিয়া ‘জুলিয়ান ক্যালেন্ডার’ প্রস্তুত করা হয়। রোমান সিনেটে ভোটের মাধ্যমে ঠিক করা হয় যে, ১ জানুয়ারি হইতেই শুরু হইবে বত্সর গণনা। অবশ্য মধ্যযুগে আসিয়া খ্রিস্টাব্দ নববর্ষে একটি পরিবর্তন আনা হয়। ইউরোপে খ্রিস্টের জন্মদিন অনুযায়ী নববর্ষ পালন শুরু হয় ২৫ ডিসেম্বর হইতে। তবে এই সিদ্ধান্ত বেশিদিন টিকিয়া থাকে নাই। গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার সংস্কার করিয়া ১৫৮২ খ্রিস্টাব্দে পুনরায় নববর্ষ পালন শুরু হয় পহেলা জানুয়ারি হইতে। এক্ষণে বিশ্বব্যাপী আধুনিক প্রায় সকল কিছুই পরিচালিত হয় এই ক্যালেন্ডার অনুসারেই। সেই হিসাবে বিশ্বের সকল ধরনের ইতি-নেতি পরিমাপ করা হয় খ্রিস্টাব্দকে সামনে রাখিয়া। বিদায়ী বত্সর ২০১৭ সালকে বিশ্বব্যাপী অভিহিত করা হইয়াছে নূতন অস্থিরতার আঁতুড় ঘর হিসাবে।

এই জগত্টা হইল রিলে রেসের মতো। সুতরাং অস্থিরতার আঁতুড় ঘর হইতে উঠিয়া আসা নূতন বত্সরটিও নবতর অস্থিরতার ব্যাটন হাতেই যাত্রা শুরু করিবে। সেই হিসাবে আমরা বুঝিয়া দেখিতে পারি, কেমন বিশ্ব পাইতে যাইতেছি আমরা। মিয়ানমার হইতে রোহিঙ্গাদের জাতিগত নির্মূলের নৃশংস নিপীড়ন, ভূমধ্যসাগর দিয়া ইউরোপে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সলিল সমাধির ঘটনা, আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা ও চাপ উপেক্ষা করিয়া উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও পরাশক্তিসমূহের দানবিক শক্তির প্রকাশ, জেরুজালেম প্রশ্নে ট্রাম্পের হঠকারী পদক্ষেপসমেত সমগ্র বিশ্বের অস্থিরতা বেগবান হইয়াছে নূতন করিয়া। এইভাবে বত্সরের নূতন সূর্যোদয়ের পর হিসাবের খাতা খুলিয়া দেখিলে অস্থিরতার চিত্রটিই আমাদের সামনে প্রকাশিত হইবে সবচাইতে প্রকটভাবে। নূতন বত্সরের ডিসেম্বরে বাংলাদেশে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবার কথা। ইহা এখন আর কেবল একটি সাধারণ নির্বাচন নহে, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার পথে গুরুত্বপূর্ণ একটি সন্ধিকালও বটে।

ইহা অনস্বীকার্য যে, নানা বাধাবিপত্তির ভিতর দিয়া বাংলাদেশ শুধু আগাইয়াই যাইতেছে না, সেই সঙ্গে চমকও সৃষ্টি করিয়া চলিয়াছে বিশ্বব্যাপী। ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত থাকিবে— এমন প্রত্যাশা লইয়া যাত্রা শুরু করিল ২০১৮। সকল উত্থান-পতন এবং নবউত্থানের মধ্যেও জীবন তাহার স্পন্দন বহমান রাখিতে চাহে। সেই স্পন্দন সুস্থ, সুন্দর ও আনন্দময় হউক। সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here