১৭ বছর আগে সেদিন মান্নানের ভাগ্যে কি ঘটেছিল ??

0
234

বিশেষ প্রতিনিধি

১৭ বছর আগে কি ঘটেছিল মান্নানের ভাগ্যে ?

মান্নান অপহরন মামলার বিভিন্ন স্বাক্ষী ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা মান্নানকে খুন করা হয়েছে বলে দাবী করেছেন। মামলার বাদী মান্নানের পিতাসহ বিভিন্ন স্বাক্ষীরা (পান্নু মল্লিকের স্ত্রী,আক্কাস আলী ও হাবিল) বলেছিলেন,“মান্নানকে অন্যদের সহায়তায় খুন করে গুম করা হয়েছে ”।

এ মামলার চার্জশীট থেকে অব্যহতি পাওয়া শার্শার হানেফ সর্দার/আলী বলেছেন, সেদিন (২০০৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি) রাতেই ভারতের গাড়াপোতায় কিলার শামীম,মান্নান,সলেমানসহ কয়েকজন সেই মদের আসর থেকে বের হয়ে যায়। ঘন্টা দেড়েক পরে মান্নান বাদে সকলেই ফিরে আসে। সেরাতে দেশে ফিরে আসার দুদিন পরে মান্নানকে খুন করা হয়েছে বলে শুনেছি।

প্রত্যক্ষদর্শী আমিন বলেছেন, মান্নানকে সে রাতেই মদ খাওয়াবস্থায় খুন করেছিল কিলার শামীম,আমিরুলরা।

তথ্যনুসন্ধানে জানা যায়, ১৯৯৬ সালে এলাকার আধিপত্য বিস্তারে কিলার শামীমদের সাথে মান্নানদের ব্যাপক গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছিল। ২০০১ সালের জোট সরকারের আমলে বিএনপির সন্ত্রাসী মান্নান ও সলেমানরা আবারো বেপরোয়া হয়ে উঠে। (মান্নান ও সলেমানের বিরুদ্ধে ২০০৩ সালের একটি মারামারি মামলায় গ্রেতারি পরোয়ানা আছে বলে চৌগাছা থানা সূত্রে জানা যায়)। সেসময় (২০০৩ সালের মাঝামাঝি) ২টি হত্যাসহ একাধিক মামলায় ফেরারি হয়ে পুলিশ ও মান্নানদের অত্যাচারে গ্রাম (জাহাঙ্গীরপুর) ছেড়ে অবৈধভাবে ভারতের গাড়াপোতায় চলে যায় কিলার শামীম।

জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের একজন জনপ্রতিনিধিসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র এবং হানেফ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শামীম পালিয়েগেলে মান্নানরা ওই গ্রামসহ শামীমের বাড়িতেও অত্যাচার করে। ভারতে থাকাবস্থায় এলাকার প্রভাব ফিরে পেতে এবং প্রতিশোধ নিতে মান্নানের কাছের বন্ধু সলেমানের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলেন কিলার শামীম। সেই আমলে শামীম টাকা পাঠিয়ে সলেমানকে একটি সিটি সেল মোবাইল কিনে দিয়েছিল। সেই মোবাইলের মাধ্যমে সলেমানের সাথে শামীমের যোগাযোগ ছিল। এমনকি শামীম গ্রেফতার হলে সলেমান শামীমের সাথে জেলগেটেও দেখা করতে যেত বলে জানান হানেফ।

মান্নান ও সলেমানের বিরুদ্ধে চৌগাছা থানায় ২০০৫ সালের একটি এবং ২০২০ সালে সলেমানের বিরুদ্ধে (৫ বছর সাজা) একটি গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে। কিন্তু দীর্ঘসময় বিভিন্ন কর্মকর্তা পরবির্তন হওয়ায় মান্নান বা সলেমানকে আজ পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি চৌগাছা থানা পুলিশ। চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ গ্রেফতারি পরোয়ানাগুলোর বিষয়ে নিশ্চিত করলেও মান্নান ও সলেমানের বিষয়ে তেমন অবগত নয় বলে জানিয়েছেন।

এদিকে মান্নান নিখোজের কয়েকদিন পরেই সলেমানও নিখোজ হন। মান্নানের বিষয়ে বিভিন্ন বক্তব্য পাওয়া গেলেও সলেমানের বিষয়ে তার ভাই ভদুড়ি জানিয়েছেন, সেই থেকে সলেমানের কোনো খোজ নেই। সে বেচে আছে না মরে গেছে তাও জানিনা। তবে তার স্ত্রী এবং সন্তানরা যশোরে বাড়ি ভাড়া করে থাকে। এদিকে সলেমানের অন্য এক ভায়ের ছেলে শামীম বললেন,“গ্রামে না আসলেও সলেমান বেচে আছে।” স্থানীয় গ্রামবাসি এবং ওই এলাকার পল্লী চিকিৎসক লিয়াকত আলী বলেন,“সলেমান তার পরিবারের সাথে যোগাযোগ করেন বলে শুনেছি। আবার কেউ কেউ বলেন সলেমানও বেচে নেই”।

কিন্তু হানেফ জানিয়েছেন,“সলেমান বেচে আছে এবং তার সাথে আমার দেখা হয়েছে। সলেমান দ্বিতীয় বিয়ে করে ঢাকাতে আছে। হানেফ আরো জানান, সলেমানের প্রথম স্ত্রী সন্তানেরা যশোরে থাকে এবং সলেমানও মাঝে মাঝে সেখানে যাতায়াত করে। হানেফের বক্তব্য অনুযায়ি মান্নান নিখোজের পরে সলেমান ঢাকায় পালিয়ে যান। সেখানে নাম ঠিকানা পরিবর্তন করে একটি সিকিউরিটি এজেন্সিতে চাকরিনেন। ২/৪ বছর আগে সলেমানের সাথে বনানী (গুলশান ১ নম্বর পার হয়ে) ব্যাংক এশিয়া অফিসে আমার দেখা হয়েছে। তখন সলেমান ওই অফিসে অস্ত্র হাতে দরজায় থাকতো (গার্ড)। দৈহিক বর্ননা দিতে গিয়ে হানেফ বলেন, ৪৬/৪৭ বছরের সলেমান প্রায় ৬ফুট লম্বা, গায়ের রং শ্যামলা এবং তার সামনের দাতগুলো লম্বা। বর্তমানে তার মুখে লম্বা দাড়ি আছে। সলেমান খুবই চালাক প্রকৃতির। কোনো রকম বিপদের আভাস পেলে আবারো পালিয়ে যেতে পারে বলেও বার বার করে সতর্ক করে হানেফ।

এদিকে মান্নান অপহরনের মামলার চার্জশীট পর্যালোচনা করে যশোর জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারন সম্পাদক এ্যাড.শাহানুর আলম শাহিন বলেন, চার্জশীটে ভিকটিম উদ্ধারের প্রচেষ্টার কথা বলা আছে। কিন্তু পরবর্তীতে ভিকটিমের বিষয়ে তদন্তকারি কর্মকর্তা কোন মতামত দেননি। পুলিশি তদন্তে ভিকটিম উদ্ধার বা ভিকটিম সম্বন্ধে সঠিক তথ্য উদঘাটিত হওয়া উচিত ছিল বলেও মনে করেন এই বিজ্ঞ আইনজীবি।

অপরদিকে মান্নান অপহরন মামলায় বিভিন্ন সময়ে আজিজুর রহমান ও আশরাফুল ইসলাম কেতু নামে দুজনকে গ্রেফতার পরবর্তী ৫ দিনের পুলিশি রিমান্ডে ছিলেন। কিন্তু হানেফ কখনো গ্রেফতার হননি। তাই তদন্ত শেষে উপযুক্ত স্বাক্ষ্য প্রমানের আভাবে আজিজুর রহমান,আশরাফুল ইসলাম কেতু এবং শার্শার হানেফ সর্দারকে মামলা থেকে অব্যহতি দিয়ে সলেমানের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন তদন্তকারি কর্মকর্তা। কিন্তু মামলা রুজু থেকে বিচারকার্য সমাপ্ত হওয়া পর্যন্ত সেই সলেমান আত্নসমর্পন বা গ্রেফতার না হওয়ার কারনে মান্নান নিখোজের ঘটনা রহস্যময় থেকে গেলো বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সুদীর্ঘ ১৭ বছর স্বামী মান্নানকে ছাড়া জীবন যুদ্ধে ক্লান্ত চায়না বেগম আজও তার প্রতিক্ষায় পথ চেয়ে আছেন।